BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০ 

Advertisement

হাঁচি-কাশি নয়, নিশ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমেও ছড়াতে পারে করোনা! গবেষকদের দাবিতে চাঞ্চল্য

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 4, 2020 11:44 am|    Updated: April 4, 2020 11:44 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যত দিন যাচ্ছে নিজেকে বদলাচ্ছে COVID-19 ভাইরাস। ক্রমশ আরও বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠছে সে। গবেষণা বলছে, স্রেফ আর হাঁচি-কাশি নয়, নিশ্বাস নিলে এমনকী কথা বললেও শরীরে ঢুকতে পারে এই মারণ ভাইরাস। আর তার জন্য সংক্রমিত কারোর সংস্পর্শে আসার প্রয়োজন নেই। শুক্রবার এই সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট ট্রাম্প সরকারের কাছে পাঠিয়েছে মার্কিন গবেষকরা। তাঁরা জানাচ্ছেন, এই রিপোর্ট মাস্ক ব্যবহার নিয়ে নির্দেশিকাও বদলে দিতে পারে।

এতদিন বলা হচ্ছিল, আক্রান্ত ও তাঁর চিকিৎসা করছেন যাঁরা, তাঁরাই মাস্ক পরলে চলবে। কিন্তু ভাইরাস নিয়ে নতুন গবেষণা সত্যি হলে এবার যে সকলকেই মাস্ক পরতে হবে, তা বলাই বাহুল্য। উল্লেখযোগ্যভাবে, চলতি সপ্তাহ থেকে আমেরিকায় সকলকে মাস্ক পরতে নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। সেই নির্দেশ অবশ্য হেলা উড়িয়ে দিয়েছেন খোদ সে দেশের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর কথায়, “আগামী দু’সপ্তাহ সচেতন হওয়া প্রয়োজন। সরকার বলছে সকলকে মাস্ক পরতে, তবে যার ইচ্ছা হবে না, সে পরবেন না। যেমন আমার ইচ্ছা হয়নি, আমি মাস্ক পরিনি।”

[আরও পড়ুন: হাতের মুঠোয় করোনার দাওয়াই! গবেষকদের দাবি ঘিরে চাঞ্চল্য]

সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জিন বদল করছে করোনা ভাইরাস। তার চরিত্র জানতে নিরলস গবেষণা করে চলেছেন বিজ্ঞানী ও চিকিৎসকরা। এ প্রসঙ্গে আমেরিকার ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব হেলথের প্রধান অ্যান্টনি ফৌচি জানান, “মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশিকায় শীঘ্রই বদল আসবে। স্রেফ হাঁচি, কাশি নয় কথা বললেও ছড়াতে পারে এই ভাইরাস। নিশ্বাসের মাধ্যমে শরীরে ঢুকে পড়তে পারে এই মারণ ভাইরাস। এ সংক্রান্ত গবেষণা নিয়ে ন্যাশনাল অ্যাকডেমি অব সায়েন্সের তরফে একটি চিঠি সরকারকে পাঠানো হয়েছে।”

মার্কিন গবেষকরা আগে জানিয়েছিলেন, আক্রান্তের হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে এই জীবাণু মাটিতে পড়ে। সেখান থেকে অন্য কেউ সংক্রমিত হয়। কিন্তু বর্তমান গবেষণা বলছে, প্রশ্বাসের মাধ্যমেও জীবাণু দেহের বাইরে বে়রিয়ে আসে। প্রশ্বাস ছাড়ার সময় যে হালকা বাষ্প তৈরি হয়, তার মাধ্যমেও এই জীবাণু বাহিত হতে পারে। যদিও এ বিষয় নিয়ে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। প্রাথমিক তথ্য থেকে এটা স্পষ্ট, সময়ের সঙ্গে আরও ভয়ংকর হয়ে উঠছে এই মারণ জীবাণু। সহজেই এয়ারো সলের মাধ্যমে বাহিত হওয়ায়, এর সংক্রমণ রোখা ক্রমশ কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে। ফলে সংক্রমিতের কাছে না গেলেও মাস্ক ব্যবহারের আবিশ্যিকতা বাড়ছে। এদিকে ইউরোপ, আমেরিকায় ক্রমেই মাস্কের যোগানে টান পড়ছে।

এ প্রসঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি, মুখ ঢেকে রাখতে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ মেনে চলুন। কিন্তু সকলে ক্লিনিকাল মাস্ক ব্যবহার করতে যাবেন না। ওগুলো সংক্রমিত ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য রাখুন। আমজনতা সাধারন মাস্ক দিয়ে মুখ ঢাকুন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement