BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

অপরাজিত থেকেই ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে চ্যাম্পিয়ন শাহরুখের ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: September 10, 2020 11:15 pm|    Updated: September 10, 2020 11:25 pm

An Images

সেন্ট লুসিয়া জুকস:‌ ১৯.‌১ ওভারে ১৫৪ অলআউট (‌ফ্লেচার ৩৯, পোলার্ড ৪/‌৩০)‌
ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স:‌ ওভারে (‌সিমন্স ৮৪ , ব্র্যাভো ৫৮,চেজ ১/‌১৩)‌
ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স আট উইকেটে জয়ী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ একটি দল প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দোরগোড়ায়। অন্যদিকে, লড়াই টুর্নামেন্টের সবচেয়ে ধারাবাহিক দলের বিরুদ্ধে। যাঁদের সামনে সুযোগ ছিল প্রথমবার অপরাজিত থেকে চ্যাম্পিয়ন হওয়া। প্রথমটি ডারেন সামির সেন্ট লুসিয়া জুকস (St. Lucia Zouks) এবং দ্বিতীয় দলটি কায়রন পোলার্ডের ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স (Trinbago Knight Riders)। যাঁর মালিক আবার খোদ শাহরুখ খান। আর বৃহস্পতিবার ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (Caribbean Premier League) এই লড়াইয়ে শেষপর্যন্ত বাজিমাত করল কিং খানের দলই। সেন্ট লুসিয়াকে তাঁরা হারাল আট উইকেটে। ১৫৫ রান তাড়া করতে নেমে শুরুতে পরপর উইকেট খোয়ালেও লেন্ডল সিমন্স এবং ড্যারেন ব্র‌্যাভোর ব্যাটে ভর করে সহজেই জয় পায় নাইট রাইডার্সরা। দু’‌জনে মিলে তৃতীয় উইকেটে যোগ করেন ১৩৮ রান। দু’‌জনেই অর্ধশতরান করে শেষপর্যন্ত অপরাজিত থাকেন।

[আরও পড়ুন:‌ এবার রাজনীতির ট্র‌্যাকে অ্যাথলিট পিংকি প্রামাণিক, যোগ দিলেন বিজেপিতে]

এদিন টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক কায়রন পোলার্ড। শুরুতেই অধিনায়কের সিদ্ধান্তের মর্যাদা দেন আলি খান। সেন্ট লুসিয়ার ওপেনার রাখিম কর্নওয়ালকে ব্যক্তিগত ৮ রানে বোল্ড করেন তিনি। কিন্তু এরপরই পালটা লড়াই শুরু করে সেন্ট লুসিয়ার মিডল অর্ডার। প্রথমে মার্ক ডেয়াল (‌২৯)‌, ফ্লেচার (৩৯‌)‌, রস্টন চেজ (২২‌)‌, নাজিবুল্লাহ জাদরান (২৪‌) অল্পবিস্তর রান পান। একসময় মনে হচ্ছিল নাইট রাইডার্সের সামনে লক্ষ্যমাত্রা ১৮০–র কাছাকাছি পৌঁছে যাবে। কিন্তু ইনিংসের শেষদিকে আঁটসাঁটো বোলিং করে সেন্ট লুসিয়াকে ১৫৪ রানে বেঁধে রাখেন পোলার্ডরা। জাদরানের পর সেন্ট লুসিয়ার আর কোনও ব্যাটসম্যান দু’‌অঙ্কে পৌঁছতে পারেননি। ফলে ১৯.‌১ ওভারেই অলআউট হয়ে যায় গোটা দল। নাইটদের হয়ে সফল বোলার অধিনায়ক কায়রন পোলার্ড। চার ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ৩০ রান দিয়ে চার উইকেট নেন তিনি। অন্যদিকে, আলি খান এবং ফাওয়াদ আহমেদ দু’‌টি করে উইকেট পান।

[আরও পড়ুন:‌ বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রীর সঙ্গে প্রেম করছেন পৃথ্বী শ! সোশ্যাল মিডিয়ায় জল্পনা]

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা যদিও ভাল হয়নি নাইটদের। দলের মাত্র ১৯ রানের মধ্যেই ফিরে যান ওপেনার ওয়েবস্টার (৫‌)‌ এবং তিন নম্বরে নামা সেইফার্ট (‌৪)‌। যদিও এরপর হাল ধরেন আরেক ওপেনার সিমন্স এবং চার নম্বরে নামা ব্র‌্যাভো। প্রথমদিকে ধরে খেললেও দশ ওভারের পর থেকেই খোলস ছেড়ে বেরোতে শুরু করেন দুই ব্যাটসম্যান। একসময় সাড়ে নয়ের কাছে চলে যাওয়া আস্কিং রেটকে তাঁরা ফের নামিয়ে আনেন। এর মধ্যেই রেকর্ডবুকে নিজের নামও তুলে ফেলেন সিমন্স। ‘‌ইউনিভার্সাল বস’‌ ক্রিস গেইলকে টপকে সিপিএলে সবচেয়ে বেশি রান করার নজির গড়লেন তিনি। ‌পরবর্তীতে দু’‌জনেই অর্ধ–শতরান পূর্ণ করেন। পাশাপাশি অপরাজিত থাকেন দু’‌জনেই। সিমন্স করেন অপরাজিত ৮৪ রান। তাও কেবল ৪৯ বলে। মারেন ৮টি চার ও ৪টি ছয়। উলটোদিকে, ব্র‌্যাভোর সংগ্রহ ৪৭ বলে ৫৮ রান।শেষপর্যন্ত ১১ বল বাকি থাকতেই নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌঁছে যায় তাঁরা।
এর আগে তিনবার এই টুর্নামেন্ট জিতলেও এবারের জয় হয়তো বিশেষ হতে চলেছে টিকেআরের কাছে। কারণ এই প্রথমবার গোটা টুর্নামেন্টে একটিও ম্যাচ না হেরে চ্যাম্পিয়ন হল তাঁরা।

 

[আরও পড়ুন:‌ আইপিএল ১৩: কেমন হতে পারে কলকাতা নাইট রাইডার্সের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ?]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement