২১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  রবিবার ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

বাংলাদেশ: ১৫০ (রহিম-৪৩) ও ২১৩ (রহিম-৬৪)
ভারত: ৪৯৩/৬ডিক্লেয়ার (মায়াঙ্ক-২৪৩, রাহানে-৮৬)
এক ইনিংস ও রানে ১৩০ জয়ী ভারত

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ইন্দোর টেস্টের প্রথম দিনই দিনের আলোর মতো স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল এ ম্যাচের ভবিষ্যৎ। ভারতীয় পেসাররা যে দাপটের সঙ্গে মাঠে আধিপত্য বিস্তার করেছিলেন, তাতে যে কোনও প্রতিপক্ষেরই রাতের ঘুম উড়ে যাওয়ার কথা। বাংলাদেশও ব্যতিক্রম নয়। তাদের প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও রাজত্ব করলেন শামি-উমেশরা। আর সেই সৌজন্যেই ২১৩ রানে গুটিয়ে গেলেন বাংলার বাঘরা। ইন্দোরে ফিরল দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট সিরিজের স্মৃতি। এখানেও ইনিংসে জয়ী টিম ইন্ডিয়া।

[আরও পড়ুন: রিয়াধে মেসি ম্যাজিক, ২ বছর পর ব্রাজিল বধ আর্জেন্টিনার]

বিশ্বের এক নম্বর দলের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই বেশ কঠিন পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছিল বাংলাদেশকে। কিন্তু টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচ মহম্মুদুল্লারা যেভাবে জিতে চমকে দিয়েছিলেন, তাতে টেস্টেও ব্যতিক্রমী পারফরম্যান্স দেখার আশা ছিল। এ কথা ঠিক যে এ দলে তাদের আসল অস্ত্র শাকিব আল হাসানই ছিলেন না। টেস্ট দলও আলাদা। কিন্তু এই দল ভারতীয় পেসারদের সামনে কোনও প্রতিবাদই গড়ে তুলতে পারল না। প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও অসহায় আত্মসমর্পণ করলেন মহম্মদ মিঠুন-লিটন দাসরা।

[আরও পড়ুন: স্বার্থের সংঘাত প্রশ্নে মুক্ত রাহুল, বজায় দ্রাবিড় ‘সভ্যতা’]

প্রথম ইনিংসে মায়াঙ্ক আগরওয়ালের ২৪৩ এবং রাহানের ৮৬ রানের সৌজন্যে পাহাড় প্রমাণ রানে পৌঁছে যায় ভারত। আর ব্যাট হাতে নামতেই বাকি কাজটা সারেন ভারতীয় বোলাররা। একাই চারটি উইকেট তুলে নেন বাংলার পেসার শামি। জোড়া উইকেট পান উমেশ যাদব। তবে শুধু পেসাররাই নন, এদিনও হাত ঘুরিয়ে সফল রবিচন্দ্রন অশ্বিন। তিনটে উইকেট ঝুলিতে ভরেন ভারতীয় স্পিনার। ২২ নভেম্বর ইডেনে প্রথমবার গোলাপি বলে দিন-রাতের টেস্ট খেলবে ভারত। তার আগে ইন্দোরের উইকেটকে যেন প্রস্তুতি মঞ্চ হিসেবেই কাজে লাগালেন বিরাটরা।  

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং