১৮ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

ফ্রান্সের নয়া প্রেসিডেন্ট মাকরোঁকে অভিনন্দন ট্রাম্পের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 8, 2017 5:59 am|    Updated: May 8, 2017 5:59 am

Donald Trump congratulates Emmanuel Macron on his big win next President of France

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নিকোলাস সারকোজি, জাক শিরাক এবং ফ্রাঁসোয়া অলাদেঁর উত্তরসূরি পেয়ে গেল ফ্রান্স৷ রবিবার নতুন ফরাসি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন তুলনামূলক উদারপন্থী এবং নির্দল প্রার্থী ইমানুয়েল মাকরোঁ৷ তিনি হারালেন নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ও কট্টর দক্ষিণপন্থী প্রার্থী মেরিন ল্য পেনকে৷ জয়ের পর এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেছেন, “ফ্রান্সের মানুষকে আমি বলছি, আর ভয় পাওয়ার কিছু নেই। প্রত্যেক দেশবাসীর সমান অধিকার, স্বাধীনতা ও উন্নয়নের স্বার্থে আমি লড়াই চালিয়ে যাব। আমার পাশে দরকার আপনাদেরও।”

জনমত সমীক্ষায় প্রথম থেকেই এগিয়ে ছিলেন মাকরোঁ৷ সমীক্ষার ফল সত্যি প্রমাণ করে শেষ হাসি হাসলেন তিনি৷ মাকরোঁর উপরই আস্থা রাখলেন ফরাসিরা৷ প্রায় সাড়ে চার কোটি ভোটার এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দেন৷ ভোটপ্রক্রিয়া নির্বিঘ্নে শেষ করতে ৫০ হাজার অতিরিক্ত সেনা ও পুলিশ মোতায়েন করা হয় দেশের বিভিন্ন শহরে৷ ইমানুয়েল মাকরোঁকে এদিন শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

বিশেষজ্ঞদের মতে, উদারপন্থী মাকরোঁর জয় আগামিদিনে ফ্রান্সের বিদেশনীতিতে এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থনীতিতে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলতে চলেছে৷ মাকরোঁ ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে থেকেই এই সংগঠনের আমূল সংস্কার করার ব্যাপারে প্রথম থেকেই সওয়াল করছিলেন৷ অন্যদিকে, দক্ষিণপন্থী ল্য পেন ফ্রান্সের জাতীয় স্বার্থে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে পাকাপাকিভাবে সম্পর্ক ছিন্ন করে বেরিয়ে আসতে চেয়েছিলেন৷ মাকরোঁ জেতায় ‘ব্রেক্সিট’-এর মতো ‘ফ্রেক্সিট’ ঘটার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে গেল বলে মনে করা হচ্ছে৷ ফলে, আপাতত নিশ্চিন্ত হতে পারে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি সদস্য দেশগুলি৷ ফরাসি বণিক সংগঠনগুলির সমর্থনপুষ্ট মাকরোঁ নিজে একজন জাত ব্যবসায়ী৷ ফ্রান্সের অর্থনীতির ভিত মজবুত করা এবং বহুত্ববাদী ফ্রান্সে চাকরি ও ব্যবসার সুযোগ বাড়ানোই তাঁর প্রধান লক্ষ্য বলে আগেই জানিয়েছিলেন মাকরোঁ৷

ফলে ফ্রান্স এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন আগামী দিনে অনেক আশা নিয়ে মাকরোঁর প্রশাসনিক সংস্কারের দিকে তাকিয়ে থাকবে বলে আর্থিক বিশেষজ্ঞরা দাবি করেছেন৷ ভোটের ফল ঘোষণা হতেই রবিবার প্যারিস-সহ ফ্রান্সের বিভিন্ন শহরে বিজয়োৎসবে মেতে ওঠেন মাকরোঁর সমর্থকরা৷ রবিবার ভোট দিয়েছেন মধ্যপন্থী রক্ষণশীল তথা এই ভোটে ফেভারিট প্রার্থী ইমানুয়েল মাকরোঁ এবং তাঁর প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী কট্টর দক্ষিণপন্থী মারিন ল্য পেনও৷ একই সঙ্গে ভোট দিয়েছেন ফ্রান্সের পুরনো উপনিবেশ পুদুচেরিতে (পণ্ডিচেরি) থাকা ফরাসি নাগরিকরা৷ এখানে প্রায় ৪,৬০০ ভোটার রয়েছেন৷

নির্বাচন প্রক্রিয়ার চূড়ান্ত পর্ব শুরুর আগেই চরম নাটকীয়তা তৈরি হয়েছিল৷ মাকরোঁর প্রচারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হ্যাক করার চেষ্টা হয়৷ হ্যাক করা তথ্য, ই-মেল বা অন্য বিষয় ফাঁস করা হলে ফৌজদারি বিধিভঙ্গের দায়ে শাস্তি হতে পারে৷ নির্বাচনী বিধিতে শুক্রবার মধ্যরাত থেকে রবিবার রাত আটটা পর্যন্ত ‘ব্ল্যাক আউট’ ঘোষণা করা হয়েছে৷ প্রকাশ্যে তাই কোনও মন্তব্য করতে পারেননি মাকরোঁ বা ল্য পেন৷ তবে মাকরোঁর প্রচার অভিযানের এক সদস্য বলেছেন, “এই হ্যাকিং দেশের গণতান্ত্রিক স্থিতাবস্হাকে অস্থির করার চক্রান্ত৷ গত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও আমরা একই ধরনের ঘটনা দেখেছি৷” দ্বিতীয় বিশ্বযুরে পর থেকে এতদিন ধরে দেশ শাসন করা দুই প্রধান রাজনৈতিক দল বামপন্থী, মধ্য দক্ষিণপন্থীদের প্রার্থীরা প্রথম রাউন্ডের ভোটেই ছিটকে গিয়েছেন৷ লড়াইয়ে টিকে ছিলেন মাকরোঁ ও ল্য পেন৷

দেখুন ভিডিও:

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে