BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

লখনউয়ে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে হোটেলে গণধর্ষণ নর্তকীকে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 16, 2016 10:19 am|    Updated: August 16, 2016 10:19 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের গণধর্ষণের অভিযোগ উঠল উত্তরপ্রদেশে৷ এবার গণধর্ষণের শিকার হলেন বছর পঁচিশের এক তরুণী৷ ওই তরুণী পেশায় নর্তকী৷ হোটেলে শো করতে গিয়েই গণধর্ষণের শিকার হতে হয়েছে তাঁকে৷ রবিবার রাজধানী লখনউয়ের কাছে বানথারা এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে৷ এই ঘটনায় জড়িত থাকার অপরাধে একটি আয়ুর্বেদিক ওষুধ সংস্থার চার পদস্থ আধিকারিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ গ্রেফতার করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট হোটেলের ম্যানেজারকেও৷ সোমবার ধৃতদের আদালতে তোলা হলে বিচারক তাদের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন৷
তরুণীর দায়ের করা এফআইআর থেকে জানা গিয়েছে, লখনউয়ের ইন্দিরানগরের একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সংস্থার কর্ণধার তাঁকে ওই নাচের অনুষ্ঠানের বরাত দেন৷ আয়ুর্বেদিক সংস্থার পদস্থ কর্তা তথা স্থানীয় বাসিন্দা সত্যবীর সিং রবিবার রাতে নাচের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য ওই তরুণীর সঙ্গে চুক্তি করেন৷ আশফাক নামে এক পরিচিতের মাধ্যমে ওই তরুণীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন সত্যবীর৷ ধর্ষিতা ওই তরুণী ছাড়াও আরও দু’জন নর্তকী রবিবারের অনুষ্ঠানে অংশ নেন৷ গভীর রাত পর্যন্ত চলে অনুষ্ঠান৷ রাত দেড়টা নাগাদ এক সহযোগী নৃত্যশিল্পী ওই তরুণীকে জানান যে, চার মদ্যপ যুবক তাঁকে যৌন হেনস্তার চেষ্টা করছে৷ এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওই তরুণী সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর জিনিসপত্র গুছিয়ে নিয়ে হোটেল ছেড়ে চলে যেতে উদ্যত হন৷
এ সময় তরুণীর পরিচিত আশফাক এসে জানায়, সত্যবীর তাঁর পারিশ্রমিক মিটিয়ে দিতে চান৷ তিনি যেন যাওয়ার আগে সত্যবীরের সঙ্গে দেখা করেন৷ আশফাকের কথায় ওই তরুণী সত্যবীরের সঙ্গে দেখা করতে গেলে তাঁকে ঘিরে ধরে চার দুষ্কৃতী৷ তাদের সকলের হাতেই ছিল আগ্নেয়াস্ত্র৷ এর পর বন্দুকের নল তাক করে ওই চার দুষ্কৃতী পর পর তাঁকে ধর্ষণ করে৷ রাত গভীর হয়ে যাওয়ায় চিৎকার করেও কোনও ফল হয়নি৷ বরং চিৎকার করার কারণে দুষ্কৃতীরা ওই নর্তকীকে মারধর করে৷ সোমবার সকালে ওই তরুণীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ সত্যবীর সিং, দেবরাজ সিং, ভূষণ ভারতী ও পরেশ তোমর এবং হোটেল ম্যানেজার সৌরভ সাচারকে গ্রেফতার করেছে৷ ওই চার যুবকই আয়ুর্বেদিক সংস্থার কর্মী৷
সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশে একাধিক চাঞ্চল্যকর ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে৷ বিরোধীদের অভিযোগ, রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি একেবারে ভেঙে পড়েছে৷ মুখ্যমন্ত্রী প্রশাসন চালাতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ৷ ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে অখিলেশ যাদবের উচিত অবিলম্বে পদত্যাগ করা৷ যদিও মুখ্যমন্ত্রী বিরোধীদের তোলা অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন, “প্রশাসন অবশ্যই দোষীদের বিরু‌দ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে৷ বিরোধীরা বিষয়টিকে অহেতুক রাজনৈতিক হাতিয়ার করতে চাইছে৷”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement