৭ ভাদ্র  ১৪২৬  রবিবার ২৫ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অন্ধকার! এই শব্দটাই এতকাল অজানা ছিল যে শহরবাসীর, শনিবার তাঁরাই দেখলেন অন্ধকারের এক ভয়াল রূপ৷ গাঢ় কালো অন্ধকারে ডুবে গেল নিউইয়র্কের ঐতিহ্যবাহী টাইমস স্কোয়্যার৷ কালো হয়ে গেল শহরের সমস্ত ইলেকট্রিক জায়েন্ট স্ক্রিন৷ বন্ধ করে দেওয়া হল ব্রডওয়ে শো৷ ফলে হৃদয় চূর্ণ হয়ে ফিরলেন কয়েকশো দর্শক৷ নিউইয়র্ক শহরের বিদ্যুৎ দপ্তর সূত্রে খবর, ওয়েস্ট ৬৪ স্ট্রিট এবং ওয়েস্ট এন্ড অ্যাভিনিউয়ের ট্রান্সফর্মারে আগুন লাগায়, সম্পূর্ণরূপে বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে শহরের এক বৃহদাংশ৷ যার ফলে অন্ধকারের করাল গ্রাসে ডুবে যায় সর্বক্ষণের আলো ঝলমলে টাইমস স্কোয়্যার৷

[ আরও পড়ুন: নগদে নয়, প্রযুক্তির আশীর্বাদে অ্যাপেই ভিক্ষা নিচ্ছেন চিনারা]

জানা গিয়েছে, শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটা নাগাদ ওয়েস্ট ৬৪ স্ট্রিট এবং ওয়েস্ট এন্ড এভিনিউয়ের ট্রান্সফর্মারে আগুন লাগে৷ সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকলের ইঞ্জিন৷ আগুন নেভান তাঁরা৷ প্রশাসনের তরফে অ্যান্ড্রু কিউমা বলেন, ‘‘আগুনের ফলে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি৷ তবে টাইমস স্কোয়্যারের মতো ঐতিহ্যবাহী স্থান বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হওয়ার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক৷’’ এখানেই শেষ নয়, সমগ্র ঘটনাটি শহরের পাবলিক সার্ভিস দপ্তর তদন্ত করে দেখবে বলেও জানিয়েছেন তিনি৷ ওইদিনের ঘটনায় সবচেয়ে বেশি হতাশ হয়েছেন এদিন টাইমস স্কোয়্যারে হাজির হওয়া হাজার হাজার পর্যটক এবং ব্রডওয়ে শো দেখতে আসা শয়ে শয়ে দর্শক৷

এমিলি টোটেরো নামের এক পর্যটক জানান, ‘‘হঠাৎই আমার চোখের সামনে অন্ধকার হয়ে যায় টাইমস স্কোয়্যার৷ পুরো রাস্তা, শপিং মল, টিভি স্ক্রিন অন্ধকার হয়ে যায়৷ অবশেষে হতাশ হয়ে ফিরতে হয় আমাকে৷’’ জানা গিয়েছে, কেবল টাইমস স্কোয়্যার নয়, বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে ম্যাডিসন গার্ডেনও৷ শনিবার রাতে অনুষ্ঠান করতে যেখানে হাজির ছিলেন জেনিফার লোপেজ৷ অনুষ্ঠানের আয়োজকরা জানান, স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ন’টা নাগাদ জেনিফার লোপেজের চতুর্থ গানের সময় হঠাৎই অন্ধকার হয়ে যায় অডিটোরিয়াম৷ পরে জেনারেটরের মাধ্যমে আলোর ব্যবস্থা করা হয়৷

[ আরও পড়ুন: কয়লা খনির গ্রাসে জঙ্গল! আগ্রাসনের বিরুদ্ধে অসম যুদ্ধে জার্মানির ত্রিমূর্তি ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং