২ আষাঢ়  ১৪২৬  সোমবার ১৭ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

২ আষাঢ়  ১৪২৬  সোমবার ১৭ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়: রবিবারের ভারত-অস্ট্রেলিয়া যুদ্ধটা বিরাট একটা ম্যাচ হতে চলেছে। টুর্নামেন্টের সম্ভবত সবচেয়ে শক্তিশালী দু’টো টিম মুখোমুখি হচ্ছে রবিবার, আর সেটাও কি না ওভালের মতো ঐতিহাসিক ক্রিকেট কেন্দ্রে। রবিবারের ম্যাচের রেজাল্ট দু’টো জিনিস প্রমাণ করে দেবে। প্রথমত, যারা জিতবে তারা বিশ্বকাপের বাকি টিমগুলোর কাছে একটা বার্তা দেবে যে, দেখে নাও কে এবারের সবচেয়ে শক্তিশালী টিম। আর দ্বিতীয়ত, রবিবাসরীয় ক্রিকেটযুদ্ধ প্রামাণ্য দেবে টুর্নামেন্টের একেবারে শেষ পর্যন্ত লড়ে যাওয়ার ক্ষমতা কাদের আছে!

[আরও পড়ুন: অনবদ্য রেকর্ড কুলটার-নাইলের, আম্পায়ারিং বিতর্কের মাঝেই জিতল অস্ট্রেলিয়া]

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার দুর্ধর্ষ জয় দেখিয়ে গেল, শেষ ছ’মাসে ঠিক কতটা উন্নতি করেছে ওরা। আসলে শেষ ভারত সফরটা অস্ট্রেলিয়ার কাছে গেমচেঞ্জার হয়ে গিয়েছিল। ভারতের বিরুদ্ধে ভারতের মাঠে ওয়ান ডে সিরিজ জেতাটা নিছক শুধু একটা সিরিজ জয় ছিল না। একই সঙ্গে ওই জয় অস্ট্রেলিয়াকে প্রবল দৃঢ় ক্রিকেট জাতির তকমাটা ফিরিয়ে দিয়েছিল। ফিরিয়ে এনেছিল পুরনো অস্ট্রেলিয়াকে। ভারত সিরিজের আগের অবস্থাটা ভাবুন। অস্ট্রেলিয়া নিজেদের মাঠে দাঁড়াতেই পারেনি ভারতের সামনে। একই সঙ্গে সেই সিরিজে অস্ট্রেলীয়দের মনে হয়েছিল, খুব নিম্নমানের এক টিম। কিন্তু পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার পরপর জয়, ওদের টিমের হালচালই বদলে দিয়েছে। টিমটায় প্লেয়ার ভাল ছিল। কিন্তু ওই জয়ের পর তারা প্রয়োজনীয় আত্মবিশ্বাসটাও পেয়ে যায়। প্রবল আত্মবিশ্বাসী টিম হিসেবে নিজেদের পেশ করতে শুরু করে।

[আরও পড়ুন: রবিবার অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে নয়া রেকর্ডের সামনে কোহলি-রোহিত]

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ভারতও বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ব্রিলিয়ান্ট খেলেছে। কিন্তু রানটা যত সহজে তাড়া হবে ভাবা হয়েছিল, অতটা হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকাকে ভোগালো ওদের দুর্বল পেস অ্যাটাক। ভাল বোলিং অ্যাটাক হাতে থাকলে সাউদাম্পটন পিচে যে রানটা তুলেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা, সেটা কিন্তু জেতার জন্য যথেষ্ট হতেও পারত। ভারতের বিরুদ্ধে ডেল স্টেইন আর লুঙ্গি এনগিডিকে প্রচণ্ড মিস করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ভারতীয় ইনিংসের কুড়িটা ওভার ওদের স্পিনার দিয়ে করাতে হয়েছে। যাতে সুবিধে হয়েছে ভারতের। ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা অনেক ভাল ভাবে প্ল্যান করতে পেরেছে ইনিংস, গোছাতে পেরেছে নিজেদের।

আর রোহিত শর্মা! কী ইনিংসটাই না খেলল! আমার মতে, আজ পর্যন্ত ওয়ান ডে ক্রিকেটে নিজের সেরা ইনিংসটা সাউদাম্পটনে খেলেছে রোহিত। ব্যাটিংয়ে শৃঙ্খলা আর নিয়ন্ত্রণকে কোন পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া যায়, দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচে দেখিয়ে দিয়েছে রোহিত। যে মাইন্ডসেট নিয়ে ও সে দিন খেলেছে, তা যদি বাকি টুর্নামেন্টে থাকে, ভারতের পক্ষে সেটা বিরাট সুখবর।

[আরও পড়ুন: জানেন, কোন ছকে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ধ্বংস করলেন চাহাল?]

অস্ট্রেলিয়া ম্যাচটায় আসি এবার। ইংল্যান্ডে এই সময়টায় আকাশ কেমন থাকছে, সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা ফ্যাক্টর হয়ে যায়। ওভালের পিচ এমনিতে বেশ ভাল। কিন্তু গত ক’দিন ধরে এখানে প্রচণ্ড বৃষ্টি হয়েছে। যা রবিবারের ম্যাচে বিশাল প্রভাব ফেলতে পারে। মিচেল স্টার্ক-প্যাট কামিন্স নিয়ে গড়া অস্ট্রেলীয় পেস অ্যাটাককে এখনও পর্যন্ত দারুণ দেখিয়েছে। এবং কোনও সন্দেহ নেই ওরা ওভাল পিচ থেকে রবিবার ফায়দা তুলতে চাইবে। বিশেষ করে ভারতীয় টপ অর্ডারের বিরুদ্ধে যারা কি না গত কয়েক বছরে প্রচুর রানটান করেছে। অস্ট্রেলিয়া জানে যে, ভারতের সাফল্য রহস্যের চাবিকাঠি হল ব্যাটিং অর্ডারের প্রথম তিন। আর এটা কিন্তু প্রভাব বিচারে ম্যাচের উপর বড় হয়ে দেখা দিতে পারে।

অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংকেও তেজিয়ান দেখাচ্ছে। সম্ভ্রম আদায় করে নিচ্ছে বিপক্ষের। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে যে ভাবে মারাত্মক চাপে পড়েও ফিরে এল, তা ওদের আরও শক্তিশালী করে দেবে। অস্ট্রেলিয়ার চ্যালেঞ্জ একটাই হবে-ভারতীয় স্পিন জুটি যুজবেন্দ্র চাহাল আর কুলদীপ যাদবকে খেলা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ব্রিলিয়ান্ট বল করেছে চাহাল। আর চাহাল-কুলদীপের কুড়িটা ওভারই ঠিক করবে, ম্যাচ কাদের দখলে যেতে চলেছে। মোটামুটি এই। যা বুঝছি, একে রবিবার তার উপর এ রকম ম্যাচ, লক্ষ লক্ষ লোক খেলাটা দেখবেন। আর এটুকু বলতে পারি, দুর্ধর্ষ একটা ক্রিকেটযুদ্ধ আজ আপনারা দেখতে চলেছেন!

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং