১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

মোদির ভাষণ ‘একঘেয়ে’, ঘুমিয়েই পড়লেন কেজরিওয়াল!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 15, 2016 5:16 pm|    Updated: August 15, 2016 5:16 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লালকেল্লা থেকে তখন জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী৷ সামনে বসে আছেন তাবড় রাজনৈতিক নেতারা৷ আর এর মধ্যে ঘুমিয়েই পড়লেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল! সম্প্রতি তাঁর এ ছবিই ছড়িয়ে পড়ল নেটদুনিয়ায়৷

৭০ তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে প্রায় ৯০ মিনিট ভাষণ দেন মোদি৷ দেশের ইতিহাসে স্বাধীনতা উপলক্ষে এত দীর্ঘক্ষণ ভাষণ দেওয়ায় সম্ভবত রেকর্ড গড়লেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী৷ সন্ত্রাস থেকে কাশ্মীর প্রসঙ্গে যখন তোপ দাগছেন মোদি, তখন কেজরিওয়ালের চোখ বন্ধ৷ এমনিতেই মোদি-কেজরি বিরোধিতা দেশের রাজনৈতিক মহলে সুবিদিত৷ রাজ্যের হাত থেকে বিভিন্ন ক্ষমতা কেড়ে নেওয়া হচ্ছে বলে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশও করেছেন কেজরিওয়াল৷ কিন্তু দেশের এরকম গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে তাঁর ঘুমিয়ে পড়া কতটা যুক্তিযুক্ত, সেই সমালোচনাতেই মুখর হয়েছেন সকলে৷

তবে সত্যিই কি ঘুমোচ্ছিলেন কেজরিওয়াল৷ সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে কেজরিওয়ালের এ ছবি ছড়াতেই ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমেছেন আপ নেতা৷ খোদ দিল্লির উপ মুখ্যমন্ত্রী মনীশ সিসোডিয়া এর জবাব দিয়েছেন৷ অনুষ্ঠানে উপস্থিত একাধিক বিজেপি নেতার ছবি টুইটারে পোস্ট করে তাঁর কটাক্ষ, ‘মনে হয় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ একঘেয়ে ছিল’৷ এ ছবিতে বর্ষিয়ান অনেক নেতারই চোখ বন্ধ৷ বার্তাটি পরিষ্কার৷ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী যদি ঘুমিয়ে থাকেন, তাহলে এঁরাও নিশ্চয়ই ঘুমোচ্ছেন৷ তাহলে মানতে হবে প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা একঘেয়ে৷

অর্থাৎ কেজরিওয়াল ঘুমোচ্ছিলেন না ঘুমোচ্ছিলেন না তা এক জটিল ধাঁধা হয়ে থাকল৷ কেউ কেউ আবার মশকরা বলছেন ‘মেডিটেশন’ নয়, কেজরিওয়াল আসলে ‘মোদিটেশন’ করছিলেন৷

তবে রাজনৈতিক মহলের একাংশ মৃদু হেসে বলছেন, এতদিনে রাহুল গান্ধী একটি কাজের কাজ করেছেন৷ কয়েকদিন আগেই দলিত নিগ্রহ ইস্যুতে যখন সংসদ উত্তাল তখন রাহুলের চোখ বন্ধ ছবি নিয়ে ঝড় উঠেছিল চারিদিকে৷ অভিযোগ ছিল, যে সংসদে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন রাহুল গান্ধী৷ যদিও কংগ্রেসের তরফে সে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছিল৷ তবে কেউ কেউ বলছেন, দেশের কোনও গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে ঘুমিয় পড়ায় অন্তত রাহুল অনুপ্রাণিত করতে পেরেছেন কেজরিওয়ালকে৷

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement