BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ওলিম্পিক টর্চ নিভিয়ে দেওয়ার চেষ্টা ব্রাজিলে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 16, 2016 3:33 pm|    Updated: July 16, 2016 3:33 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: খুব বেশিদিন আগের কথা নয়৷ ব্রাজিলে হয়ে যাওয়া বিশ্বকাপের সময়ও সমস্যা হয়েছিল৷ এবার রিও ওলিম্পিকের আগেও এক ছবি৷ অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র দিয়ে ওলিম্পিক টর্চ নিভিয়ে দেওয়া চেষ্টা করল এক ব্যক্তি৷ তাতে অবশ্য কার্যসিদ্ধি হয়নি৷

আর্থিক সমস্যা নিয়ে অনেকদিন ধরেই বিক্ষোভ করছেন ব্রাজিলের বাসিন্দারা৷ তারই মধ্যে ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজন করায় প্রতিবাদে সরব হয়েছিলেন তাঁরা৷ ওলিম্পিকের আগেও ছবিটা পাল্টায়নি৷ শেষ কয়েক মাস ধরে গোটা ব্রাজিল ধরে ওলিম্পিক টর্চ ঘুরে বেড়াচ্ছে৷ জয়েনভিলেতে এক ক্রীড়াবিদ ওলিম্পিক টর্চ নিয়ে দৌড়াচ্ছিলেন৷ তার চারপাশে পুলিশি প্রহরাও ছিল৷ কিন্তু তার মধ্যেই বিপত্তি৷ রাস্তার দু’পাশে ভিড় ছিল ব্যাপক৷ তার মধ্যে থেকেই এক বিক্ষোভকারী সেই পুলিশের ব্যারিকেডের মধ্যে থেকে সরাসরি টর্চের উপর স্প্রে করে দেয়৷ টর্চবহনকারী কোনও মতে সেটি আড়াল করেন৷ আগুন নেভেনি৷ পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে সেই বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করে৷

জয়েরভিলেতেই যে এমন ঘটনা প্রথম তা নয়৷ গোটা ব্রাজিল জুড়েই এমন সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে টর্চবহনকারীদের৷ গত মাসে মারাকাজুতে এক ব্যক্তি এসে বরফ গলা জল টর্চের উপর ঢেলে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন৷ যার ফলে, টুর্নামেন্টের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

বিশ্বকাপ এবং ওলিম্পিক পরপর আয়োজন করা হবে ব্রাজিলে, এই সিদ্ধান্তের পর থেকেই উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে ব্রাজিলে৷ হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটা দিন বাকি৷ কিন্তু এখনও পর্যন্ত সব স্টেডিয়াম পুরোপুরি তৈরি হয়নি৷ আভ্যন্তরীন বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও আঁটসাঁট করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে৷ এদিকে নিসে সন্ত্রাস হামলার পর জঙ্গি হানার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷ এ বিষয়ে তাই আরও সতর্ক ব্রাজিল সরকার৷ প্রায় প্রত্যেক শহরেই প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে৷ এরপরও পরিস্থিতি আয়ত্তের বাইরে দেখে রীতিমতো মাথায় হাত আয়োজকদের৷ এক কর্তা বললেন, “বিশ্বকাপের সময়ও এমন পরিস্থিতি হয়েছিল৷ তবে সব কিছু ঠিকঠাকভাবে সম্পন্ন করা গিয়েছিল৷ এবারও হয়তো সেরকমই হবে৷ বিভিন্ন দেশ থেকে একাধিক ক্রীড়াবিদ আসবে৷ তাদের কিছু হলে লজ্জার শেষ থাকবে না৷”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement