৭ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৪ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মুসলিমদের ধর্মগ্রন্থ পোড়ানোর ছক, ডেনমার্কের ৫ নাগরিককে বহিষ্কার করল বেলজিয়াম

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 13, 2020 6:18 pm|    Updated: November 13, 2020 6:20 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কিছুদিন আগেই ফ্রান্সের একটি স্কুলের পড়ুয়াদের হজরত মহম্মদের বিতর্কিত কার্টুন দেখানোর জেরে এক শিক্ষককে নৃংশসভাবে হত্যা করা হয়। এর তীব্র প্রতিবাদ করে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এর জেরে এখনও বিশ্বজুড়ে বিতর্ক চলছে। এর মাঝেই বেলজিয়ামে মুসলিমদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরান (Quran) পোড়ানোর পরিকল্পনা করে গ্রেপ্তার হল ডেনমার্কের পাঁচ নাগরিক। পরে তাদের দেশ থেকে বহিষ্কারও করে বেলজিয়ামের সরকার। বিষয়টি নিয়ে প্রবল উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর পাওয়া গিয়েছে, সম্প্রতি ডেনমার্কের উগ্র ডানপন্থী নেতা রাসমুস পালুদান (Rasmus Paludan) -এর দল স্ট্রাম কুর্সের ফেসবুক পেজ থেকে একটি পোস্ট করেছিল বেলজিয়ামে (Belgium) বসবাসকারী ডেনমার্কের পাঁচ ব্যক্তি। বিষয়টি নিয়ে শোরগোল হওয়ার পরেই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে বেলজিয়ামের প্রশাসন। অভিযুক্তরা বেলজিয়ামের ব্রাসেলস জেলার মোলেনবিক এলাকায় কোরান পোড়ানোর ষড়যন্ত্র করছে বলে জানা যায়। সেখান বসবাসকারী মরক্কোর মুসলিম সম্প্রদায়কে উত্তেজিত করে বেলজিয়ামে অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ ওঠে।

[আরও পড়ুন: সরকারি নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে বিদ্রোহীদের লড়াইয়ে বিপর্যস্ত ইথিওপিয়া, মৃত অসংখ্য নাগরিক]

এরপরই ওই পাঁচ জন ডেনমার্কের নাগরিককে গ্রেপ্তার করে জেরা করা শুরু হয়। পরে তারা নিজেদের পরিকল্পনার কথা স্বীকার করলে অভিযুক্তদের অবিলম্বে দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয় প্রশাসন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর উত্তেজনা তৈরি হয়েছে।

এপ্রসঙ্গে বেলজিয়ামের এক মন্ত্রী জানান, ডেনমার্কের ওই নাগরিকরা সাম্প্রদায়িক অশান্তি বাধানোর জন্য কোরান পোড়ানোর পরিকল্পনা নিয়ে ছিল। এর ফলে সম্প্রীতির পরিবেশ নষ্ট হত। অভিযোগ পাওয়ার পরেই তাদের গ্রেপ্তার করে দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে ফ্রান্সে কোরান পোড়ানোর হুমকি দিয়ে গ্রেপ্তার হয়েছিল রাসমুস পালুদান। এর জেরে বুধবার তাঁকে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: লিবিয়ার খোমস উপকূলে ভয়াবহ নৌকাডুবি, মৃত কমপক্ষে ৭৪ জন শরণার্থী]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement