BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ত্রিপুরায় সিপিএম বিসর্জনের ডাক মমতার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 9, 2016 5:00 pm|    Updated: August 9, 2016 5:12 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রবি ঠাকুরের বিসর্জন নাটকের প্রেক্ষাপট ছিল ত্রিপুরা৷ পরিবর্তনের জমানায় সেই ত্রিপুরাকে প্রেক্ষাপট করেই বিসর্জনের মাত্রা একটু পাল্টে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এবার ত্রিপুরায় দাঁড়িয়ে সিপিএম বিসর্জনের ডাক দিলেন তিনি৷

সিপিএমের শক্ত ঘাঁটি বলতে পশ্চিমবঙ্গ, কেরলে ও ত্রিপুরার নাম উচ্চারণ হত একইসঙ্গে৷ পশ্চিমবঙ্গ দ্বিতীয়বারের জন্য হাতছাড়া হলেও এখনও ত্রিপুরা এখনও লালদুর্গ হয়ে থেকে গিয়েছে৷ পশ্চিমবঙ্গে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর এবার ত্রিপুরায় নিজেদের ক্ষমতাবৃদ্ধির লক্ষ্যে তৃণমূল৷ সেই প্রেক্ষিতেই মমতার এই সফর ছিল ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ৷ এদিন সফরে দলীয় উদ্দেশ্য নিজের বক্তব্যে পরিষ্কার করে দেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ ত্রিপুরায় সিপিএমের বিসর্জন চেয়ে তাই তাঁর  মন্তব্য, “রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘বিসর্জন’ লিখেছিলেন। আজকের এই সভা থেকে সিপিএমের ‘বিসর্জন’ শুরু হল৷” তবে স্রেফ সরকারগঠন নয়, কাজ করাই যে লক্ষ্য সে কথাও খোলাখুলি জানিয়ে দেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী৷ কাজ করাই তাঁর ধর্ম বলে জানিয়ে এখনও পর্যন্ত দু’দফায়  তাঁর সরকারের বিভিন্ন সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরেন তিনি৷ যুবশ্রী, শিক্ষাশ্রী থেকে বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা, ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান ইত্যাদি সরকারি পরিষেবার কথা তুলে ধরে তিনি জানান ত্রিপুরার জন্যও এরকম কাজ করতে তৈরি তিনি৷ ত্রিপুরায় পরিবর্তনের সময় এসেছে জানিয়ে তাঁর আশ্বাস, “যদি আমাদের কাছে একটা রুটি থকে সেটাও আমরা আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নেব, কিন্তু সিপিএমকে এই রাজ্য ধ্বংস করতে দেব না৷” উন্নয়নের প্রশ্নে সবসময় ত্রিপুরার পাশে থাকার বার্তা দেন তিনি৷

এই সভা থেকে বিজেপিকেও একহাত নিতে ছাড়েননি তৃণমূল প্রধান৷ যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় কেন্দ্র সরকারের হস্তক্ষেপের অভিযোগ থেকে শুরু করে কেন্দ্রের কাজহীন বিজ্ঞাপনসর্বস্বতা উঠে আসে তাঁর বক্তৃতায়৷ জাতীয় রাজনীতিতে যে ফেডারেল ফ্রণ্ট তৈরি করা মমতার লক্ষ্য, তার ভিত্তিপ্রস্তর প্রচারের গোড়া থেকেই এ রাজ্যে তৈরি রাখলেন তৃণমূল নেত্রী৷ অপশাসন থেকে চিটফান্ড তৈরির জন্য সিপিএমকে দায়ী করার পাশাপাশি তাই বিজেপির বিরুদ্ধেও শানালেন আক্রমণ৷

দলীয় সংগঠনকে চাঙ্গা করতে এদিন নেত্রীর বার্তা ছিল চোখে পড়ার মতো৷ কোনওরকম ভয় দেখিয়ে বা কেবল টিভি বন্ধ করে যে তৃণমূলকে দমানো যাবে না, তা কর্মীদের কাছে স্পষ্ট করে দেন তিনি৷ ইতিমধ্যেই ত্রিপুরায় প্রধান বিরোধী দলের তকমা মিলেছে তৃণমূলের৷ এই জনসমর্থনকে ভিত্তি করে আগামী দিনে ত্রিপুরায় সরকার গঠনে মমতা যে কতটা মরিয়া এদিন তাঁর বক্তব্যেই তা স্পষ্ট৷

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement