BREAKING NEWS

১৪ মাঘ  ১৪২৯  রবিবার ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

সমুদ্রের নোনা জলকে পানযোগ্য করে নজির ভারতীয় কিশোরের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: February 6, 2017 8:04 am|    Updated: February 6, 2017 8:39 am

Now drinking water from ocean, teen develops amazing tech

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘আমার শহরে শুকিয়ে যাচ্ছে জল’- উষ্ণায়ন আর পরিবেশ বদলের জেরে বিজ্ঞানীদের ভাবনা এখন এটাই৷ ধীরে ধীরে পৃথিবী থেকে কমছে পানীয় জলের পরিমাণ৷পৃথিবীর তিনভাগ জুড়ে সমুদ্র হলেও নোনা জল তো আর পান করা যায় না৷ অতএব, একমাত্র উপায় ওই নোনা জলকেই শুদ্ধ পানীয় জলে রপান্তরিত করা। আর এই পদ্ধতিতেই আশার আলো দেখাচ্ছে চৈতন্য করমচেদু নামে ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক মার্কিন কিশোর৷ সমুদ্রের জল থেকে বিশুদ্ধ পানীয় জল নিষ্কাশনের সহজ উপায় আবিষ্কার করে ফেলেছে এই খুদে গবেষক৷ আর তার এই পদ্ধতিতে খরচও অনেকটা কমেছে৷ উচ্চমাত্রার শোষণক্ষমতা সম্পন্ন পলিমার ব্যবহার করে সমুদ্রের জলকে বিশুদ্ধ পানীয় জলে পরিণত করার উপায় বাতলেছে সে৷

লালকেল্লার অন্দরে বাক্সভর্তি গ্রেনেড, চাঞ্চল্য রাজধানীতে

দ্য জেস্যুইট হাই স্কুলের ছাত্র চৈতন্য জানায়, সারা বিশ্বে আবহাওয়ার নানা পরিবর্তন নিয়ে সে চিন্তিত৷ স্কুলের গবেষণাগারেই কাজ শুরু করেছিল৷ এরপরেই বিভিন্ন প্রযুক্তিবিদ্যার সংস্থা ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলি সে কাজ দেখে নড়েচড়ে বসে৷ চৈতন্য সহ আরও আটজন মিলে এই কাজটি করেছে৷ উষ্ণায়ন পরবর্তী সময়ে পানীয় জল নিয়ে ভাবনাটাই এই মুহূর্তের সবচেয়ে জরুরি বিষয় বলেও মনে করে সে৷

করমচেদু সাংবাদিকদের আরও বলে, পৃথিবীর ৭০ ভাগই জল আর সেই জলের বেশিরভাগটাই সামুদ্রিক জল৷ কিন্তু নোনা জলকে পানীয় জলে পরিণত করা অত্যন্ত কঠিন৷ বিজ্ঞানীরাও বহু বছর ধরে এই নিয়ে কাজ করছেন৷ জল থেকে নুনের পরিমাণ কমানো কিংবা সম্পূর্ণ দূর করা, এই নিয়ে চলছে গবেষণা৷ তবে সামুদ্রিক জল কিন্তু লবণের দ্রবণে সম্পূর্ণ সম্পৃক্ত কোনও দ্রবণ নয়৷ তাই একটি উচ্চমাত্রার শোষণক্ষমতা সম্পন্ন্ পলিমারের ব্যবহার করে খুব কম খরচে সমুদ্রের জলকে বিশুদ্ধ পানীয় জলে পরিণত করার উপায় বের করে ফেলেছে সে৷ এই পলিমারটি জলের পরিবর্তে নুনের সঙ্গে যুক্ত হয়৷ জেস্যুইট হাই স্কুলের জীববিদ্যার শিক্ষক লারা শামিহে বলেন, চৈতন্য সম্পূর্ণ অন্যভাবে বিষয়টি নিয়ে ভেবেছে৷

তুষার ধসে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে মৃত শতাধিক

সাধারণত, দশ শতাংশ জল নুনের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থাকে৷ বাকি ৯০ শতাংশ কিন্তু নুনের সঙ্গে যুক্ত থাকে না৷ চৈতন্য এই ৯০ শতাংশের ওপরই গবেষণা করেছে৷ যেখানে বিজ্ঞানীদের বেশিরভাগই দশ শতাংশ নিয়ে চিন্তিত থাকেন৷ বিজ্ঞানীরা চৈতন্যের গবেষণা নিয়ে ইতিমধ্যে ভাবতে শুরু করে দিয়েছেন৷ ইন্টেলের আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান মেলায় ইণ্টারন্যাশনাল গ্লোবাল ডেভেলপমেন্টের দশ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কার দেওয়া হয়েছে৷ এমআইটির টেক.কন সম্মেলনেও চৈতন্যের গবেষণা চালিয়ে যাওয়ার জন্য আর্থিক পুরস্কারের ঘোষণা করেছে৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে