৪ মাঘ  ১৪২৫  শনিবার ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সব ঋতুর বন্ধু পাকিস্তানকে সামরিক সাহায্য করতে উঠেপড়ে লেগেছে চিন। এবার তারা পাকিস্তানের জন্য অত্যাধুনিক চারটি যুদ্ধজাহাজ তৈরি করে দিচ্ছে। এর মধ্যে প্রথমটি তৈরির কাজ চলছে পুরোদমে। চলতি বছরের শেষ দিকে তা তুলে দেওয়া হবে পাকিস্তানের হাতে।

ভারত মহাসাগরে দিল্লির প্রাধান্য এবং ভারতীয় যুদ্ধজাহাজগুলির দাপট খর্ব করতেই পাকিস্তানের হাতে উন্নততর আধুনিক যুদ্ধজাহাজ তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বেজিং। এমনটাই মনে করছেন কৌশলগত বিশেষজ্ঞরা। এগুলি মূলত আরব সাগর ও ভারত মহাসাগরে আন্তর্জাতিক জলসীমায় ঘোরাফেরা ও নজরদারির কাজ করবে। চিনের সরকার পরিচালিত সংবাদপত্র চায়না ডেইলিতে বুধবার এই সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাংহাইয়ের কাছে হুদোং ঝোংগুয়া শিপইয়ার্ডে সরকারি পরিকাঠামোয় চিনা নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে এই চারটি যুদ্ধজাহাজ তৈরি হচ্ছে। অ্যাটাক হেলিকপ্টার, সাবমেরিন, স্বল্প পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ও যুদ্ধজাহাজ ধ্বংস করার ক্ষমতা রয়েছে। এগুলি সবই হল ০৫৪ এপি ও ০৫৪এ মডেলের চিনা যুদ্ধজাহাজ। এছাড়াও দুই দেশ যৌথভাবে জেএফ থান্ডার সিরিজের যুদ্ধবিমান তৈরির কাজে হাত লাগিয়েছে।

প্রতিবেদনে ব্যাখ্যা করা হয়েছে, পাক-চিন অর্থনৈতিক করিডরের নিরাপত্তা বাড়াতে এবং ভারত মহাসাগরীয় এলাকায় শক্তির ভারসাম্য তৈরি করতেই পাকিস্তানের ক্ষমতা বৃদ্ধি করছে চিন। নবনির্মিত যুদ্ধজাহাজগুলি পাকিস্তানের গদর বন্দরে মোতায়েন রাখা হতে পারে। কারণ গদর থেকেই পাক-চিন অর্থনৈতিক করিডর বা হাইওয়ে চিনের জিনজিয়াং প্রদেশের কাশগড় পর্যন্ত গিয়েছে। অন্যদিকে, নিউ ইয়র্ক টাইমসে সদ্য প্রকাশিত খবরকে নস্যাৎ করল চিনা দৈনিক চায়না ডেইলি ও গ্লোবাল টাইমস। চিনা খবরের কাগজ দুটি জানিয়েছে, পাকিস্তানে চিনা সেনা কোনও যুদ্ধবিমান তৈরি করছে না। উল্লেখ্য, ইসলামাবাদের সঙ্গে ওয়াশিংটনের টানাপোড়েনে মওকা খুঁজে পেয়েছে বেজিং। তাই ভারতকে চাপে রাখতে পাকিস্তানকে আরও বলীয়ান করে তুলতে চাইছে কমিউনিস্ট দেশটি বলেই মনে করছেন প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা।

[‘কে ব্যবহার করছে জানি না’, মোদির আফগান লাইব্রেরি নিয়ে কটাক্ষ ট্রাম্পের]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং