২৩  শ্রাবণ  ১৪২৯  শুক্রবার ১২ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

সশস্ত্র আন্দোলন হলে মোর্চার বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা: মুখ্যমন্ত্রী

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 25, 2016 12:32 pm|    Updated: August 25, 2016 12:32 pm

Morcha have to face legal procedure if armed rebelion happens: Mamata

স্টাফ রিপোর্টার, শিলিগুড়ি: উন্নয়নের পথেই এগিয়ে চলবে পাহাড়৷ পাহাড়ে শান্তি নষ্টের চেষ্টা হলে তা কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না৷ উত্তরবঙ্গ সফর সেরে কলকাতায় রওনার আগে বুধবার শিলিগুড়ির সুকনায় এমনটাই জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আন্দোলনের ধুয়ো তুলে পাহাড়ে শান্তি নষ্টের চেষ্টা হলে যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে এদিন তা-ও স্পষ্ট করে মোর্চাকে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ‘পাহাড়ে শান্তি আছে, শান্তি থাকবে’ বলেও জানিয়ে দিয়েছেন তিনি৷ বলেন, পাহাড়ে এত পর্যটক আসছেন৷ মানুষের রোজগার হচ্ছে৷ এটাই তো হওয়া উচিত৷

বিমল গুরুংয়ের জিটিএ ছাড়ার হুমকি নিয়ে নাম না-করে মোর্চা সুপ্রিমোর বিরু‌দ্ধে এদিন কড়া ভাষায় তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সামনেই পাহাড়ে পুরসভা ও জিটিএ নির্বাচন৷ তার আগে দলের প্রথম সারির নেতাদের একের পর এক দলত্যাগে রাজনৈতিক দিক থেকে চরম কোণঠাসা হয়ে পড়েছে মোর্চা৷ ফলে ঘরে-বাইরে প্রবল চাপের মুখে ফের পৃথক রাজ্যের জিগির তুলে সশস্ত্র আন্দোলনের ডাক দিয়ে মোর্চা পাহাড়কে অশান্ত করে তুলতে চাইছে বলে অভিযোগ৷

কিছুদিন আগেই গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে সশস্ত্র আন্দোলনের পাশাপাশি আড়াইমাসের মধ্যে জিটিএ ছাড়ার হুমকি দিয়েছেন গুরুং৷ এনিয়ে অবশ্য মুখ্যমন্ত্রী এদিন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, “যখনই নির্বাচন আসবে, তখন ‘স্বেচ্ছাবসর স্কিমের’ মতো একই বিষয়কে তুলে ধরে আন্দোলনের এই রূপ পাহাড়ের মানুষ দেখতে চান না৷” এসবের জন্যই পাহাড় কুড়ি-পঁচিশ বছর পিছিয়ে গিয়েছে বলেও অভিযোগ তাঁর৷ একইসঙ্গে গুরুংয়ের জিটিএ ছাড়ার হুমকি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কটাক্ষ, “নির্বাচন তো চলেই এসেছে৷ এখন পদত্যাগের কথা বলার মানে কী৷”

পাহাড়ে আন্দোলন নিয়ে গুরুংদের উসকানির পিছনে দিল্লিরও মদত রয়েছে বলে অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ একইসঙ্গে তিনি জানিয়ে দেন, সশস্ত্র আন্দোলন কাম্য নয়৷ আন্দোলন নয়, পাহাড়ের উন্নয়ন চান তিনি৷ পাহাড়ে সশস্ত্র আন্দোলন হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও এদিন জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বলেন, “আমি চাই, পাহাড়ের মানুষ মূলস্রোতের সঙ্গে থেকে পাহাড়কে ভালবাসুন, সামাজিক সব কাজে অংশ নিন৷ পাহাড়ের উন্নয়ন হোক৷”

পাহাড়ে জিটিএ রয়েছে৷ ফলে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় বাইরে থেকে যতটা সম্ভব কাজ করা হচ্ছে বলে এদিন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বলেছেন, “আগামী দিনে পাহাড়ের মানুষ আমাদের ক্ষমতা দিলে পাহাড়কে ঢেলে সাজানো হবে৷” এদিকে দলের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকের পর এদিন দার্জিলিংয়ে মোর্চার সাধারণ সম্পাদক রোশন গিরি বলেছেন, “গোর্খাল্যান্ডের দাবি আদায়ে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে আন্দোলন করব আমরা৷ মুখ্যমন্ত্রী জবরদস্তি করে তা আটকাতে পারবেন না৷”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে