BREAKING NEWS

২১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বুধবার ৮ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

‘গড়াপেটায় জড়িত ক্রিকেটারদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত’

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: March 18, 2017 11:54 am|    Updated: March 18, 2017 11:54 am

Match fixers should be executed, says Javed Miandad

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: একাধিকবার গড়াপেটায় জড়িয়েছে পাক ক্রিকেটারদের নাম। যাতে বিশ্ব ক্রিকেটমহলে বারবার কলঙ্কিত হয়েছে পাকিস্তান। শুধু পাকিস্তানই নয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ক্রিকেটারই এই অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন। চার-পাঁচ বছর নির্বাসন কাটিয়ে ফের দলে যোগ দেওয়ার সুযোগও পেয়ে যান কয়েকজন। কিন্তু গড়াপেটার শাস্তি এত অল্প হওয়া উচিত নয় বলে মনে করছেন প্রাক্তন পাক ক্রিকেটার জাভেদ মিঁয়াদাদ। তাঁর মতে, কোনও ক্রিকেটারের নাম ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়ালে, অভিযুক্তকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া উচিত।

[দুর্ঘটনায় গাড়িতে আগুন, পুড়ে মৃত্যু জাতীয় স্তরের কার রেসারের]

চলতি মাসে শেষ হওয়া পাকিস্তান সুপার লিগে গড়াপেটার দায়ে সরজিল খান, খালিদ লতিফ-সহ মোট পাঁচজন ক্রিকেটারকে সাসপেন্ড করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। তারপরই ফের গড়াপেটা নিয়ে সরব হলেন মিঁয়াদাদ। তিনি মনে করছেন, তাঁদের জন্য শুধু নির্বাসনের শাস্তিই যথেষ্ট নয়। এর বিরুদ্ধে আরও কঠোর আইন আনা উচিত। একটি সর্বভারতীয় খবরের ওয়েবসাইটে তিনি বলেছেন, “ক্রিকেটকে কালিমামুক্ত করতে আরও কড়া পদক্ষেপ নিতে হবে। এখনও কেন নেওয়া হচ্ছে না? এসব ক্ষেত্রে অভিযোগ প্রমাণ হলে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া উচিত। বাইশ গজে এ ধরনের বিষয়কে একেবারেই মেনে নেওয়া উচিত নয়।” মিঁয়াদাদ মনে করেন, গড়াপেটায় জড়িত ক্রিকেটারদের কঠোর শাস্তি দিলে আগামী দিনে এই অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটবে না। তবেই ক্রিকেটকে স্বচ্ছ রাখা সম্ভব হবে।

[অক্ষয়ের পর এবার সুকমায় শহিদদের পরিবারকে ৬ লক্ষ দান সাইনার]

উল্লেখ্য, শ্রীলঙ্কা দলের বাসের উপর জঙ্গি হামলা হওয়ায় ২০০৯-এর পর পাকিস্তানে আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আসর বসে না। তবে চলতি মাসে লাহোরে পিএসএল-এর ফাইনাল ম্যাচ আয়োজন করে ক্রিকেটমহলের প্রশংসা কুড়িয়েছিল পিসিবি। কিন্তু পাঁচ ক্রিকেটারের নির্বাসন পাক ক্রিকেটকে কোনওভাবেই কলঙ্কমুক্ত করতে পারেনি।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে