BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নির্বাচনমুখী উত্তরপ্রদেশে সপা-র কাঁটা বুলন্দশহর কাণ্ড

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 1, 2016 10:10 am|    Updated: August 1, 2016 10:10 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রথমে বদায়ুনে দুই বোনকে ধর্ষণ করে খুন আর তারপর দাদরিতে বাড়িতে গোমাংস রাখার গুজবে সংখ্যালঘু প্রৌঢে়র গণপিটুনিতে মৃত্যু৷ এবার বুলন্দশহরে এক মহিলা ও তাঁর কিশোরী কন্যাকে গণধর্ষণ৷ বছরখানেকের মধ্যেই তিন ঘটনাই যারপরনাই বেকায়দায় ফেলেছে নির্বাচনমুখী উত্তরপ্রদেশের অখিলেশ যাদব সরকারকে৷ একেবারে হালফিলের গণধর্ষণের ঘটনায় রাজ্যের সমাজবাদী পার্টি সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছে বিরোধী রাজনৈতিক শিবির৷ তাঁদের কথায়, উত্তরপ্রদেশে ‘জঙ্গলরাজ’, ‘গুন্ডারাজ’ চলছে৷ সরকার অপরাধ ও অপরাধীদের দমনে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়েছে৷ এখনই তাদের সরে যাওয়া উচিত৷

রবিবার রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি)-র নেত্রী মায়বতী এই গণধর্ষণের ঘটনার নিন্দার পাশাপাশি রাজ্য সরকারকেও কঠোরভাবে আক্রমণ করেছেন৷ তিনি বলেন, সপা সরকার ও তার প্রধানদের জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে হবে, তাঁরা কি যন্ত্রণা আর ঘৃণ্য অপরাধের বলি ওই মহিলাদের সম্মান ফিরিয়ে দিতে পারবেন? মায়াবতীর অভিযোগ, রাজ্যে সম্পূর্ণ জঙ্গলরাজ চলছে এবং দুষ্কৃতকারীরা অবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছে৷ তিনি অপরাধীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন৷ সেই সঙ্গে তদন্তে শিথিলতার জন্য সংশ্লিষ্ট পুলিশ আধিকারিকদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী৷

(বুলন্দশহরে মা ও মেয়েকে গণধর্ষণ, আটক ১৫)

রাজ্যের সপা সরকারকে আক্রমণ করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মহেশ শর্মা বলেন, এর কবে শেষ হবে? এই ঘটনা প্রমাণ করছে রাজ্য সরকার সব দিক দিয়েই ব্যর্থ হয়েছে৷ ওরা কন্যাদের সম্ভ্রম রক্ষা করতে ব্যর্থ৷ এটা অত্যন্ত লজ্জার এবং সেই কারণেই তাদের সরে যাওয়া উচিত৷ অন্যদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি বিজয় বাহাদুর বলেন, রাজ্যের আইনশৃঙ্খলাই বিপথে চলে গিয়েছে৷ পুলিশ-প্রশাসনও শিথিল হয়ে পড়েছে৷ এই ঘটনা সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে ব্যর্থ পুলিশ প্রশাসনের গালে থাপ্পড়ের মতো৷

আগামী বছরেই উত্তরপ্রদেশে বিধানসভার নির্বাচন৷ এই নির্বাচনে চতুর্মুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতার চিত্র ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে৷ তাকে সামনে রেখেই বিজেপি সাংগঠনিকভাবে ঘুঁটি সাজাচ্ছে৷ রাজনৈতিক মহলের ধারণা, বুলন্দশহরের গণধর্ষণের ঘটনা একদিকে যেমন বিজেপিকে রাজনৈতিক সুবিধা দেবে, তেমনই মায়াবতীও নারীদের সম্মানরক্ষা ও নারী-নিরাপত্তার বিষয়টিকে নির্বাচনে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বড় ইস্যু করার চেষ্টা করবেন৷ বরং নির্বাচনমুখী উত্তরপ্রদেশে বদায়ুন-দাদরি-বুলন্দশহর ত্রিফলা বড় বিপদে ফেলবে মুলায়ম-অখিলেশেকে৷

বুলন্দশহরের বিজেপি সাংসদ ভোলা সিং বলেন, অত্যন্ত দুঃখের ও যন্ত্রণার ঘটনা৷ আক্রান্তদের পরিবারের প্রতি আমি সমবেদনা জানাচ্ছি৷ আমি পুলিশের সঙ্গে এই ব্যাপারে কথা বলেছি এবং প্রশাসনের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছি৷ অপরাধীদের শীঘ্রই গ্রেফতার করে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে৷ সাংসদ সিং আরও বলেন, একজন মহিলা তাঁর পরিবারের সঙ্গে থেকেই যখন নিরাপদ নন, তখন একা থাকলে তাঁর কী নিরাপত্তা আছে? গ্রামে মহিলারা বাড়ির বাইরেই যেতে পারেন না৷ গুন্ডারাজ চলছে৷

বুলন্দশহরে গণধর্ষণের ঘটনাকে হতাশাজনক, বর্বরোচিত ও মানবতার প্রতি লজ্জার বলে অভিহিত করেছে কংগ্রেস৷ এই ঘটনায় রাজ্য সরকারের কাছে কঠোর পদক্ষেপের দাবি জানানো হয়েছে৷ দলের মুখপাত্র রণদীপ সুরযেওয়ালা বলেছেন, গণধর্ষণের ঘটনা অত্যন্ত হদয়বিদারক এবং জঘন্য৷ পরিবারের পুরুষ সদস্যদের সঙ্গে থাকা সত্ত্বেও মা ও মেয়ের উপর নির্যাতন চালানো হল৷ মানুষ কতটা অমানবিক হতে পারে, এটা তারই উদাহরণ৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement