২২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ৯ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

মানবাধিকার কর্মীদের মুক্তি চাই, পাক প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে বালোচরা

Published by: Tanujit Das |    Posted: November 17, 2018 4:31 pm|    Updated: November 17, 2018 6:45 pm

Baloch protest in Pakistan

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বালোচিস্তানের মানবাধিকার কর্মীদের অপহরণ করে তাঁদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে পাক সরকার৷ আর পুরোটাই হচ্ছে পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর অঙ্গুলিহেলনে৷ এই অভিযোগে ইমরান খান সরকার ও পাক সেনার বিরুদ্ধে পথে নামলেন বালোচিস্তানের পড়ুয়ারা৷ পাশে দাঁড়ালেন অপহৃত ওই সমস্ত মানবাধিকার কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের৷

[আমেরিকাকে বুড়ো আঙুল, ফের গোপন অস্ত্রের পরীক্ষা কিমের]

শনিবার সকাল থেকে ইসলামাবাদ ও করাচির একাধিক স্থানে প্রথমে জমায়েত করেন পড়ুয়ারা৷ এরপর বিক্ষোভ মিছিলে তাঁরা হাজির হন কোয়েট্টা প্রেস ক্লাব ও করাচি প্রেস ক্লাবের সামনে৷ যেখানে প্রবল ঠাণ্ডার মধ্যে গত দু’সপ্তাহ ধরে অনশন পালন করছেন ওই অপহৃত মানবাধিকার কর্মীদের পরিবারের সদস্যরা৷ তাঁদের অভিযোগ, অপহরণ করা হয়েছে এক হাজারেরও বেশি মানবাধিকার কর্মীকে৷ যাঁরা পাক প্রশাসন ও সেনার বিরুদ্ধে মুখ খোলেন৷ বালোচিস্তানের মানুষদের উপর যে অত্যাচার চালাচ্ছে সেনা ও ইমরান খান প্রশাসন, সেই অত্যাচারের কাহিনী তাঁরা তুলে ধরেন বিশ্বের দরবারে৷ এই আক্রোশ থেকেই ওই ব্যক্তিদের অপহরণ করিয়েছে পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই৷ যদিও এই অভিযোগে কর্ণপাত করেনি না প্রশাসন৷ এই বিষয়ে কোনও বিবৃতিও জারি হয়নি প্রশাসনের তরফ থেকে৷

বালোচিস্তানের নাগরিকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন প্রবাসী বালোচ নাগরিকরাও৷ ইমরান প্রশাসনের বিরুদ্ধে নিন্দায় সরব হয়েছেন তাঁরাও৷ জার্মান নিবাসী বালোচ মানবাধিকার কর্মী আশরাফ শেরজান জানান, “নির্বাচনের আগে ইমরান খান প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ক্ষমতায় এলে অপহৃত বালোচ মানবাধিকার কর্মীদের খোঁজ করবে তাঁর সরকার৷ তাঁদের পরিবারের দাবি মেটানো হবে এবং বালোচ সমস্যার সমাধান করা হবে৷ কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর নিজের প্রতিশ্রুতি ভুলে গিয়েছেন তিনি৷ বালোচদের সমস্যা একইভাবে রয়ে গিয়েছে৷” অপহৃত মানবাধিকার কর্মীদের শীঘ্রই মুক্তির দাবি জানিয়েছেন বালোচ বংশোদ্ভূত জার্মান নাগরিক আট্টা বালোচ৷

[অ্যাপল ও ফেসবুক কর্তার টুইট-যুদ্ধে তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া]

উল্লেখ্য, ২০১৫-তে স্বাক্ষর হওয়া মউয়ের ভিত্তিতে চিন-পাকিস্তানের মধ্যে অর্থনৈতিক করিডর বা সিপিইসি নির্মাণকার্য শুরু হয়েছে৷ চিনের প্রস্তাবিত ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ নীতির উপর ভিত্তি করে, তাদের অর্থ সাহায্যেই এই করিডর তৈরি হচ্ছে৷ পাকিস্তানের গদর পোর্ট থেকে চিনের শিনজিং প্রদেশ পর্যন্ত মোট ২,০০০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পথটি তৈরি করা হচ্ছে৷ এই করিডর নিয়ে প্রথম থেকেই বিক্ষোভ প্রদর্শন করে আসছেন বালোচিস্তান-সহ গিলগিট-বালতিস্তান ও পিওকে-র নাগরিকরা৷ অভিযোগ, পেশিশক্তির জোরে তাঁদের বাসভূমি কেড়ে নিয়ে এই করিডর তৈরি করছে পাকিস্তান৷ যাতে পূর্ণ মদত দিচ্ছে চিন৷ এই অভিযোগে দীর্ঘদিন ধরেই পাক প্রশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চালাচ্ছেন বালোচ নাগরিকরা এবং তাঁদের উপর অকথ্য অত্যাচার চালাচ্ছে পাক সেনা৷  

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে