BREAKING NEWS

৬ মাঘ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

ট্রেনের সাধারণ কামরায় ফিরলেন মেহতাবরা, বসতে দিলেন বাগান সমর্থকরা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 15, 2017 7:46 am|    Updated: May 16, 2017 10:52 am

East Bengal players refuse official transport, Board train

দুলাল দে: একে ডার্বিতে হার, তার উপর আই লিগের পর ফেডারেশন কাপ থেকেও বিদায়। ইস্টবেঙ্গলের খারাপ সময় যে কাটছে না তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এর মধ্যেই দেখা দিল আরও একটি নতুন বিতর্ক। বিনা রিজার্ভেশনে সাধারণ যাত্রীদের মতোই কটক থেকে কলকাতার উদ্দেশে রওনা হলেন অর্ণব মণ্ডল, মেহতাব হোসেন, মহম্মদ রফিক ও নারায়ন দাসের মতো লাল-হলুদ ফুটবলাররা।

[সন্তানকে ফিরিয়ে আনতে নর্দমার নোংরা জল পান করলেন এই মা]

জানা গিয়েছে, ফেড কাপ থেকে বিদায় নিলেও, রাতারাতি বিমান বা ট্রেনের টিকিট জোগাড় করতে পারেননি লাল-হলুদ কর্মকর্তারা। আর তাই এসি গাড়ির ব্যবস্থা করেছিলেন তাঁরা। কিন্তু সেটার জন্য আর অপেক্ষা করেননি অর্ণব-মেহতাবরা। শেষপর্যন্ত জেনারেল টিকিট কেটেই ট্রেনে উঠে পড়েন তাঁরা। তাও কিনা যে কামরায় এসি কিংবা নূন্যতম সুযোগ সুবিধাও নেই। আর এখানেই উঠছে প্রশ্ন। কর্তারা গাড়ির ব্যবস্থা করলেও কেন ট্রেন করে ফিরছেন লাল-হলুদের অসংখ্য ফুটবলার? কেনই বা এসি কামরার বদলে সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে সফর করছেন তাঁরা? কর্তারা গাড়িতে আসার কথা বললেও মেহতাবরা নাকি জানিয়েছেন, তাঁরা নিজেদের মতো চলে যাবেন। যদিও তিনজন বিদেশী-সহ হাওকিপ ও অন্যান্য সাপোর্ট স্টাফরা ক্লাবের গাড়িতেই ফিরছেন বলে জানা গিয়েছে।

[জানেন, মেসেজে কী লিখলে মহিলাদের থেকে উত্তর আসবেই?]

এদিকে, ট্রেনের মধ্যেই সৌজন্য দেখিয়ে ইস্টবেঙ্গল খেলোয়াড়দের বসার জায়গা দিলেন মোহনবাগান সমর্থকরা। বাগান সমর্থকদের এই সৌজন্যবোধ কিন্তু প্রমাণ করে দিল বাংলায় এখনও ফুটবলের প্রতি প্রেম বেঁচে রয়েছে। চিরশত্রু দলের ফুটবলার হলেও লাল-হলুদ ফুটবলারদের বসার জায়গা দেওয়া তাই খুবই অর্থবহ বলাই যায়। ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে মেহতাব-রফিক-অর্ণবদের ট্রেনে আসার ছবিও ছড়িয়ে পড়েছে।

18447316_1301452343241615_864608977558420948_n (1)

18425544_1301452546574928_1876734195334450226_n (1)

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে