১৯ শ্রাবণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ৫ আগস্ট ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

কেন সরস্বতী পুজোর আগে কুল খায় না ছাত্র-ছাত্রীরা?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 8, 2019 1:57 pm|    Updated: February 8, 2019 1:57 pm

This is why people never eat baer prior Saraswati Puja

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শনি ও রবি, এবার দু’দিনই সরস্বতী পুজো। স্কুলে স্কুলে সাজো সাজো রব। মা সরস্বতীর দোহাই দিয়ে একটা দিন বইপত্র তুলে রাখার ছুতো। এছাড়া আরও রংবেরঙের আনন্দের মুহূর্ত অপেক্ষা করে কিশোর-কিশোরীদের জন্য। তার স্বাদ তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করতে তৈরি তরুণ প্রজন্ম। কিন্তু ভুল করেও কুলের স্বাদ নিতে কেউ রাজি নয়। কেননা তাহলে নাকি ঠাকুর রাগ করবেন। দীর্ঘদিনের বিশ্বাস। পরীক্ষায় যাতে ফেল করতে না হয়, সে কারণে সরস্বতী পুজোর আগে কুল দাঁতে কাটে না ছাত্রছাত্রীরা।

[হারানো নদীই আসলে দেবী সরস্বতী?]

কিন্তু কেন এই নিয়ম? কুলের সঙ্গে পরীক্ষায় পাশেরই বা কী সম্পর্ক? অথচ ছাত্র-ছাত্রীরা বিশ্বাস করে, সত্যিই কুল খেলে মা সরস্বতী কুপিতা হবেন। এবং সে কারণে পরীক্ষায় ভাল ফল হবে না। সরস্বতী পুজো উপলক্ষে বিভিন্ন রাজ্যে নানারকম লোকাচার চালু আছে। পাঞ্জাবে এই উপলক্ষে আকাশে দেদার ঘুড়ি ওড়ে। আবার মধ্যপ্রদেশ, মাহারাষ্ট্র, উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যে সরস্বতীর পাশাপাশি শিব ও পার্বতীরও পুজো করা হয়। তবে বাংলায় যে নিয়ম চালু আছে, তা আর কোথাও নেই। পুজোর পাশাপাশি এই যে কুল দাঁতে না কাটার রীতি, তা বাংলার একান্ত নিজস্বই বলতে হয়। সাধারণত কৃষিপ্রধান রাজ্য বাংলা। যে কোনও ফসলই তাই দেবতাকে উৎসর্গ করা রীতি। এমনকী নতুন ধান উঠলেও তা নিয়ে উৎসব পালিত হয়। শীতেরই ফল কুল। সরস্বতী পুজো অর্থাৎ বসন্তপঞ্চমীর সময়েই ব্যাপক হারে কুল হয়। প্রত্যাশিতভাবেই সরস্বতীর পুজোর প্রসাদ হিসেবে অপরিহার্য হয়ে উঠেছে কুল। ঠিক যেরকম পুজোর ফুল হয়ে উঠেছে গাঁদা। কেননা এটিও শীতের ফুল। যেহেতু প্রসাদ হিসেবে এটি ব্যবহৃত হয়, এই কারণেই গাছের প্রথম ফলটি বা ফসলটি দেবতাকে উৎসর্গ করা ক্রমশ প্রথা হয়ে ওঠে। লোকচারে পরিণত হয় এটি। এবং কালে কালে ছাত্ররা বিশ্বাস করতে থাকে, দেবতাকে না দিয়ে এই ফল খেলে বোধহয় পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া সম্ভব হবে না।

[ জানেন, ঋতুস্রাবের সময় কেন মহিলাদের চকোলেটের খিদে বাড়ে? ]

তবে লোকাচার পেরিয়ে অপর একটি কারণও আছে। সেটিও প্রণিধানযোগ্য। শীতের ফসল কুল এই সময়ই ব্যাপকহারে ফলতে শুরু করে। গাছ ছেয়ে যায় কুলে। সেইসঙ্গে এই বসন্তপঞ্চমীর সময়েই কুলে পাক ধরে। তার আগে কাঁচা কুল খেলে পেট খারাপের সম্ভাবনা থাকে। এখন দস্যি ছেলেদের রুখবে কে! বিশেষত গ্রামে-গঞ্জে ঢিল ছুড়ে কুল পেড়ে খাওয়া তো ছোটদের রেওয়াজ। পিঠেপুলির মরশুমে যাতে পেটের রোগে ছোটরা আক্রান্ত না হয়, তাই মা সরস্বতীর শরণ নেন অভিভাবকরা। পরীক্ষার ভয় দেখিয়েই কুল খাওয়া থেকে তাদের বিরত করার প্রথা চালু হয়েছিল সেই কোন স্মরণাতীত কাল থেকে। সেই ট্রাডিশন সমানে চলছে।

যখন তখন ঘুমিয়ে পড়ছেন, বড় কোনও অসুখ নয়তো? ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement