২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

দেশের রাস্তায় নামতে পারে ‘ট্রানজিট এলিভেটেড’ বাস

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 7, 2016 7:37 pm|    Updated: August 7, 2016 8:26 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ট্রাফিক জ্যামকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ভিড়ে ঠাসা রাস্তায় সমস্ত গাড়ির উপর দিয়ে নির্বিঘ্নে চলতে পারে এমন দৈত্যাকার বাস এবার এ দেশে চালানোর পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ যানজট ও দূষণ মোকাবিলায় এই স্ট্র্যাডল বাসের বহনক্ষমতা ৪০টি বাসের সমান, এটি বছরে ৮০০ টন জ্বালানি বাঁচাবে এবং বাতাসে ২,৪৮০ টন কম কার্বন মিশবে।

বেজিংয়ের ট্রানজিট এলিভেটেড বাস, সংক্ষেপে ‘টিইবি-ওয়ান’ নজর কেড়েছে প্রধানমন্ত্রী মোদির৷ সূত্রের খবর, পরিবহণ মন্ত্রকের কর্তাদের কাছে চিনা বাসটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ এ দেশেও ট্রাফিক জ্যাম এড়াতে ওই বাস চালানো যায় কি না, জানতে চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি৷ চলতি সপ্তাহে এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী অন্যান্য মন্ত্রকের শীর্ষ আধিকারিকদের জানিয়েছেন, এদেশের ন্যাশনাল হাইওয়েতেও ওই বাস পরীক্ষামূলকভাবে চালাতে চায় কেন্দ্র৷ প্রয়োজনে বাসটির যন্ত্রাংশ বিদেশ থেকে আমদানি করা হবে৷ এলিভেটেড এই বাস চাকার উপরে চলবে না, বরং মোনোরেলের মতো নির্দিষ্ট ট্র্যাক ধরে এগোবে। একসঙ্গে এই বাসে প্রায় ১২০০ জন যাত্রী উঠতে পারবেন।

চিনের যন্ত্রণাদায়ক ট্রাফিক-সমস্যার সমাধানে ট্রানজিট এলিভেটেড বাস লেটার মার্কস নিয়ে পাশ করেছে৷ বাসটির দৈর্ঘ্য ৭২ ফুট৷ প্রস্থ ২৬ ফুট৷ বাসটি নির্মাণ করেছে টিইবি টেকনোলজি নামক এক সংস্থা৷ বাসটি যখন চলবে, বাসটির মধ্যে দিয়েই রাস্তার ছোট গাড়িগুলি বেরিয়ে যেতে পারবে। বাসটি চলুক, বা দাঁড়িয়ে থাক, অন্যান্য গাড়ি বাসটির নীচ দিয়ে বেরিয়ে যেতে পারবে। একইভাবে বাসটিও রাস্তায় ছোট গাড়িগুলিকে অতিক্রম করতে করতে এগোতে পারবে। এই জন্য বাসটির নীচে নির্দিষ্ট জায়গা ফাঁকা থাকবে। যাত্রীরা মাটি থেকে অনেকটা উপরে বসবেন। রাস্তার প্রায় দুটি লেনের সমান চওড়া এই বাসটির মধ্যে দিয়ে তাই স্বচ্ছন্দ্যে ছোট গাড়ি চলাচল করতে পারবে। ফলে বাসের পিছনে গাড়িগুলিকে অপেক্ষায় থাকতে হবে না।

২০১০ সালে এই ধরনের বাস তৈরির কথা প্রথম ভেবেছিল চিনা সংস্থাটি৷ শেষ পর্যন্ত চলতি বছরের মে মাসে প্রথম এই বাসকে কুইনহুয়াংদাও শহরের সড়কে নামানো হয়৷ বাসের নিচ দিয়ে এগনোর সময় অন্ধকারে গাড়িগুলির যাতে কোনও সমস্যা না হয়, সে কারণে সেখানে রয়েছে আলোর বন্দোবস্ত৷ যেহেতু যাত্রীদের বসার জায়গা অনেকটা উঁচুতে থাকবে, তাই নির্দিষ্ট বাস স্টেশন থেকে এলিভেটর বা এসকেলটরের সাহায্যে বাসে উঠবেন, নামবেন যাত্রীরা। পাশাপাশি যে কোনও বিপর্যয় এড়াতে রয়েছে বিপদ-সঙ্কেতও৷ চিনে এই বাসের পরীক্ষামূলক সফর সফল হওয়ায়, এবার এদেশের জাতীয় সড়কেও এই বাস নামানোর উদ্যোগ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি৷

দেখুন ভিডিও:

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement