২৪  মাঘ  ১৪২৯  বুধবার ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক ভরাডুবি হয়েছে তাঁর ভুলেই, প্রথমবার ‘দোষ’ স্বীকার গোতাবায়া রাজাপক্ষের

Published by: Biswadip Dey |    Posted: April 19, 2022 3:13 pm|    Updated: April 19, 2022 3:13 pm

First time President Gotabaya Rajapaksha admitted his mistakes led to economic crisis of Sri Lanka। Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের (Sri Lanka Crisis) জেরে ভেঙে পড়েছে শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি। এই পরিস্থিতিতে বরাবরই আঙুল উঠেছে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষের (Gotabaya Rajapaksha) দিকে। তাঁর পদত্যাগের দাবিতে রাজপথে নামতে দেখা গিয়েছে হাজার হাজার মানুষকে। কিন্তু এতদিন এপ্রসঙ্গে কিছু বলেননি তিনি। কিন্তু অবশেষে এই বিপর্যয়ের পিছনে নিজের দায় স্বীকার করলেন রাজাপক্ষে। জানিয়ে দিলেন, তাঁর জন্যই তাঁর দেশকে এই পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয়েছে। সেই সঙ্গে কী করে এই ভুল শোধরানো যায় তা নিয়েও কথা বলেছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট।

ঠিক কী বলেছেন রাজাপক্ষে? তিনি জানিয়েছেন, ”গত আড়াই বছরে আমাদের বহু চ্যালেঞ্জের মুখেই পড়তে হয়েছে। কোভিড-১৯, ঋণের বোঝা এবং আমাদের কিছু ভুলের কারণে এই পরিস্থিতি।”

[আরও পড়ুন: ফের দলিত নির্যাতন উত্তরপ্রদেশে, মারধরের পর পা চাটতে বাধ্য করা হল নাবালককে]

ঠিক কী কী ভুলের কথা জানাচ্ছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট? তাঁর মতে, ২০২০ সালের মাঝামাঝি সময়ে সবুজ কৃষি নীতি আনতে তিনি শ্রীলঙ্কায় রাসায়নিক সার নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। এই সিদ্ধান্তকে ভুল বলেই মনে করছেন রাজাপক্ষে। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, আইএমএফের কাছে দেরিতে যাওয়াটাও তাঁদের বড় ভুল ছিল। তবে সব ভুল শুধরে নিয়ে নতুন পথে এগতে হবে বলেও বার্তা দেন তিনি।

সোমবারই নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন শ্রীলঙ্কা প্রেসিডেন্ট। উল্লেখযোগ্য ভাবে নতুন ক্যাবিনেটে রাজাপক্ষে পরিবার থেকে প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আর কোনও সদস্য নেই। সতেরো জন মন্ত্রীকে নিয়ে নতুন ক্যাবিনেট গঠন করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

ক্যাবিনেট গঠনের পরে প্রেসিডেন্ট বিশেষ বার্তা দেন নতুন মন্ত্রীদের। তিনি বলেন, “মন্ত্রিত্ব মানেই সুযোগ সুবিধা নেওয়া নয়। মন্ত্রীদের উপরে অনেক দায়িত্ব থাকে।” নতুন মন্ত্রীরা নিজেদের ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না, এমনটাই আশাই প্রকাশ করেন তিনি।

[আরও পড়ুন:  লোডশেডিংয়ের অন্ধকারে ডুবে পাকিস্তান, জ্বালানির অভাবে থমকে বিদ্যুৎ উৎপাদন]

শ্রীলঙ্কা প্রশাসন পরিষ্কার করে দিয়েছে, ঋণদাতাদের অর্থ ফেরত দেওয়া সম্ভব নয় তাদের পক্ষে। নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করেছে তারা। এই পরিস্থিতিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম আকাশছোঁয়া। কার্যত অন্ধকারে ডুবে রয়েছে শ্রীলঙ্কা। প্রতিবেশী দেশের এহেন দুর্দিনে পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত। ইতিমধ্যেই শ্রীলঙ্কাকে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে ভারত। এই পরিস্থিতির মোকাবিলা করে নতুন মন্ত্রিসভা ঘুরে দাঁড়াবে, আশাবাদী শ্রীলঙ্কাবাসী।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে