১৭ শ্রাবণ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ৩ আগস্ট ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

পাক সেনার উপর হামলা তেহরিক-ই-তালিবানের, নিহত কমপক্ষে ১৫ জওয়ান

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: July 14, 2021 8:43 am|    Updated: July 14, 2021 8:43 am

15 Pakistani soldiers killed in Taliban attack, claims reports | Sangbad Pratidin

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সন্ত্রাসের দানব গিলে খাচ্ছে পাকিস্তানকে (Pakistan)। আইএসআই ও পাক সেনার মদতে তৈরি জেহাদিরাই এবার বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। মঙ্গলবার জঙ্গি সংগঠন তেহরিক-ই-তালিবানের (TTP) হামলার নিহত হয়েছে কমপক্ষে ১৫ জন পাক সৈনিক। নিখোঁজ বেশ কয়েকজন।

[আরও পড়ুন: ল্যাপটপের পাশে হিন্দু দেবদেবীর মূর্তি কেন? কটাক্ষের শিকার নাসার ভারতীয় বংশোদ্ভূত ইন্টার্ন]

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া অঞ্চলে পাক সৈন্যদলের উপর আচমকা হামলা চালায় পাক তালিবান। জঙ্গিদের গোলাবর্ষণে পাক সেনার ক্যাপ্টেন আবদুল বাসিত-সহ পনেরো জন সৈনিকের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। তবে এই সংবাদ নিয়ে কোনও মন্তব্য করেনি পাক সেনা ও সরকার। বলে রাখা ভাল, ২০০৭ সালে তেহরিক-ই-তালিবান জঙ্গি গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠা করেছিল বইতুল্লা মেহসুদ। তবে নিজেদের মধ্যে লড়াইয়ের জেরে বর্তমানে সংগঠনটি চারটি দলে ভাগ হয়ে গিয়েছে। এই চারটি গোষ্ঠী হল সোয়াট গোষ্ঠী, মেহসুদ গোষ্ঠী, বাজাউর এজেন্সি গোষ্ঠী আর দারা আদমখেল গোষ্ঠী। আফগান তালিবানের সঙ্গে সম্পর্ক থাকলেও অনেকটা স্বতন্ত্রভাবে কাজ করে এরা। ২০১৯ সালে তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তানের কমান্ডার কারি সইফুল্লা মেহসুদ নিহত হয়। তারপর কিছুদিন বেকায়দায় থাকলে ফের শক্তি সংগ্রহ করে ময়দানে নেমেছে জেহাদি গোষ্ঠীটি।

উল্লেখ্য, কয়েক বছর আগে খাইবার পাখতোনখোয়া প্রদেশের ওয়াজিরিস্তানের পাক সেনার হামলায় জমি হারাতে হয় টিটিপি-কে। যদিও বিশ্লেষকদের মতে, এই সংগঠনটিও আইএসআইয়ের হাত ধগড়েই তৈরি। ২০২০ সালে আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবাদ নিয়ে একটি রিপোর্ট পেশ করেছিল রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের (UNSC) ‘analytical support and sanctions monitoring team’। সেখানে সাফ বলা হয়, এই মুহূর্তে আফগানিস্তানে সক্রিয় ৬ হাজার ৫০০ পাক জঙ্গি। ওই দেশে থাকা বিদেশি সন্ত্রাসবাদীদের মধ্যে অধিকাংশই পাক নাগরিক। ভারতের অভিযোগে সিলমোহর দিয়ে ওই রিপোর্টে আর বলা হয়, আফগানিস্তানে বিদেশি জঙ্গিদের পাঠাচ্ছে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ ও লস্কর-ই-তইবা। কিন্তু পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে এখন জঙ্গি সংগঠনটি পাকিস্তানের মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

[আরও পড়ুন: পাকিস্তানে তৈরি হল মালালা বিরোধী তথ্যচিত্র, নোবেলজয়ী তরুণীকে ‘ইসলাম বিরোধী’ বলে তোপ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement