২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

নন্দন দত্ত, সিউড়ি: রামের রথ টানল রহিম। রামও সেজেছিলেন রহিমের লোক তারিবুল। বীরভূমে ভোট বাজারে রাম নবমী উপলক্ষ্যে এটাই সেরা ছবি রবিবারের। সামনে ভোট। কোনও দলই সুযোগ ছাড়তে নারাজ। তবে রামের জন্মদিনে রহিমকে দিয়ে রথ টানিয়ে ছাড়ল বিজেপি প্রভাবিত রাম নবমী উৎসব সমিতি। যিনি রথ টানলেন তিনি বললেন, আল্লা-ঈশ্বর তো একজনই। আর যিনি রাম সেজে প্রণাম নিলেন ভক্তদের তিনি বললেন, ‘আমি কে। উপরের ওই সর্বশক্তিমান সব দেখছেন। তিনিই সব দোয়া গ্রহণ করেছেন ভক্তদের।’ 

রবিবার রাম নবমী উৎসব ঘিরে জেলাজুড়ে বাড়তি উন্মাদনা। নির্বাচন বিধির বাইরে প্রচারের চরম সুযোগ। মন্ত্রী থেকে কাউন্সিলর সকলেই হাঁটলেন রামের নামে। এদিন বিজেপি প্রভাবিত রাম নবমী উৎসব সমিতিতে রাম সেজেছিলেন তারিবুল ইসলাম ওরফে সাদ্দাম। আর রথ টেনেছেন মুর্শিদাবাদের ধুলিয়ানের সেন্টু শেখ। ঘোড়ায় টানা রথই বিভিন্ন সময়ে তার রোজগারের সুযোগ। সেন্টু বলেন, “আগে পেট। পরে ধর্ম। উৎসব সমিতি ভাড়া করেছে তাই এসেছি। আল্লা আর ঈশ্বর একজনই”। সকালে রামপুরহাট পুরসভার মাঠ থেকে শোভাযাত্রা বের করে তৃণমূল প্রভাবিত উতসব কমিটি। সেই শোভাযাত্রায় হাঁটলেন কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় সহ তৃণমূল নেতৃত্ব। তবে তাদের মুখে একটি বারের জন্যও জয় শ্রীরাম ধ্বনি শোনা যায়নি। জেলা কীর্তন ও শিল্পী সংসদের শিল্পীরা হাঁটলেন তাদের সঙ্গে। সংগঠনের জেলা সম্পাদক রাজু রায় বলেন, আমাদের কাছে দলের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছিল। সেই ডাকে সাড়া দিয়েই আমরা সকলকে সংগঠিত করেছিলাম। দুপুরে বেরোয় বিজেপি প্রভাবিত শোভাযাত্রা। রাম নবমী উৎসব সমিতির সেই শোভাযাত্রা ছিল স্বতঃস্ফূর্ত। রামপুরহাট শহর এবং লাগোয়া গ্রামগঞ্জের মানুষ সেই শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করে।

[আরও পড়ুন: উর্দি পরেই রাম নবমীতে লাঠিখেলা, বিতর্কে আসানসোলের পুলিশ আধিকারিক]

বিজেপি নেতা সুনীল প্রসাদ বলেন, “আমাদের ধর্ম মানুষ ধর্ম। তাই তো আমরা সাদ্দামকে রাম সাজিয়েছি। আর রামের রথ টানছেন সেন্টু শেখ। আমাদের যারা সাম্প্রদায়িক বলে তাদের মুখে ঝামা ঘষে দিয়েছি। আমাদের কীর্তনের দল কিংবা আদিবাসী নৃত্যর দলকে ভাড়া করতে হয়নি। কাউকে পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিতে হয়নি”। একইভাবে সিউড়ির কড়িধ্যা ছোড়া গ্রাম থেকে রাম নবমীতে অস্ত্র মিছিল বের করে কয়েকবছর আগে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিল উৎসব কমিটি। এদিন তাদের গেরুয়া ধ্বজার মাঝে দেশের জাতীয় পতাকাও শোভা পেল। অস্ত্রবিহীন কয়েকশো যুবকের উন্মাদনায় ভরে উঠল কড়িধ্যা বড়বাগান পথ। বেশিরভাগের কপালে চন্দন চর্চিত। মাঝে লাল টিপ। এবারের সাজ মহাকাল। একই ছবি দেখা গেল সিউড়ির মালফটকে। সেখানেও রামের ছবির সামনে রাখা ছিল তরোয়াল। সিউড়ির ৪ নম্বর ওয়ার্ডে থেকে সবচেয়ে সুসজ্জিত শোভাযাত্রা বের হয় শহরে। দুবরাজপুরে, সাঁইথিয়ায় একই ছবি এবং সর্বত্রই যুবকদের ভিড়। ভোট বাজারে এই মিছিল, বিপুল ব্যয়ের পিছনে কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে প্রশাসন।

ছবি: সুশান্ত পাল 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং