১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

বাঁচানো গেল না ওমরানের দাদা আলিকে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 21, 2016 2:51 pm|    Updated: August 21, 2016 3:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হ্যাপি এন্ডিং৷ শব্দটা সিরিয়ার জন্য নয়৷ অনন্ত এমনটাই ধারণা ক্রমাগত সংঘর্ষের জেরে ভিটেমাটি ছাড়া বিধ্বস্ত সিরিয়াবাসীর৷ আর এই চিত্রই কয়েকদিন আগে ফুটে উঠেছিল সিরিয়ার আলেপ্পোয় বিমান হামলায় পাঁচ বছরের আহত শিশু ওমরান দাগনিশের একটি ছবিতে৷ নিষ্পলক দৃষ্টিতে ক্যামেরার দিকে চেয়ে থাকা শিশুটির শরীরের অর্ধেকাংশই রক্তে ভিজে গিয়েছিল৷

মর্মান্তিক সেই ছবি ভাইরাল হয়ে উঠেছিল নেট দুনিয়ায়৷ নিন্দায় সরব হয়েছিল সারা বিশ্ব৷ সেই হামলায় শুধু ওমরান নয় আহত হয়েছিল তার গোটা পরিবার৷ ছিল তার ১০ বছরের বড় ভাই আলিও৷ আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় চিকিৎসার জন্য৷ সেখানেই বুধবার থেকে ডাক্তাররা আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়েছিলেন আলিকে বাঁচানোর জন্য৷ কিন্তু বাঁচানো যায়নি ১০ বছরের শিশুকে৷

সিরিয়ার ক্রমাগত চলতে থাকা সংঘর্ষে এখনও পর্যন্ত ২ লক্ষ ৯০ হাজারের বেশি লোক প্রাণ হারিয়েছেন, যাদের মধ্যে রয়েছে ১৫ হাজার শিশু৷ আর অশান্ত আলেপ্পোর পশ্চিম অংশটি ২০১২ সাল থেকেই রয়েছে সরকারের দখলে৷ পূর্ব প্রান্তে আবার নিয়্ন্ত্রণ বিদ্রোহী যোদ্ধাদের৷

২০১৫ থেকে রুশ বিমানবাহিনীর সহায়তায় পূর্ব প্রান্তের শহরগুলিতে বোমা ফেলে চলেছে সরকারি যুদ্ধবিমান৷ এর পাল্টা হিসেবে পশ্চিম প্রান্তে রকেট হামলা চালাচ্ছে বিদ্রোহীরা৷ পূর্ব প্রান্তে উদ্বাস্তু শিবিরে এখনও পর্যন্ত আশ্রয় আশ্রয় প্রায় আড়াই লক্ষ মানুষের৷ যাদের মধ্যে এক লক্ষই শিশু বলে জানা গিয়েছে ইউনিসেফ সূত্রে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement