১১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

দুই প্রধানের আইএসএলে যোগদান নিয়ে এবার মুখ খুললেন সুনীল ছেত্রী

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: November 7, 2020 3:14 pm|    Updated: November 13, 2020 2:50 pm

Sunil Chhteri Opens Up on Life in a Bio-Bubble, Welcomes Mohun Bagan and East Bengal in ISL | Sangbad Pratidin‌‌

স্টাফ রিপোর্টার: আর কয়েকদিনের অপেক্ষা। তারপরই গোয়ার (Goa) মাটিতে গড়াবে আইএসএলের বল। প্রথমবার টুর্নামেন্টে নামতে চলেছে এসসি ইস্টবেঙ্গল (SC East Bengal) এবং এটিকে–মোহনবাগান (Atk-Mohunbagan)। কলকাতার দুই প্রধানের অন্তর্ভুক্তিতে ISL আরও জমজমাট হয়ে উঠবে। এমনটাই মনে করছেন সুনীল ছেত্রী (Sunil Chhteri)। ভারতীয় ফুটবল বর্তমান আইকনের ধারণা, সপ্তম আইএসএলের আগের যাবতীয় আকর্ষণকে ছাপিয়ে যাবে।

“মোহনবাগান–ইস্টবেঙ্গলের আইএসএলে আসা নিঃসন্দেহে বড় ব্যাপার। এই দু’টো ক্লাবের ঐতিহ্য বিশাল। আইএসএলের আকর্ষণ তাই আরও বাড়তে বাধ্য। তার চেয়েও বড় কথা, দু’টো দলের জন্য কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্যে পড়তে হবে প্রতিটি দলকে।” বলেন সুনীল ছেত্রী।

[আরও পড়ুন: আসন্ন আইএসএলে এটিকে-মোহনবাগানের মূল স্পনসর হতে চলেছে নামী এই সংস্থা]

এবার আইএসএল হবে গোয়ার তিনটে মাঠে। সুতরাং গোয়া এফসির (Goa FC) সুবিধে হওয়ার কথা। সুনীল তা মানতে নারাজ। তাঁর মতে, এবার দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে খেলা হবে। তাই প্রতিটি দলের কাছে ব্যাপারটা সমান হতে বাধ্য। গোয়া তাই বিশেষ প্রাধান্য পাবে বলে মনে করছেন না তিনি। এবারের আইএসএল যে অন্যান্যবারের থেকে সম্পূর্ন পৃথক তাও জানাতে ভুলছেন না তিনি। কেন আলাদা? তার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সুনীল ছেত্রী বলেন, “এবারের মরশুম প্রত্যেকের কাছে একটা চ্যালেঞ্জ। ফিটনেসের উপর প্রতিটি ফুটবলারকে ফোকাস রাখতে হচ্ছে। তাছাড়া এবার আমরা কান্তিরাভা স্টেডিয়ামে খেলব না। এই ব্যাপারটা আমাদের কাছে অনেক বড় ক্ষতি। আমরা যেখানে খেলি সেখানে বহু সমর্থক যান খেলা দেখতে। এসব না থাকায় এবার আমরা সমস্যায় পড়তে বাধ্য।”

তাছাড়া দীর্ঘদিন জৈব বায়বীয় বলয়ের (Bio-Bubble) মধ্যে থেকে খেলাও যে সহজ হবে না তা জানিয়ে দিয়েছেন বেঙ্গালুরু এফসির অধিনায়ক। “জৈব বায়বীয় বলয়ের মধে্য থেকে খেলা খুব একটা সহজ নয়। এর নিয়ম–কানুন মেনে চলা খুব কঠিন। খেলার সময় বহু ছোট খাটো বিষয়গুলোর উপর নজর রাখতে হবে। ফুটবল প্রেমীরা বিশেষ আনন্দ করতে পারবেন না। বৃহত্তর স্বার্থের কথা ভেবে এসব না করেও উপায় নেই। তবে পাঁচ মাস জৈব বায়বীয় বলয়ের মধ্যে থাকা সত্যিই খুব কঠিন। এরই মধ্যে আমাদের চেষ্টা করতে হবে যাবতীয় নিয়ম–কানুন মেনে চলা।” বলেন সুনীল ছেত্রী। ২০২০–২১ মরশুমে তাঁর লক্ষ্য কি জানতে চাইলে তা খোলসা করে বলেননি তিনি। তাঁর মতে, এবার ফিট হয়ে প্রথম একাদশে থাকাই সকলের লক্ষ্য হওয়া উচিত। যাতে কোচের পক্ষে সেরা একাদশ গড়া সম্ভব হয়।

[আরও পড়ুন: ক্রিকেটারদের উপর মানসিক প্রভাব ফেলছে বায়ো-বাবল, সিরিজ ছোট করার দাবি কোহলির]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে