BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পর্যটকদের জন্য সেজে উঠছে মহিষাদল রাজবাড়ি

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 27, 2016 5:19 pm|    Updated: July 27, 2016 5:19 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার, কাঁথি: পূর্ব মেদিনীপুর জেলার মহিষাদল রাজবাড়িকে ঘিরে পর্যটনের বিকাশ ঘটতে চলেছে৷ ইতিমধ্যে মহিষাদল রাজবাড়ি সংস্কার ও তাকে ঘিরে পর্যটনকেন্দ্র তৈরি করতে ৬ কোটি ৩১ লক্ষ ৪৯ হাজার টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্যের তথ্য ও সংস্কৃতি দফতর৷ বরাদ্দকৃত টাকা থেকে ৮৭ লক্ষ ৩ হাজার ২৫ টাকা রাজ্য হেরিটেজ কমিশনকে কনসালট্যান্সি ও সুপারভাইজিং-এর খরচের জন্য দেওয়া হয়েছে৷ হেরিটেজ কমিশনের মাধ্যমে দ্রুত মহিষাদল রাজবাড়ি সংস্কারের কাজ শুরু হবে বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে৷

অবিভক্ত মেদিনীপুর জেলায় বেশ কয়েকটি রাজবাড়ির হদিশ পাওয়া গেলেও বর্তমানে ঝাড়গ্রাম ও মহিষাদল রাজবাড়ি দুটি মেদিনীপুর জেলার মানুষের আবেগ বহন করে চলেছে৷ প্রায় চারশো বছরের পুরনো মহিষাদল রাজবাড়িটি এখনও পৌরাণিক যুগের ঐতিহ্য বহন করে চলেছে৷ এখনও রাজবাড়িতে রয়েছে জগন্নাথের রথ৷ রথের সময় রাজার পরিবারের লোকেরা রথ টানতে আসেন৷ রাজবাড়িতেই তৈরি হওয়া সংগ্রহশালায় রাখা হয়েছে বাঘের চামড়া থেকে শিকার করা হরিণের মুখ৷ পাশাপাশি রয়েছে যুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্র৷ যা টিকিটের বিনিময়ে প্রদর্শন করানো হয় পর্যটকদের৷

রাজ পরিবারের হাত ধরেই গড়ে উঠেছে মহিষাদল রাজ কলেজ, রাজ হাইস্কুল-সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান৷ রাজ পরিবারের তৈরি করা রাজ ময়দানে দেশের বড় বড় ফুটবলাররা খেলে গিয়েছেন৷ রাজ পরিবারের যুবরাজ শৌর্যপ্রসাদ গর্গ জানান, “ব্যক্তিগত উদ্যোগে রাজবাড়িকে আমরা দেশের মানুষের কাছে তুলে ধরতে নানা উদ্যোগ নিয়েছি৷ এবার রাজ্য সরকারের তরফে রাজবাড়ি সংরক্ষণ ও পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করায় সাধারণ মানুষের কাছে ইতিহাস ও ঐতিহ্য অনেক বেশি করে পৌঁছে যাবে৷”

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সমস্ত পৌরাণিক ঐতিহ্যকে সংস্কারের মাধ্যমে পর্যটন কেন্দ্রের রূপ দেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে৷ মহিষাদল রাজবাড়ির পাশাপাশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে স্বাধীনতা সংগ্রামী বীরেন্দ্রনাথ শাসমলের জন্মভিটা কাঁথি দেশপ্রাণ ব্লকের চণ্ডীভেটিকে৷ এখানে তৈরি করা হবে বীরেন্দ্রনাথ শাসমলের মূর্তি৷ সেইসঙ্গে মেমোরিয়াল গ্যালারি তৈরিরও পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে৷ একইভাবে শহিদ মাতঙ্গিনী হাজরার এ বছর ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করতে চলেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন৷

সেই কারণে মাতঙ্গিনী হাজরার বসতবাড়িতে একটি মূর্তি স্থাপন ও মেমোরিয়াল গ্যালারি তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন৷ ইতিমধ্যে এই দুটি বিষয়ে একটি পরিকল্পনা তৈরি করে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুরাতত্ত্ব ও সর্বেক্ষণ এর ডিরেক্টরের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement