৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আকাশেই তৈরি হবে ‘ring of fire’, ২১ জুন বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণের সাক্ষী থাকবে ভারত

Published by: Bishakha Pal |    Posted: June 12, 2020 4:34 pm|    Updated: June 12, 2020 4:34 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নতুন বছরে ইতিমধ্যেই দু’বার চন্দ্রগ্রহণের সাক্ষী থেকেছে ভারতবাসী। জানুয়ারি মাসে হয়েছিল প্রথম চন্দ্রগ্রহণ। আর চলতি মাসে ‘স্ট্রবেরি চন্দ্রগ্রহণে’র সাক্ষী থেকেছে গোটা বিশ্ব। এবার, ২১ জুন ভারত থেকে দেখা যাবে বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণ (Solar Eclips)। তাও পূর্ণগ্রাস বা খণ্ডগ্রাস নয়, বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে ভারত থেকে। আকাশেই তৈরি হবে ‘ring of fire’ তবে ভারতের সব জায়গা থেকে এই গ্রহণ দেখা যাবে না। মূলত উত্তর ভারতের বিভিন্ন অঞ্চল থেকেই ২১ জুন এই দৃশ্য চাক্ষুষ করতে পারবে ভারতবাসী।

ভারতীয় সময় সকাল সোয়া ন’টা নাগাদ শুরু হবে সূর্যগ্রহণ। এর প্রায় এক ঘণ্টা পর, সকাল ১০টা বেজে ১৭ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডে সম্পূর্ণ সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে উত্তর ভারতের বিভিন্ন জায়গা থেকে। বেলা ১২টা ১০ মিনিট পর্যন্ত চলবে গ্রহণ। সম্পূর্ণ শেষ হবে ২টো ২ মিনিটে। ভারত-সহ পাকিস্তান, চিন, কঙ্গো, ইথিওপিয়া ও আফ্রিকা থেকেও দেখা যাবে বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণ। এছাড়া ভারত মহাসাগরীয় এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল, ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি অংশ থেকেও সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে।

[ আরও পড়ুন: দু’পায়ে ভর দিয়ে হাঁটত কুমির! কয়েক কোটি বছরের পুরনো জীবাশ্ম দেখে তাজ্জব বিজ্ঞানীরা ]

এই সূর্যগ্রহণ মানুষকে খালি চোখে দেখতে নিষেধ করেছেন নাসার বিজ্ঞানীরা। এমনকী সানগ্লাস বা এক্স-রে প্লেটও ব্যবহার না করা ভাল। টেলিস্কোপের সাহায্যে দেখার ক্ষেত্রেও সাবধনতা অবলম্বন করতে বলেছে নাসা। পরিবর্তে পিনহোল প্রজেক্টর দিয়ে সাদা কাপড়ে ছায়া ফেলে গ্রহণ দেখা করা বলেছেন বিজ্ঞানীরা। এছাড়া গ্রহণ দেখার জন্য আই প্রোটেকশন গিয়ারও ব্যবহার করা যেতে পারে।

এবারের সূর্যগ্রহণের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সতর্কতা নিতে বলার পিছনে কারণও রয়েছে। কারণ এই সূর্যগ্রহণ আংশিক নয়। এমনকী পূর্ণগ্রাসও নয়। ২১ জুন যে সূর্যগ্রহণ হবে, তা বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ। এক্ষেত্রে চাঁদ সূর্যকে ঢেকে ফেলে। কিন্তু চাঁদের আয়তন ছোট হওয়ার সূর্য চাঁদের পাশ দিয়ে আলো বিকিরণ করে। ফলে আকাশে আংটির মতো আকৃতি তৈরি হয়। ইংরেজিতে যাকে বলে ‘ring of fire’। এটি খালি চোখে দেখলে চোখ খারাপ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা তো থাকেই, এমনকী অন্ধত্ব আসার বিচিত্র নয়।

[ আরও পড়ুন: রাতারাতি জলের রং বদলে হল গোলাপি, মহারাষ্ট্রের এই হ্রদের রহস্য কী? ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement