BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মৃত্যু জল্পনার অবসান, বহাল তবিয়তে জনসমক্ষে এলেন কিম!

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 2, 2020 8:32 am|    Updated: May 2, 2020 11:32 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিনি বেঁচে আছে, নাকি প্রয়াত হয়েছেন? গত প্রায় ৩ সপ্তাহ ধরে বিশ্বজুড়ে এই প্রশ্ন ঘোরাফেরা করছিল। তাঁর স্বাস্থ্য নিয়ে নানারকম গুজব-জল্পনাও ছড়িয়েছে। এবার সেই সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে জনসমক্ষে এলেন উত্তর কোরিয়ার (North Korea) কমিউনিস্ট শাসক তথা বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ স্বৈরাচারী রাষ্ট্রপ্রধান কিম জং উন (Kim Jong Un)। কোরিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যমের দাবি, বহাল তবিয়তেই আছেন কিম। শুক্রবার সুনচনে একটি সার তৈরির কারখানার উদ্বোধন করেন তিনি।

উত্তর কোরিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যম  KCNA জানিয়েছে, শুক্রবার রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ের কাছে সুনচন এলাকার একটি সারের কারখানা উদ্বোধন করতে যান কিম জং উন। ফিতে কেটে কারখানার উদ্বোধনের পাশাপাশি যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে খোঁজখবরও নেন কিম। সেসময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন প্রশাসনের কিছু শীর্ষস্থানীয় কর্তা এবং বোন কিম ইয় জং। ওই কারখানা উদ্বোধনের সমাবেশে নাকি বহু সাধারণ মানুষ কিমকে করতালি দিয়ে অভ্যর্থনাও জানায়। অনুষ্ঠানে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান আবেগপ্রবণ হয়ে বলেন, “আজ আমার ঠাকুরদা এবং বাবা বেঁচে থাকলে আধুনিক সারের কারখানা দেখে অত্যন্ত খুশি হতেন।” তবে এই সবটাই উত্তর কোরিয়ার সরকারি সংবাদ মাধ্যম KCNA-র দাবি। 

[আরও পড়ুন: ‘চিনের জনসংযোগ সংস্থা WHO’, বেনজির তোপ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের]

উল্লেখ্য, গত ১১ এপ্রিল থেকে থেকে প্রকাশ্য আর দেখা যায়নি উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনকে। তারপর শোনা যায়, তিনি অসুস্থ। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। অস্ত্রোপচারের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ার খবরও জানতে পারে গোটা বিশ্ব। আর তারপরই গুজব ছড়িয়ে পড়ে, কিম প্রয়াত। আমেরিকাও কিমের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিতে শুরু করে। উত্তর কোরিয়ার তরফে অবশ্য কিমের মৃত্যু সংবাদ অস্বীকার করে জানানো হয়, প্রেসিডেন্ট ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। পরে দক্ষিণ কোরিয়াও নিশ্চিত করে কিম সুস্থ আছেন। কোনও এক অজ্ঞাত কারণে গোপনে দিন কাটাচ্ছেন। দেহরক্ষীদের করোনা সংক্রমণের খবর তাঁর শারীরিক অবস্থা নিয়ে জল্পনা আরও বাড়িয়ে দেয়। অবশেষে কিম নিয়েই প্রকাশ্যে এসে সব জল্পনার অবসান ঘটিয়েছেন বলে দাবি উত্তর কোরিয়ার সংবাদমাধ্যমের।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement