×

৪ ফাল্গুন  ১৪২৫  রবিবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নেপাল ও ভুটানকে ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে মন্তব্য করে হাসির খোরাক হলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্পের এই বেফাঁস মন্তব্য টাইম ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হয়েছে। মার্কিন গোয়েন্দা সূত্রে ওই পত্রিকা জেনেছে, সম্প্রতি হোয়াইট হাউসে বিশেষ বৈঠক চলছিল। আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল দক্ষিণ এশিয়া। কথাবার্তা চলাকালীন হঠাৎই মানচিত্রে আঙুল রেখে ভুটান এবং নেপালকে ভারতের অংশ বলে দাবি করেন ট্রাম্প।

[দেউলিয়া পাকিস্তানকে বড় ঋণ দিচ্ছে ‘বন্ধু’ চিন]

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মুখে এমন কথা শুনে অস্বস্তিতে পড়েন গোয়েন্দারা। তবে সাহস করে একজন তাঁকে বোঝান, নেপাল আসলে একটি স্বাধীন দেশ। পর মুহূর্তেই ভূটান ভারতের অংশ বলে ওই গোয়েন্দা আধিকারিকের সঙ্গে তর্ক জুড়ে দেন তিনি। তখন তাঁকে বোঝানো হয় ভুটানও একটি স্বাধীন দেশ। সার্ক গোষ্ঠী কাকে বলে তাও বলা হয় ট্রাম্পকে। ভারত, ভুটান, নেপাল-সহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলি যে সার্কের সদস্য তা ব্যাখ্যা করা হয় ট্রাম্পকে। তবুও নিজের ভুল ধারণা ভাঙতে রাজি হচ্ছিলেন না ট্রাম্প। দৃশ্যত বিরক্তি প্রকাশ করে ট্রাম্প বলেন, প্রেসিডেন্টের ভুল শুধরে দেওয়া যে ওই অফিসারের কাজ নয়, তাও মনে করিয়ে দেন তিনি। ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে গোয়েন্দাদের মতবিরোধের খবর আগেও সামনে এসেছে। দিন কয়েক আগেই দেশের গুপ্তচর ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানদের বিরুদ্ধে টুইটারে তোপ দেগেছিলেন তিনি। বলেছিলেন, গোয়েন্দা প্রধানরা সরল, শুধরে দেওয়া এবং কেউ কিচ্ছু বোঝেন না। নতুন করে তঁাদের স্কুলে ভর্তি হওয়া উচিত বলে কটাক্ষ করেছিলেন।

টাইম ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এক গোয়েন্দা আধিকারিক জানান, তাঁর সঙ্গে একমত না হলেই প্রচণ্ড রেগে যান ট্রাম্প। যে কারণে প্রেসিডেন্টকে শলা-পরামর্শ দেওয়া থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে গোয়েন্দাদের। তবে ভূগোলে যে ডোনাল্ড ট্রাম্পের তেমন দখল নেই, দক্ষিণ এশিয়ার রাজনীতি সম্পর্কে তিনি তেমন ওয়াকিবহাল নন, তার প্রমাণ আগেও মিলেছে। ২০১৭ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাতের আগে এক বৈঠকে নেপালকে ‘নিপ্‌ল’ এবং ভুটানকে ‘বাটন ’ বলেও সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন তিনি। সে বার বিষয়টি সামনে আনে মার্কিন সংবাদমাধ্যম পলিটিকো। রাজনৈতিক মহলের মতে, বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়া সম্পর্কে তাঁর জ্ঞান যে একেবারেই সীমাবদ্ধ তাও বিভিন্ন সময় প্রকট হয়ে উঠেছে।

অন্যদিকে, রাশিয়ার সঙ্গে ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি ভেঙে বেরিয়ে আসার পর ট্রাম্প দক্ষিণ এশিয়া ও আন্তর্জাতিক রাজনীতি নিয়ে নতুন করে ঘুঁটি সাজাচ্ছেন বলে খবর মিলেছে। সেজন্যই তিনি ওই দিন হোয়াইট হাউসে পেন্টাগন কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন পরবর্তী রণকৌশল ঠিক করতে। সেখানেই আফগানিস্তান প্রসঙ্গ আলোচনা করতে গিয়ে নেপাল ও ভুটান প্রসঙ্গও চলে আসে। তখনই বেফাঁস মন্তব্য করে বসেন তিনি।

[আমেরিকায় গ্রেপ্তার পড়ুয়াদের জন্য হটলাইন পরিষেবা শুরু ভারতীয় দূতাবাসে]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং