৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সুপ্রিম কোর্টের রায়ে বোর্ড ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত সৌরভের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 19, 2016 3:24 pm|    Updated: July 19, 2016 3:24 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: লোধা কমিটির রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার সঙ্গে জড়িয়ে গেল বেশ কিছু কর্মকর্তার ভবিষ্যৎ৷ লোধা রিপোর্টে পরিষ্কার বলা হয়েছে, এক ব্যাক্তির এক পোস্ট৷ অর্থাৎ একই ব্যক্তি দু’টো পদাধিকারী কোনওমতেই হতে পারবেন না৷ এখন প্রশ্ন হল, সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর এঁরা কোথায় যাবেন৷

প্রথমেই উঠে এসেছে বোর্ড সভাপতি অনুরাগ ঠাকুরের নাম৷ অনুরাগের পাশাপাশি রয়েছেন অজয় শিরকেও৷ যিনি কিনা বোর্ডের সচিব৷ সুতরাং বোর্ডের দুই প্রধান কর্তাকে আগে ঠিক করতে হবে, তাঁরা যথাক্রমে হিমাচল প্রদেশ ও মহারাষ্ট্রর পদ ছাড়বেন কিনা৷ কারণ এক ব্যক্তির এক পোস্ট-এই রায়ে বোর্ডের দুই শীর্ষকর্তাই পড়ে গিয়েছেন৷ অনুরাগ ঠাকুরের বক্তব্য এখনও পাওয়া যায়নি৷ তবে অজয় শিরকে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি মহারাষ্ট্রের পদ ছাড়তে দ্বিধা করবেন না৷ “আমি বরাবরই বলে এসেছি, আমার কাছে পদ কখনও বড় নয়৷ কখনও কোনও পদ আঁকড়ে ধরেও রাখতে চাইনা৷ আমার কাছে কাজটাই হল আসল৷ সেক্ষেত্রে বলতে পারি, মহারাষ্ট্র ক্রিকেট সংস্থার দেখভাল করার মতো বেশ কিছু মানুষ আছেন৷ আমি এই মুহূর্তে বোর্ড ছেড়ে দিতে নারাজ৷ তবু যদি কেউ আমার থাকা নিয়ে প্রশ্ন তোলে তাহলে সরে যেতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করব না৷” জানিয়েছেন শিরকে৷

এই তালিকায় ঢুকে পড়েছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও৷ একদিকে তিনি সিএবি-র প্রেসিডেন্ট, অন্যদিকে আবার বোর্ড টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান ও আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য৷ তাহলে সৌরভ কী করবেন? কারণ সিএবি সভাপতির পদ ধরে রাখতে হলে বোর্ডের বাকি দু’টো পদ সৌরভকে ছাড়তে হবে৷ শুধু এই তিনজন নয়, বোর্ডের পদাধিকারী হিসেবে থাকা যুগ্ম সচিব অমিতাভ চৌধুরি, কোষাধ্যক্ষ অনিরুদ্ধ চৌধুরিকেও সরতে হবে৷ যেহেতু অমিতাভ এখন ঝাড়খণ্ড ও অনিরুদ্ধ হরিয়ানা ক্রিকেট সংস্থার প্রধান হয়ে বসে আছেন৷ এমনকী রাজীব শুক্লাকেও বেছে নিতে হবে তিনি আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান হয়ে থাকবেন না উত্তর প্রদেশ ক্রিকেট সংস্থার প্রধান হয়ে রাজ্য ক্রিকেটের সেবা করবেন৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement