BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সন্ত্রাস দমনে ব্যর্থ, পাকিস্তানকে আর এক পয়সাও দিতে নারাজ ট্রাম্প

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 5, 2018 2:53 am|    Updated: January 5, 2018 2:53 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের সঙ্গে ক্রমাগত দ্বিচারিতা চালিয়ে যাচ্ছে। একই কাজ আমেরিকার সঙ্গে করে ঘোর বিপাকে পড়ল পাকিস্তান। পাক মুলুকের দ্বিচারিতায় বেজায় ক্ষুব্ধ ছিলেন ট্রাম্প। এবার সরাসরি জানিয়ে দিলেন, সন্ত্রাস দমনে যেভাবে ব্যর্থ হচ্ছে পাকিস্তান, তাতে নিরাপত্তার নামে আর একটি পয়সাও দিতে নারাজ তিনি।

[ ট্রেনে হিজড়াদের তোলাবাজির দাপট, গ্রেপ্তার ৪ ]

সন্ত্রাস দমন ও নিরাপত্তার কারণে পাকিস্তানকে মোটা অঙ্কের অর্থ সাহায্য করে আমেরিকা। কিন্তু দিন কয়েক আগেই মোহভঙ্গ হয় মার্কিন মুলুকের। যে সন্ত্রাস দমনের নামে দিনের পর দিন টাকা নিয়েছে পাকিস্তান, তা দমন তো করেইনি, উলটে সন্ত্রাসে মদত দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। একাধিকবার এ ব্যাপারে নালিশ ঠুকেছে ভারত। নিরাপত্তার নামে আমেরিকার থেকে টাকা নিয়ে, সেই টাকা বরং সন্ত্রাস ছড়ানোর কাজে ব্যবহৃত হয়েছে। দিনের পর দিন এক জিনিস দেখে আর চুপ থাকলেন না ট্রাম্প। হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন।  জানিয়েছিলেন যে, পাকিস্তানেকে টাকা দিয়ে দ্বিচারিতা আর প্রতারণা ছাড়া আর কিছুই পাননি। তাতে খানিকটা টনক নড়েছিল পাক মুলুকের। কিন্তু সদর্থক কোনও উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। এবার তাই যারপরনাই বিরক্ত হয়ে সবরকম অর্থসাহায্য বন্ধের সিদ্ধান্ত ট্রাম্প প্রশাসনের।

অরুণাচলপ্রদেশে চিনা সেনার অনুপ্রবেশ, মানতে নারাজ বেজিং ]

মার্কিন মুখপাত্র সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, পাকিস্তানকে নিরাপত্তা ও সন্ত্রাস দমনের কারণে আর একটি পয়সাও দেবে না আমেরিকা। আপাতত সবরকম অর্থসাহায্য বন্ধ রাখা হচ্ছে। বারবার বলা সত্ত্বেও আফগান তালিবান বা হাক্কানি নেটওয়ার্কের সন্ত্রাসী কার্যকলাপে লাগাম পরায়নি পাকিস্তান। সীমান্ত সন্ত্রাস অব্যাহত। এই পরিস্থিতিতে তাই আর কোনও অর্থসাহায্য নয়। নিশ্চিত করেই তা জানানো হয়েছে। পাকিস্তান যেদিন সন্ত্রাস দমনে সদর্থক ভূমিকা নিতে পারবে, সেদিন আবার তা বিবেচনা করে দেখা হবে বলেই জানিয়েছে আমেরিকা।

হাওয়ায় উড়ছে পুলিশের গাড়ি, ভিডিও দেখে তাজ্জব নেটদুনিয়া ]

এই ঘোষণায় স্পষ্টতি ঘোরতর বিপাকে পাকিস্তান। যদিও পাক বিদেশমন্ত্রী ঢোঁক গিলে জানিয়েছিলেন, এ নিয়ে তাঁরা ভয় পাচ্ছেন না। আমেরিকার অর্থ সাহায্য ছাড়াই পাকিস্তান দিব্যি চলতে পারে। অতীতেও আমেরিকা এ কাজ করেছে। সুতরাং এ নিয়ে তাঁদের ভয় নেই। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে এই সমীকরণ বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। চিন ও আমেরিকার হাত মাথায় থাকার ফলেই পাকিস্তানের বাড়বাড়ন্ত। ভারত-সহ একাধিক দেশকে সন্ত্রাস ও কূটনৈতিক প্রশ্নে প্রায় পাত্তাই দিচ্ছিল না পাকিস্তান। কিন্তু এই ঘোষণার পর পাকিস্তানের সে প্রতাপ আর থাকবে বলে মনে হয় না। ফলে মার্কিন অর্থ না পাওয়ার ফলে সন্ত্রাসের ডালপালাও ছড়াতে পারবে না বলেই মত বিশেষজ্ঞদের।

ভারতের মানচিত্রে নেই কাশ্মীর! চিনা গ্লোব ঘিরে বিতর্ক কানাডায় ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement