BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ডার্বি হারের পর সমর্থকদের ক্ষোভের মুখে খালিদ, উঠল ‘গো ব্যাক’ স্লোগান

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 21, 2018 1:01 pm|    Updated: September 17, 2019 3:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এ কী হল! কোনও সমীকরণই যে মিলল না। গোটা টুর্নামেন্টে এখনও পর্যন্ত দুটো ম্যাচ হেরেছে ইস্টবেঙ্গল। আর দু’বারই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগানের কাছে। স্বাভাবিকভাবেই মুষড়ে পড়েছে গোটা দল। প্রশ্নের মুখে লাল-হলুদ কোচ খালিদ জামিলও। ডার্বি জয়ের স্বপ্ন নিয়েই প্রত্যেকবার স্টেডিয়ামে হাজির হন হাজার হাজার ভক্ত। সঞ্জয় সেন আমলে কোনও বড় ম্যাচেই জয়ের মুখ দেখেননি ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা। তাই বিশ্বাস ছিল, শংকরলালের জমানায় হয়তো ছবিটা পালটাবে। সোনির অনুপস্থিতিতে ডার্বির রং হবে লাল-হলুদ। কিন্তু তেমনটা না হওয়াতেই ক্ষোভে ফেটে পড়লেন সমর্থকরা।

[ডিকা ম্যাজিকে সম্মানের ডার্বির রং সবুজ-মেরুন]

গতবারের আই লিগ জয়ী কোচের থেকে প্রত্যাশা ছিল তুঙ্গে। কিন্তু এদিন ডার্বি হারের ফলে চ্যাম্পিয়নশিপেও জোর ধাক্কা খেয়েছে দল। মোহনবাগানের ডামাডোলের মধ্যেও একটা গোল করতে পারলেন না লাল-হলুদ ফুটবলাররা। ভাল ফর্মে থেকেও লজ্জার হার। আর তাতেই কোচ খালিদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন লাল-হলুদ সমর্থকরা। ম্যাচ শেষ হতেই যুবভারতীর ভিআইপি গেটের বাইরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। ‘গো ব্যাক খালিদ’ স্লোগানও ওঠে। দিন কয়েক আগেই যে ছবিটা চেন্নাইয়ের সঙ্গে হারের পর মোহনবাগান মাঠে দেখা গিয়েছিল। সঞ্জয় সেনের পদত্যাগের দাবিতে সরব হয়েছিলেন বাগান সমর্থকরা। এবার খালিদের কুসংস্কার ও একগুয়েমিতে বিরক্ত সমর্থকরাও। তবে ভাঙলেও মচকাচ্ছেন না খালিদ মিঞা। বলছেন, “এখনই হাল ছাড়লে হবে না। অনেকগুলো ম্যাচ বাকি। ঘুরে দাঁড়াতে হবে। ডার্বির জন্য যে প্রস্তুতি প্রয়োজন ছিল, তা হয়নি।” শুধু তাই নয়, গোটা লাল-হলুদ শিবিরই যে হারের পর কোণঠাসা হয়ে গিয়েছে, তাও স্পষ্ট।

dika_web

[ছন্নছাড়া ফুটবল, পুণে সিটির কাছে জঘন্য হার এটিকের]

এদিকে, সোশ্যাল মিডিয়ায় চিরশত্রুদের নিয়ে মশকরার এমন সুযোগ ছাড়ছেন না বাগান সমর্থকরা। ফেসবুক টুইটারে ইস্টবেঙ্গলের হার নিয়ে নানা মন্তব্য পড়ছে। তৈরি হচ্ছে মজার মজার মিম। তবে সমর্থকদের অতিরিক্ত উচ্ছ্বাসে গা ভাসাতে নারাজ শঙ্করলাল। আই লিগে হেডস্যার হিসেবে প্রথম ডার্বিতে লেটার মার্কস নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। কিন্তু আত্মতুষ্টিতে ভুগতে চান না। বলছেন, “ডার্বিতে যে দলই জেতে, বলা হয় ভাল খেলেছে। কিন্তু অন্যান্য ম্যাচে কে কতটা এগিয়ে ছিল, জিততে পারত কিনা, সে নিয়ে কথা হয় না।” তবে দিনের শেষে একটা বিষয়ে একমত ইস্ট-মোহন কোচ। এদিনের ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট ছিল ডিকার প্রথম গোলটাই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement