BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

গুপ্তধন-সহ সন্ধান মিলল বিশ্বের দীর্ঘতম গুহার, জানেন কোথায়?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 19, 2018 1:57 pm|    Updated: January 19, 2018 1:57 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গুহা শব্দের মধ্যে কেমন একটা ইতিহাস মিশ্রিত রহস্যের গন্ধ রয়েছে। আর সেই গুহাই যদি জলের তলায় থাকে তাহলে তো সোনায় সোহাগা। রহস্যের ঝাঁপি উপুড় করে দিয়ে বিশ্বের বৃহত্তম প্লাবিত গুহার সন্ধান মিলল জলের তলায়। ঘটনাটি মেক্সিকোর উপসাগরীয় অঞ্চল ইউকাটান পেনিনসুলার। ওই অঞ্চলে ১১৬ মাইল দীর্ঘ গুহাটির অবস্থান নিশ্চিত করেছে অনুসন্ধানকারী প্রত্নতত্ত্ববিদ ও ডুবুরিরা। আবিষ্কৃত নতুন গুহার মধ্যে থাকতে পারে প্রাচীন মায়ান সম্প্রদায়ের গুপ্তধনও। এমনটাই মনে করা হচ্ছে।

[পদ্মাপারের ভালবাসা নিয়ে দেশে ফিরলেন প্রণব]

লুক্কায়িত গুহার সন্ধানে দীর্ঘদিন ধরে এই অঞ্চলে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছিল সেদেশের ডুবুরিরা। সঙ্গে ছিলেন জলের তলায় কাজ করা প্রত্নতত্ত্ববিদেরাও। নতুন গুহাটি রয়েছে জলের তলায় থাকা দুটি গুহার মধ্যবর্তী স্থানে। এক কথায় দুটি গুহার মধ্যে সংযোগ সাধন করছে এই ১১৬ মাইলের গুহাটি। খুব শিগগির নতুন নাম পেতে চলেছে জোড়া গুহা। নতুন নাম হচ্ছে স্যাক অ্যাকটন।

উল্লেখ্য, মেক্সিকোতে রহস্যময়ী উপসাগরীয় অঞ্চল হিসেবে পেনিনসুলার খ্যাতি রয়েছে। সেই রহস্য অনুসন্ধানেই কাজ করছে গ্রেট মায়া অ্যাকুইফার প্রজেক্ট (জিএএম) টিম।  রহস্যভেদ করতে দীর্ঘদিন ধরে পেনিনসুলার জলের নিচেই রয়েছে টিমের সদস্যরা। নতুন গুহা আবিষ্কারের ঘটনা নিঃসন্দেহে ওই টিমের কাছে বড় প্রাপ্তি। বিশ্বের অন্যতম প্রত্নতত্ত্বের খনি হিসেবে এবার প্রতিনিধিত্ব করবে এই নতুন গুহা। এমনটাই মনে করেন জিএমএম-এর ডিরেক্টর। যে পদ্ধতিতে গুহার সন্ধান মিলল, সেই একই পদ্ধতি মেনেই জিএএম টিম আগে আমেরিকার প্রাচীন বাসিন্দাদের ইতিহাস খুঁজে বের করেছে। এবার খুঁজে পাওয়া যাবে প্রাচীণ মায়ান সংস্কৃতির তথ্যপ্রমাণ।

[শীতের বহরে চোখের পাতায় বরফ, ফেটে চৌচির থার্মোমিটার]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement