BREAKING NEWS

১০ কার্তিক  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

যোগেশ্বরের সোনা জয় নিয়ে ধোঁয়াশা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: September 3, 2016 8:01 pm|    Updated: July 13, 2018 6:17 pm

Yogeshwar Dutt's Olympic gold is doubtful

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লন্ডন ওলিম্পিকের ব্রোঞ্জ পদক পাল্টে রুপো হয়েছিল৷ কিন্তু প্রয়াত রাশিয়ান কুস্তিগির বেসিক কুদুখভকে সম্মান জানাতে রুপোর পদক নেবেন না বলে জানিয়েছেন যোগেশ্বর দত্ত৷ শুক্রবার তাঁর পদক নিয়ে নয়া জল্পনা শুরু হয়৷ শুক্রবার রাতে খবর ছড়ায় যে, ভারতীয় কুস্তিগিরের পদক সোনায় পরিবর্তিত হতে চলেছে৷ কিন্তু আপাতত তেমনটা হওয়ার সম্ভাবনা কম৷

লন্ডন ওলিম্পিকে কুস্তির ৬০ কেজি ফ্রিস্টাইল বিভাগে সোনা জিতেছিলেন আজারবাইজানের তঘরুল আসগারোভ৷ শুক্রবার রাতে জানা যায়, তিনিও নাকি ডোপ টেস্টে ফেল করেছেন৷ আর সেই কারণেই ব্রোঞ্জজয়ী যোগেশ্বর চার বছর পর বিনা যুদ্ধেই সোনা পেতে চলেছেন৷ কিন্তু আসগারোভের ডোপ পরীক্ষার ফল এখনও পর্যন্ত সরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়নি৷ তাঁর পদক হাতছাড়া হচ্ছে, সে কথা এখনই বলা যাচ্ছে না৷ যোগেশ্বর নিজেও জানিয়েছেন জাতীয় কুস্তি সংস্থা বা ওয়াডা-র তরফে এ বিষয়ে এখনও তাঁকে কিছু জানানো হয়নি৷ তিনি বলেন, “সংবাদ মাধ্যমে খবরটা শুনেছি৷ তারপর থেকে ফোনে অনেক শুভেচ্ছা বার্তাও পাচ্ছি৷ কিন্তু সরকারিভাবে পদক বদলের কথা এখনও জানি না৷ কারণ মার্কিন কুস্তিগির কোলম্যান স্কট আজগারোভের কাছে হেরে ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন৷ তাই পদক বদলের ক্ষেত্রে কী নিয়ম হবে, আমার জানা নেই৷”

এদিকে, রিও ওলিম্পিক থেকে ফেরার পর বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন পি ভি সিন্ধু, দীপা কর্মকার ও যোগেশ্বর দত্ত৷ পুরোটাই স্পনসরকেন্দ্রিক৷ জানা গিয়েছে, ইন্ডিয়ান ওলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে তিন কোটি টাকার চুক্তি করেছিল লি নিং বলে একটি স্পনসর সংস্থা৷ তারাই রিও ওলিম্পিকে ভারতের অফিসিয়াল স্পনসর ছিল৷ এই সংস্থার কর্তারা আইওএ-কে জানিয়েছেন, ওলিম্পিক চলাকালীন বেশ কয়েকজন ক্রীড়াবিদ নিয়ম ভেঙেছেন৷ যে তালিকায় রয়েছেন সিন্ধু, দীপা ও যোগেশ্বর৷

সিন্ধু ও কিদাম্বী শ্রীকান্তকে দেখা গিয়েছিল ‘ইওনেক্স’-এর কিটস পরে ম্যাচে নামতে৷ অফিসিয়াল পার্টনার থাকলে যা করা যায় না৷ দীপা কর্মকার শুরুতে অন্য একটি স্পনসরের কিট ব্যবহার করছিলেন৷ কিন্তু তাঁর দলের একজন এসে ব্যাপারটা পরিষ্কার করলে লি নিংয়ের কিটস ব্যবহার শুরু করেন তিনি৷ গোটা পরিস্থিতির জন্য খেলোয়াড়দের সমালোচনা না করে আইওএ অফিসিয়ালদেরই দুষছেন লি নিংয়ের ম্যানেজিং ডিরেক্টর মহেন্দ্র কাপুর৷ বলছিলেন, “কর্তারা পুরো ব্যাপারটাই আগে থেকে জানতেন৷ ওদের কর্তাদের উচিত ছিল ক্রীড়াবিদদের ব্যাপারটি নিয়ে সতর্ক করা৷ সেটা ওঁরা করেননি৷”

বিষয়টি নিয়ে চুপ থাকেননি আইওএ-র সচিব রাজীব মেহতা৷ তিনি জানালেন, “লি নিংয়ের তরফ থেকে অভিযোগপত্র হাতে পেয়েছি৷ জাতীয় ব্যাডমিন্টন সংস্থার সঙ্গে ব্যাপারটি নিয়ে আলোচনা করেছি আমরা৷”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement