৫ শ্রাবণ  ১৪২৬  রবিবার ২১ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রোহিত শর্মা কি আউট ছিলেন? ২০১৫ বিশ্বকাপে চলাকালীন এই প্রশ্ন তুলছিলেন বাংলাদেশি সমর্থকরা। এবার প্রশ্নটি তুলছেন ভারতীয় সমর্থকরাই। কারণ, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে রোহিতকে থার্ড আম্পায়ার কীসের ভিত্তিতে আউট দিলেন, তা নিয়ে রীতিমতো প্রশ্ন রয়েছে। নেটিজেনদের দাবি, ব্যাটে নয় বরং রোহিতের প্যাডে লেগে বলটি গিয়েছিল উইকেটরক্ষকের কাছে। কিন্তু, থার্ড আম্পায়ার পুরোটা খতিয়ে না দেখেই তাঁকে আউট দিয়ে দিয়েছেন।

[আরও পড়ুন: ক্যাচ ধরার নিরিখে বিশ্বকাপের সেরা দল ভারত, দেখুন চমকপ্রদ পরিসংখ্যান]

ঘটনাটা কী? ভারতের ইনিংসের তখন ষষ্ঠ ওভার চলছিল। রোহিতের সামনে বল করছিলেন কেমার রোচ। ওভারের শেষ বলে রোহিতের পা ও ব্যাটের মাঝ দিয়ে বল চলে যায় উইকেটরক্ষক হোপের কাছে। তিনি জোরাল আবেদন করেন কট-বিহাইন্ডের। অন-ফিল্ড আম্পায়ার তা নাকচ করে দেন। এরপরই ডিআরএসের সাহায্য নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। স্নিকো মিটারে দেখা যায়, বল কিছু একটা ছুঁয়ে উইকেটরক্ষক হোপের কাছে গিয়েছে। সঙ্গে সঙ্গেই তাঁকে আউট দিয়ে দেন থার্ড আম্পায়ার মাইকেল গগ। ভারতীয় সমর্থকদের দাবি, রোহিত আউট ছিলেন না। বল তাঁর ব্যাটে নয়-প্যাডে লেগেছে। তাছাড়া অন-ফিল্ড আম্পায়ার যখন নট-আউট দিয়েছেন, তাঁর সিদ্ধান্ত বদলানোর জন্য যতটা পোক্ত প্রমাণ থাকা প্রয়োজন, তা কোনওমতেই ছিল না থার্ড আম্পায়ারের কাছে। তাও তিনি কীভাবে রোহিতকে আউট দিলেন তা নিয়েই প্রশ্ন উঠছে। ক্ষুব্ধ ভারতীয় সমর্থকরা আম্পায়ার গগের উইকিপিডিয়া পেজেও পরিবর্তন করে দেন। লিখে দেওয়া হয়, গগ ইংল্যান্ডকে সেমিফাইনালের সুযোগ করে দেওয়ার জন্যই রোহিতকে ভুল আউট দিয়েছেন।

[আরও পড়ুন: মোদির জন্যই গেরুয়া হচ্ছে কোহলিদের জার্সি, ভারতের ‘রংবদল’ নিয়ে সরব বিরোধীরা]

এদিকে, রোহিতের আউট নিয়ে বিতর্কের মাঝেই নয়া রেকর্ড গড়ে ফেললেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। বিশ্বের দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২০ হাজার রানের গণ্ডি পেরলেন বিরাট। টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-২০ মিলিয়ে মাত্র ৪১৬ ইনিংসে ২০ হাজারের গণ্ডি পেরলেন বিরাট। এর আগে এই রেকর্ড যুগ্মভাবে দখলে রেখেছিলেন ব্রায়ান লারা এবং শচীন তেণ্ডুলকর। তাঁরা দু’জনেই ২০ হাজারের গণ্ডি পেরিয়েছিলেন ৪৫৩ ইনিংসে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং