BREAKING NEWS

১৪  আষাঢ়  ১৪২৯  বুধবার ২৯ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

৭৫ বছর বয়সে ফের স্ত্রীর সঙ্গে মালাবদল শান্তিপুরের উপপ্রধানের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 14, 2016 1:02 pm|    Updated: October 14, 2016 1:02 pm

Santipur Panchayet Leader Remarried Wife At The Age Of 75

স্টাফ রিপোর্টার: ৭৫ বছরের ‘বুড়ো’ বর আর ৬৭ বছরের ‘কনে’৷ অভূতপূর্ব এই বিয়ের আসর বসেছিল মেচেদার এক অতিথিশালায়৷ ৫০তম বিবাহবার্ষিকীতে নিজের স্ত্রীকেই মালাবদল করে ও আংটি পরিয়ে দ্বিতীয়বার বিয়ে করলেন কোলাঘাটের রামচন্দ্রপুরের বাসিন্দা সন্তোষ ঘড়া৷ তিনি আবার শান্তিপুর-দুই নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান৷ অভিনব এই বিয়ের আসরে হাজির হয়ে ‘বুড়ো’ বর-বউকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাজ্যের পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী৷ উপস্থিত ছিলেন কোলাঘাটের প্রাক্তন বিধায়ক বিপ্লব রায়চৌধুরি, মাতঙ্গিনী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তনুশ্রী জানা-সহ পুলিশ প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ কর্তারা৷ ছিলেন সন্তোষবাবুর তিন ছেলে, তিন পুত্রবধূ, চার মেয়ে, চার জামাই-সহ ১১জন নাতি-নাতনি৷
এ বিষয়ে সন্তোষবাবু বলেন, “দ্বিতীয়বার বরবেশে সেজে জীবনে এক অনাবিল আনন্দ অনুভব করছি৷ এই আনন্দ জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত অনুভব করতে চাই৷ তাছাড়া পরিবারের সবাই ও প্রিয়জনকে একসঙ্গে কাছে পেয়ে আমি আনন্দিত ও গর্বিত৷” সন্তোষবাবুর স্ত্রী দীপ্তিরানি ঘড়া মুচকি হেসে লাজুক চোখে বললেন, “ওকে আবার নতুন করে ফিরে পেলাম৷ জীবনের শেষ ক’টা দিন ওঁকে পাশে নিয়েই বাঁচতে চাই৷ আজ নিজেকে বড্ড বেশি ভাল লাগছে৷” আতরের তীব্র গন্ধ, সানাইয়ের সুরে ওই দিন মেচেদার গেস্ট হাউসের পরিবেশ মোহময় হয়ে উঠেছিল৷
দ্বিতীয়বার নিজের স্ত্রীকে বিয়ে করার মধ্য দিয়ে সন্তোষবাবু তাঁর ৫০তম বিবাহবার্ষিকীও পালন করলেন৷ এই বিয়েবাড়ির আসরে উপস্থিত পাঁচশতাধিক আমন্ত্রিত অতিথিকে ভূরিভোজ করানো হয়৷ অতিথিরাও ওই দম্পতিকে উপহার সামগ্রী দিয়ে শুভেচ্ছা জানান৷ পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দুবাবু প্রায় আধঘণ্টা বিয়েবাড়িতে উপস্থিত থেকে তাঁর পিতৃতুল্য সন্তোষবাবুর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন৷ অনুষ্ঠানে উপস্থিত মাতঙ্গিনী পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি বামদেব গুছাইত বলেন, “বর্তমান সামাজিক প্রেক্ষাপটে এ ধরনের বিয়ের ঘটনা বিরল৷ এই ঘটনার মধ্য দিয়ে দাম্পত্য সম্পর্কের ভিত আরও মজবুত হবে৷” সন্তোষবাবুর মেয়ে, জামাই ও ছেলেরা কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন৷ তাঁরা এই বিয়ের আসরে উপস্থিত হয়েছিলেন৷
রজনীগন্ধার মালা ও পাঞ্জাবি পরা অবস্থায় সন্তোষবাবু কিছুটা আবেগাপ্লুত হয়ে গিয়েছিলেন৷ লাল টুকটুকে বেনারসি পরা ও ঠোঁটে লাল লিপস্টিক পরা অবস্থায় মেয়ে, নাতি, নাতনিদের মাঝে দীপ্তিদেবী যেন মোহময়ী হয়ে উঠেছিলেন৷
এই বিয়েবাড়ির আসরে ভূরিভোজের ছিল এলাহি আয়োজন৷ চিকেন, মটন, চিংড়ি, ভেটকি ও আইসক্রিম-সহ নানা পদের ব্যবস্থা ছিল৷ ৭৫ বছরের সন্তোষবাবু মাতঙ্গিনী ব্লকের রাজনীতিতে বৃদ্ধ ঘোড়া হিসাবে পরিচিত৷ বর্তমানে তিনি শান্তিপুর-দুই নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান পদে রয়েছেন৷ টানা ৪০ বছর কংগ্রেস করেছেন৷ এখন তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে ভোটে জিতে  পঞ্চায়েত সদস্য হওয়ার পর উপপ্রধান পদ সামলানোর দায়িত্ব পেয়েছেন সন্তোষবাবু৷ একাধিকবার তিনি গ্রাম প্রধান পদের দায়িত্বও সামলেছেন৷ বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদকে কেন্দ্র করেই শান্তিপুর-দুই নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রিত হয়৷ পুজোর মরশুমে সন্তোষবাবুর বিয়েকে ঘিরে মাতঙ্গিনী ব্লকের রাজনৈতিক মহলও খুশির মেজাজে৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে