৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সৌরভ মাজি, বর্ধমান: শিক্ষক মানে তো শুধু পুঁথির পাঠদান নয়। শিক্ষক সমাজ গড়ে তোলার কারিগর। পরিবেশ রক্ষাও মানবজীবনের একটা শিক্ষা। আর পড়ুয়াদের মধ্যেই সেই শিক্ষার বীজই বপন করা হচ্ছে। আজ, শিক্ষক দিবসে পূর্ব বর্ধমানে পথচলা শুরু করছে গাছের চারার ব্যাংক। হ্যাঁ ব্যাংকই। যেখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে চারা সংগ্রহ করে মজুত রাখা হবে। তারপর তা যেখানে যেমন প্রয়োজন পড়বে, সেই অনুযায়ী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির ক্ষেত্রে এখান থেকেই চারা নেওয়া হবে।

[আরও পড়ুন:  মোদির ডাকে সাড়া দিলেন বরুণ, গড়লেন প্লাস্টিকমুক্ত ছবির সেট]

গাছ মাস্টার অরূপকুমার চৌধুরির মস্তিষ্কপ্রসূত গাছের চারা মজুত করার জন্য এই ব্যাংক তৈরি। অরূপবাবু পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট রামপুরিয়া হাইস্কুলের শিক্ষক। পেশার বাইরে তিনি একজন প্রকৃতিপ্রেমী। গাছই তাঁর ধ্যানজ্ঞান। গাছ লাগানো ও গাছ বাঁচানো নিয়ে দশকের পর দশক ধরে কাজ করে চলেছেন তিনি। সেই কারণে জেলার মানুষের কাছে তিনি ‘গাছ মাস্টার’ বলেই বেশি পরিচিত।তাঁর ভাবনায় তৈরি গাছের চারা মজুত করার এই প্রকল্পের পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে ‘রাধাকৃষ্ণণ স্যাপলিং ব্যাংক’। বর্ধমান শহরের বর্ধমান আদর্শ বিদ্যালয়ের সহযোগিতায় এই ব্যাংক গড়া হচ্ছে। ওই স্কুলেই হবে বৃক্ষশিশুর ভাণ্ডার। সোশ্যাল মিডিয়ায় অরূপবাবু গড়েছেন ‘গাছ (কেয়ার অব গাছ মাস্টার)’ গ্রুপ। সেই গ্রুপের সকল সদস্যকে নিয়ে এই ব্যাংক গড়ে উঠছে।

অরূপবাবু জানান, যে কোনও ব্যক্তি বা সংস্থা এই ব্যাংকে বৃক্ষশিশু দান করতে পারেন। বর্ধমান আদর্শ বিদ্যালয়ে তা রাখা থাকবে। বিভিন্ন স্কুল বা গাছ গ্রুপের সদস্যদের বিভিন্ন কর্মসূচিতে সেই ব্যাঙ্ক থেকে গাছের চারা নিয়ে বৃক্ষরোপণ করা হবে। এই আদর্শ বিদ্যালয়ের আজ, বৃহস্পতিবার পূর্ব বর্ধমান জেলার শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠান হয়। সেখানে জেলা শাসক বিজয় ভারতী, অতিরিক্ত জেলা শসাক (শিক্ষা) হুমায়ুন বিশ্বাস, সর্বশিক্ষা মিশনের প্রকল্প আধিকারিক মৌলি সান্যাল উপস্থিত ছিলেন। সেখানেই রাধাকৃষ্ণন স্যাপলিং ব্যাংক বা গাছের চারা ব্যাংকের আনুষ্ঠানিক সূচনা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: চাঁদের দোরগোড়ায় চন্দ্রযান ২, ল্যান্ডার বিক্রমের উপর কড়া নজর ইসরোর]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং