BREAKING NEWS

০৯  আষাঢ়  ১৪২৯  শনিবার ২৫ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ধোনির বিদায়বেলার সিদ্ধান্তের চমক সামলাতে তৈরি তো বিরাট?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 5, 2017 1:58 pm|    Updated: January 5, 2017 2:14 pm

Virat to Shoulder more responsibility as Dhoni Bids Adieu to captaincy

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জিততে গেলে এক ওভারে প্রয়োজন ১৫ রান৷ ক্রিজে যেই থাকুন না কেন ম্যাচ জেতানোর চাপ তাঁর উপরেই থাকবে৷ কিন্তু ব্যাট যদি একজনের হাতে থাকে তাহলে আলাদা কথা৷ ইয়ান বিশপ বলবেন, এ পরিস্থিতিতে চাপ ব্যাটসম্যানের উপর নয়, বরং বিপক্ষের ঘাড়েই থাকে৷ কে এই ক্রিকেটার তা অবশ্য আজ বলে দেওয়া বাহুল্য মাত্র৷ বিশ্ব ক্রিকেট জানে তিনি অমোঘ ও অবধারিতভাবেই মহেন্দ্র সিং ধোনি৷

ইস্পাতকঠিন বরফশীতল স্নায়ুতে যুদ্ধজয়ের জয়টিকা যদি কারও প্রাপ্য থাকে, তবে ক্রিকেটদুনিয়া তা ধোনিকে দিতে বিন্দুমাত্র কসুর করবে না৷ গ্যারি কার্স্টেন তো বলেই দিয়েছিলেন, ধোনি পাশে থাকলে তিনি যুদ্ধে যেতেও তৈরি৷ ভারতীয় ক্রিকেটে তিনিই যে সর্বকালের সেরা অধিনায়ক, এ কথা দ্বিধাহীনভাবে স্বীকার করেছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ আর এক কিংবদন্তি সুনীল গাভাসকর তো বলেই রেখেছেন, মৃত্যুর আগে তাঁর শেষ ইচ্ছা হল ২০১১ বিশ্বকাপে ধোনির ছক্কা আরও একবার দেখে যওয়া৷ বন্ধুবৃত্তের বাইরে বেরিয়ে শচীন তেন্ডুলকর সাফ জানিয়েছিলেন, তিনি যতজন অধিনায়কের সঙ্গে খেলেছেন ধোনির ধারেকাছে কেউ নেই৷ পরিস্থিতি বুঝে ধোনির সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতায় মন্ত্রমুগ্ধ লক্ষ্মণও৷ আসলে এত এত কথার আশ্রয় নেওয়া এই কারণেই যে, সদ্য অধিনায়কত্বের ক্যাপ নামিয়ে রাখলেন যিনি তিনি শুধু একজন সফল অধিনায়ক নন, কেবলমাত্র ক্রিকেটার তো ননই৷ মহেন্দ্র সিং ধোনি আসলে এক ঘরানার নাম৷

dhoniii-story_647_010417114612

মনসুর আলি খান পতৌদি থেকে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়- ভারতীয় ক্রিকেট দেখেছে বহু বর্ণময় অধিনায়ককে৷ বিচিত্র তাঁদের কর্মকাণ্ড৷ স্বতন্ত্র মেজাজে-মর্জিতেই যেন তাঁরা ভারতীয় ক্রিকেটের স্ক্র্যাপবুকে মনকেমনকরা এক একটি কাপলে লিখে গিয়েছেন৷ ধোনির পাতাটা সেখানে একটু আলাদা করেই চোখে পড়ার মতো৷ একসময় অগোছালো ভারতীয় ক্রিকেটের সংসারটাকে গুছিয়ে দিয়েছিলেন সৌরভ৷ যাঁর নেতৃত্বেই উত্থান লম্বা চুলের উদ্ধত ব্যাটসম্যান ধোনির৷ সেদিন দলের রোগটি সঠিকভাবেই চিহ্নিত করেছিলেন সৌরভ৷ দলের অনেকেই প্রতিভাবান, প্রত্যেকেই ভাল খেলেন, কিন্তু কোথাও না কোথাও দল হয়ে খেলতে না পারাটাই পিছিয়ে দিচ্ছিল ভারতীয় ক্রিকেট৷ অধিনায়ক সৌরভের আগ্রাসন ভারতকে আবার যেন পিঠ সোজা করে দাঁড়াতে শিখিয়েছিল৷ ব্যক্তি থেকে দল হিসেবে ভারতীয় ক্রিকেটের পুনরুত্থানের পর্বটি সেরে সৌরভ যখন বিদায় নিলেন, তখন নয়া চ্যালেঞ্জ এল ধোনির সামনে৷

সৌরভের উত্তুঙ্গ সাফল্য, অ্যাগ্রেসন, তুমুল জনপ্রিয়তা ভারতীয় ক্রিকেটে প্রায় রূপকথার মতো৷ তা অতিক্রম করা মোটেও চাট্টিখানি কথা ছিল না৷ এ যেন ননস্ট্রাইক এন্ড থেকে দেখা উল্টোদিকের ব্যাটসম্যান একের পর এক ছক্কা হাঁকাচ্ছেন৷ সেই মুহূর্তে সিঙ্গল নিয়ে স্ট্রাইক রোটেট করার কথাই ভাববেন শতকরা নিরানব্বই জন৷ কিন্তু ধোনির ক্রিকেট দর্শন ঠিক এখানেই আলাদা৷ তাঁর ব্যাটিং দেখা ক্রিকেটপ্রেমী মাত্রই জানেন, এ মুহূর্তেও স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই ব্যাট চালাবেন ধোনি৷ অধিনায়কত্বেও তাই করেছেন৷ ঠিক সেখানেই কৃতিত্ব ধোনির৷ সৌরভের ছায়ায় তিনি আটকে থাকেননি৷ বরং সেটা পেরিয়েও যে বৃহত্তর পরিসর পড়ে ছিল সেদিকে এগিয়ে গিয়েছেন নির্ভীকভাবে৷ এক দল হিসেবে যখন ভারতীয় ক্রিকেট স্বাবলম্বী, তখন ধোনি সে দলের ভিতর নিঃশব্দে চারিয়ে দিলেন প্রফেশনালিজম৷ যে আবেগের বাড়বাড়ন্ত একসময় ভারতকে দাঁড়াতে সাহায্য করেছিল, সেই আবেগের মাত্রাতেই রাশ টানলেন তিনি৷ নাহ, কেউ কখনও শোনেনি যে সতীর্থদের তিনি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে বারণ করেছেন৷ কিন্তু আপনি আচরি ধর্ম তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন, আবেগহীনতাও এক ধরনের নিঃশব্দ আবেগ যা সাফল্যের পাখির চোখেই তিরটি বিঁধিয়ে দিতে পারে৷ অধিনায়ক হিসেবেও তাঁর সাফল্যও তাই সর্বকালের সেরা৷ এমন সিদ্ধান্ত তিনি নিয়েছেন যে যা চমকে দিয়েছে ক্রিকেটবিশ্বকে৷ কপিবুক স্টাইল থেকে বেরিয়ে ব্যাট হাতে যেমন পরিবর্তন এনেছেন তেমনই বদলে দিয়েছেন ক্রিকেট দর্শন৷ একধরনের নৈঃশব্দ তিনি তাঁর সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে রাখেন, যা শব্দের অধিক৷ এটাই তাঁর ঘরানা৷ আর এতেই ভারতীয় ক্রিকেট পৌঁছেছে সর্বোচ্চ উচ্চতায়৷

এবার যখন তিনি তাঁর ব্যাটনটি তুলে দিলেন বিরাটের হাতে, তখন নয়া চ্যালেঞ্জ নিতে হবে তরুণ অধিনায়ককে৷ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের ব্যক্তি থেকে ব্যষ্টির দর্শনে ভাবাতে শিখিয়েছিলেন দলকে৷ ধোনি দেখিয়ে দিলেন আবেগের মাত্রায় রাশ টেনে নিখাদ প্রফেশনালিজমে সাফল্যের মাইলস্টোনগুলি এক এক করে ছুঁয়ে যেতে৷ এখান থেকে বিরাটকে যদি কিছু করে দেখাতে হয়, তবে সিদ্ধান্তে-দর্শনে অনেকখানি বৈপ্লবিক হতে হবে তাঁকে৷ এতদিন পর্যন্ত সাফল্যের স্বাদ পেয়েছেন তিনি৷ তাও মাথার উপর ধোনি ছিলেন৷ এবার তাঁর একা যাত্রা শুরু৷ একটু আগেভাগেই নিজের দল তৈরি করার পরিসর তাঁকে দিয়ে গেলেন ধোনি৷ এবার ধোনি অনেকটা চাপমুক্ত হয়ে খেলবেন৷ নিজের পারফরম্যান্সে শান দেবেন৷ আর এরকম একজন প্রাক্তন অধিনায়ক যখন মাঠে থাকবেন, তখন নেতৃত্বে নিজের ছাপ রাখতে হবে বিরাটকে৷ এখান থেকেই তাঁর অগ্নিপরীক্ষা শুরু৷ হয়তো কোনও সিদ্ধান্তের জন্য তিনি ধোনির সঙ্গেই আলোচনা করবেন৷ আর ঠিক সেই বিন্দু থেকেই সূচনা হবে ভারতীয় ক্রিকেটের নতুন অধ্যায়ের৷ ঘরানাই জন্ম দেয় নয়া ঘরানার৷ ইশারায় যেন সে কথাটি বিরাটকে বুঝিয়ে দিলেন ধোনি৷ আসলে ক্যাপ নামিয়ে রাখার ঠিক আগের মুহূর্তেও তিনি যে অধিনায়কই৷

cricket-india-2016-new-zealand-2nd-odi_a3075864-d305-11e6-a877-a82e4b02bda2

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে