Advertisement
Advertisement

ঘূর্ণিঝড় ‘ম্যাথু’র দাপটে মৃত ৮৪২

বিপর্যস্ত মার্কিন পূর্ব উপকূল...

deaths reported by civil protection officials at a local level on Friday showed the storm killed at least 842
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:October 8, 2016 11:14 am
  • Updated:October 8, 2016 11:14 am

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ইতিমধ্যেই হাইতিকে লন্ডভন্ড করে দিয়েছে সে৷ এবার ফ্লোরিডায় আছড়ে পড়ল বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় ‘ম্যাথু’৷ ঝড়ে সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত প্রাণ গিয়েছে ৮৪২ জনের৷ স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, শুক্রবার সকাল ৯টা নাগাদ উত্তর-মধ্য ফ্লোরিডার ডেটোনা, সেন্ট অগাস্টিন, পাম উপকূলের কাছে আছড়ে পড়ে ম্যাথু৷ তবে ম্যাথুর প্রলয় রূপ আরও বিধ্বংসী হতে পারে বলে দাবি অসমর্থিত সূত্রের৷ জর্জিয়া, ক্যারোলিনা, সাভানা, চার্লস্টন, উইলমিংটনে ম্যাথু আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা প্রবল৷ ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়টির জন্য মায়ামির বিস্তীর্ণ অঞ্চল বসবাসের অযোগ্য হয়ে যেতে পারে বলেও জানানো হয়েছে৷ জারি রয়েছে সতর্কতা৷ যদিও আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ম্যাথুর আশঙ্কায় আপৎকালীন সতর্কতা জারি করেছিলেন৷

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, ম্যাথুর গতিবেগ উপকূল বরাবর ঘণ্টায় ৫০০ মাইল৷ একনাগাড়ে তুমুল বৃষ্টি আর ঘণ্টায় প্রায় ১৫৫ মাইল গতিবেগের ঝড়ের দাপটে এরই মধ্যে ১৫ লক্ষ মানুষ ঘরছাড়া হয়েছেন ফ্লোরিডায়৷ ফ্লোরিডা-সহ জর্জিয়া, দক্ষিণ ক্যারোলিনা থেকে নিরাপদ অঞ্চলে সরানো হয়েছে কমপক্ষে ২৫ লক্ষ মানুষকে৷ বিদ্যুত্‍ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে প্রায় নয় লক্ষ বাড়ির৷ ব্রেভার্ড, ফ্ল্যাগলার, ইন্ডিয়ান রিভার, ভলুসিয়ার অনেক বাড়িতেই বিদ্যুত্‍ সংযোগ কমে আসে৷ আসন্ন বিপদের কথা মাথায় রেখেই সেখানকার গভর্নর রিক স্কট বাসিন্দাদের নিরাপদ দূরত্বে সরে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷ ঝড়ের আশঙ্কায় জ্যাকসনভিলের উপর নজর রাখা হচ্ছে বলে জানান তিনি৷ হোয়াইট হাউসের সতর্কবার্তায় জানানো হয়েছে, এলাকা খালি করার নির্দেশ এলে সকলে যেন তা মেনে চলেন৷

Advertisement

ম্যাথুর প্রভাব ভয়ানক হতে পারে বলে দাবি আবহাওয়াবিদদের৷ কারণ ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জ কার্যত তছনছ হয়ে গিয়েছে এর প্রভাবে৷ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হাইতি৷ হাইতি ও ফ্লোরিডা মিলিয়ে প্রাণ হারান অন্তত ৮৪২ জন৷ উত্তর-পশ্চিম বাহামাসের দিকে যত এগোচ্ছে, ততই শক্তি বাড়াচ্ছে এই ঘূর্ণিঝড়৷ বিমান ও নৌ পরিষেবা বন্ধ রয়েছে৷ প্রশাসনিকভাবে জরুরি অবস্থা জারি হওয়ার পর স্কুল, কলেজ, অফিস, আদালতে ছুটি ঘোষিত হয়েছে৷ সব বিমান বাতিল করা তো হয়েছে৷ যে বিমানগুলি উড়ানের মাঝপথে ছিল, সেগুলিরও জরুরি অবতরণ করানো হয়৷ হাইতির গ্র্যান্ড অ্যানসে এলাকায় একটি প্রধান সেতু ভেঙে পড়ায় ত্রাণ নিয়ে যেতে পারছেন না উারকারীরা৷ রাষ্ট্রসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি মৌরাদ ওয়াহাব বলেছেন, ত্রাণশিবিরে রয়েছেন হাজার দশেকের বেশি মানুষ৷ হাসপাতালেও তিলধারণের জায়গা নেই৷

Advertisement

২০১২ সালে ঘূর্ণিঝড় ‘স্যান্ডি’ আছড়ে পড়েছিল পূর্ব উপকূলে৷ মৃত্যু হয়েছিল ১৪৭ জনের৷ ১৯৯২ সালে মায়ামিতে আছড়ে পড়েছিল ‘অ্যান্ড্রু’৷ সেই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কথা মনে রেখেই ফ্লোরিডা-জর্জিয়া সীমান্তজুড়ে মায়ামির বিস্তীর্ণ এলাকা ফাঁকা করে দেওয়া হয়েছে৷

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ