২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

সামর্থ্য সীমিত, ইচ্ছাকে সম্বল করেই পুজো প্রস্তুতিতে ব্যস্ত হাতিবাগানের নামী বারোয়ারি

Published by: Sayani Sen |    Posted: October 16, 2020 4:06 pm|    Updated: October 16, 2020 4:06 pm

An Images

এবছর করোনা আবহেই পুজো। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাবগুলিতে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি৷ কলকাতার বাছাই করা কিছু সেরা পুজোর সুলুকসন্ধান নিয়ে হাজির sangbadpratidin.in৷ আজ পড়ুন হাতিবাগান নবীন পল্লির পুজোর প্রস্তুতি৷

সায়নী সেন: একেবারে ব্যতিক্রমী পরিস্থিতির সাক্ষী গোটা বিশ্ব। করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) থাবায় প্রায় বদলে গিয়েছে সব কিছুই। আর্থিক অবস্থা তলানিতে ঢেকেছে। টালমাটাল পরিস্থিতিতে থিতু হতেই যেন পারছেন না কেউ। কিন্তু সময় যে থেমে থাকে না। তাই তো উমাও তৈরি বাপের বাড়িতে আসার জন্য। সামর্থ্য নাই থাক। তা বলে ঘরের মেয়েকে আবাহন না করলে তো চলবে না। তাই ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়, এই আপ্তবাক্যকে সম্বল করেই পুজো প্রস্তুতিতে ব্যস্ত হাতিবাগান নবীন পল্লির (Nabin Pally) উদ্যোক্তারা।

শহরের নামজাদা পুজোগুলির মধ্যে অন্যতম নবীন পল্লি। কয়েক হাজার দর্শক সমাগম হয় হাতিবাগানের এই পুজোয়। তাই নিজেদের ভাবনা সকলের সামনে উপস্থাপনের জন্য প্রতি বছর দুর্গাপুজোর (Durga Puja 2020) আগে যেন হাঁফ ফেলার সময় থাকে না পুজো উদ্যোক্তাদের। কিন্তু কোভিড পরিস্থিতিতে বাজেটে কাটছাঁট হয়েছে অনেকটাই। তাই সামর্থ্য না থাকলেও ইচ্ছাকেই সম্বল করে কোমর বেঁধে চলছে পুজো প্রস্তুতি। চলতি বছর থিমভাবনা ফুটিয়ে তোলার গুরুদায়িত্ব রয়েছে শিল্পী প্রশান্ত পালের কাঁধে।

Nabin Pally

তিনি জানান, মণ্ডপটিতে কার্যত একটি পুজো প্রাঙ্গনের রূপ দেওয়া হচ্ছে। পুজোর বিভিন্ন সামগ্রীই মণ্ডপসজ্জায় কাজে লাগানো হচ্ছে। লালপাড় সাদা শাড়ি, শাঁখাপলা, কুলো, দ্বারঘট দিয়ে তৈরি ফুলঘটই মণ্ডপসজ্জার মূল আকর্ষণ। এছাড়া পটচিত্রকেও নানাভাবে মণ্ডপ সজ্জায় কাজে লাগানো হয়েছে।

Nabin Pally

[আরও পড়ুন: দুর্গা-মহিষাসুরের যুদ্ধের আড়ালে জীবন সংগ্রামের চিরন্তন কাহিনি তুলে ধরছে এই পুজো]

একচালার প্রতিমাকেই এবার বেছে নিয়েছেন শিল্পী। দেবী প্রতিমার স্নিগ্ধ রূপ সকলকে মুগ্ধ করবে বলেই আশা পুজো উদ্যোক্তাদের। আলোকসজ্জায় রয়েছে বিশেষ চমক। কাগজের ঠোঙার উপর নানা আঁকিবুঁকি করে ভিতরে আলোর বন্দোবস্ত করা হয়েছে। এককথায় থিমের চাকচিক্যকে পিছনে ফেলে মণ্ডপজুড়ে পুজোর আমেজ।  

Nabin Pally

তবে এবার করোনা সংক্রমণকে বাগে রেখে দর্শনার্থীদের মণ্ডপে প্রবেশ করানোই পুজো উদ্যোক্তাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। দর্শনার্থীদের ভিড় সামাল দেবেন অতিরিক্ত ক্লাব সদস্য। এছাড়া অষ্টমীর অঞ্জলি থেকে দশমীর সিঁদুরখেলা- প্রত্যেক ক্ষেত্রেই রাজ্য সরকারের কোভিড গাইডলাইনও মানা হচ্ছে। তাই নবীন পল্লির উদ্যোক্তাদের একটাই আবেদন, যথোপযুক্ত সাবধানতা অবলম্বন করে একটিবার ঢুঁ মেরে যান তাঁদের পুজো মণ্ডপে।

দেখুন ভিডিও:

 

[আরও পড়ুন: অতিমারীকে হারিয়ে কল্লোলিনীর জেগে ওঠার আখ্যানই দমদম পার্ক ভারতচক্রের পুজো ভাবনা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement