×

৭ চৈত্র  ১৪২৫  শনিবার ২৩ মার্চ ২০১৯   |   শুভ দোলযাত্রা।

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও #IPL12 ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

কখনও সেতুভঙ্গ আবার কখনও ভাগাড় কাণ্ডের ঝড়। অনেক বিতর্কের পালা পেরিয়ে বছর শেষ করল তিলোত্তমা। ২০১৮-য় কী কী ঘটনা বা স্মৃতির সাক্ষী থাকল এই শহর? কলকাতার অলি-গলি ঘুরে সেই স্মৃতিই টেনে আনল সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল।

মাঝেরহাট ব্রিজ বিপর্যয়
৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ঘড়ির কাঁটায় বিকেল ৪.৪০। আচমকা হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল মাঝেরহাট ব্রিজের একাংশ। মৃত্যু হয় চারজনের, আহত অন্তত ২৫। হতাহতের নিরিখে বছর দুয়েক আগের পোস্তা উড়ালপুল বিপর্যয়ের সঙ্গে তুলনীয় না হলেও এর জের চলেছে গোটা বছরই। কারণ, বেহালা, ঠাকুরপুকুর, পর্ণশ্রীর মতো শহরের একটা বড় অংশ কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে বাকি কলকাতা থেকে। পরিস্থিতি সামাল দিতে তড়িঘড়ি শহরে চালু হয়েছে দুটি বেইলি ব্রিজ। আলিপুর থেকে বেহালাগামী যান চলাচলেও আমূল বদল হয়েছে। একটি বিপর্যয়েই টনক নড়ে প্রশাসনের। শহরের বাকি ব্রিজগুলির রক্ষণাবেক্ষণের হাল খতিয়ে দেখতে গঠিত হয়েছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি।

বিধ্বংসী আগুন
এ বছরই বিধ্বংসী আগুনে পুড়ে খাক হয়েছে শহরের প্রাচীন বাগড়ি মার্কেট। তিনদিন ধরে জ্বলেছে বড়বাজারের অত্যন্ত পুরনো এই বাজার। আগুন লেগেছিল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজেও। আরও বেশ কিছু আগুনের ঘটনা ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বছরভর। কিন্তু আগুনের লেলিহান শিখাকে জব্দ করার ক্ষেত্রে এখনও সাবালক হতে পারেনি দমকল বাহিনী। তা বিভিন্ন অগ্নিকাণ্ড চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে।

যত কাণ্ড ভাগাড়ে
১৯ এপ্রিল, ২০১৮। বজবজের একটি ভাগাড় থেকে মৃত পশুর মাংস বস্তায় ভরে নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজনের হাতে ধরা পড়ে যায় দু’জন। তাদের জেরা করে কেঁচো খুঁড়তে বেরিয়ে আসে কেউটে। বজবজ থানার পুলিশ বিশেষ তদন্তকারী দল তৈরি করে হানা দেয় কলকাতা, হাওড়া, দুই ২৪ পরগনা-সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে চক্রের কারবারিদের ডেরায়। গ্রেপ্তার হয় ১০ জন। কলকাতা থেকে দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ এমনকি নেপাল, ভুটান পর্যন্ত যেত ভাগাড়ের পচা মাংস, এমনটাই উঠে আসে তদন্তে। উঠে আসে নামজাদা হোটেল-রেস্তরাঁর নামও। ভাগাড় আতঙ্ক অবশ্য এখনও কাটেনি ভোজন রসিক বাঙালির। মাংস থেকে অন্য খাবার নিয়েও ছড়িয়েছে আতঙ্ক।

নয়া ত্রাস এটিএম
৩১ জুলাই, ২০১৮। গোলপার্কের একটি কানাড়া ব্যাংকের শাখার ৩৬ জন গ্রাহক লক্ষ্য করেন, তাঁদের এটিএম থেকে উধাও টাকা। অথচ কার্ড রয়েছে তাঁদের সঙ্গেই। হু হু করে বাড়তে থাকে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকের সংখ্যা। তদন্তে নামে লালবাজার। এমন গণ হারে এটিএম প্রতারণা শহরে নতুন। এটিএমে ক্যামেরা ও স্কিমার বসিয়ে শহরজুড়ে প্রতারণায় ধরা পড়ে রোমানিয়ান গ্যাং। সঙ্গে দোসর কয়েকজন নাইজেরীয় ও মুম্বইয়ের প্রতারকও।

ফ্রিজারে মায়ের দেহ
মৃতের সঙ্গে বাস-রবিনসন স্ট্রিটের পর এমন ঘটনা আরও বেশ কিছু সামনে এসেছে। কিন্তু তাদের সবকিছুকেই ছাপিয়ে গিয়েছে বেহালার শুভব্রত মজুমদার। ৫ এপ্রিল, ২০১৮- বেহালার এসএন চ্যাটার্জি রোডের বাড়িতে অদ্ভূত কাণ্ডকারখানা প্রকাশ্যে আসে। তিন বছর আগে মারা গিয়েছিলেন তার মা। সেই দেহ বাড়িতেই বিরাট ফ্রিজারে রেখে দিয়েছিল ‘গুণধর’ ছেলে। এমনকি জালিয়াতি করে মৃত মায়ের নামে পেনশনও তোলা হচ্ছিল। মানসিক বিকার নাকি পরিকল্পিত জালিয়াতি, ধন্দে পুলিশ।

পদ ছাড়লেন শোভন
২২ নভেম্বর, ২০১৮। কলকাতা পুরসভার ইতিহাসে প্রথম মেয়র হিসাবে মেয়াদ শেষ করার আগেই পদ ছাড়তে বাধ্য হলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। স্ত্রী না বান্ধবী, সম্পর্কের টানাপোড়েনের জেরে ক্রমাগত দলে কোণঠাসা হচ্ছিলেন একদা মুখ্যমন্ত্রীর স্নেহের কানন। শেষমেশ মেয়র পদ থেকে ইস্তফা দিলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ছাড়লেন মন্ত্রিত্বও। শোভনের জায়গায় কলকাতার নয়া মেয়র হলেন ফিরহাদ। স্বাধীনতা পরবর্তী যুগে কলকাতা পুরসভা পেল প্রথম মুসলিম মেয়র।

সোমেন ইন, অধীর আউট
অধীর চৌধুরিকে সরিয়ে দু’যুগেরও বেশি সময় পরে শুরু হল সোমেন মিত্র জমানা। ১৯৯৮-এ কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে যখন তৃণমূল কংগ্রেস গঠন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তখন শেষবারের মতো প্রদেশ সভাপতি ছিলেন সোমেন। নতুন জমানাতেও রাজ্যে বাম-কংগ্রেস জোট লোকসভা ভোটেও অব্যাহত থাকে কিনা, সে দিকে নজর থাকবে নতুন বছরে।

দিল্লিকে হারাল তিলোত্তমা
কালীপুজো-দীপাবলিতে রাজধানী দিল্লির সঙ্গে সমান তালে পাল্লা দিয়েছে কলকাতা। মাঝে এক-আধদিন কলকাতা হারিয়েও দিয়েছে দিল্লিকে। কিন্তু নভেম্বরের শেষে একটানা দিল্লিকে পিছনে ফেলে দিয়েছে কলকাতা। সেটা অবশ্য গর্বের কোনও কারণ নয়, যথেষ্ট দুশ্চিন্তার। কারণ, বাযুদূষণে হাঁসফাঁস অবস্থা কলকাতারও।

Air pollution

পাতালপথে আতঙ্ক
পয়লা বৈশাখ, ষষ্ঠীর দুপুর আর ২৭ ডিসেম্বরের বিকেল৷ পাতালপথে বিভ্রাটের জেরে বছরভর শিরোনামে ছিল কলকাতা মেট্রো। বর্ষশেষে আগুন লাগা অবস্থাতেই ছুটল মেট্রো। কোনওরকম ঘোষণা করেনি কর্তৃপক্ষ। হেল্পলাইনে ফোন করেও সাহায্য মেলেনি। মেট্রোয় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একের পর এক অভিযোগ তোলেন যাত্রীরা। চলন্ত মেট্রোয় অগ্নিকাণ্ডের জেরে অন্তত ৪২ জন আহত হন। তাঁদের মধ্যে ৩৭ জন ভরতি করা হয় এসএসকেএমে। বাকিদের ভরতি করা হয় মেডিক্যালে। ঘটনায় মুখ পোড়ে কলকাতা মেট্রোর। আহত যাত্রীদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করে রেল কর্তৃপক্ষ। ঘটনার পৃথক তদন্ত শুরু করে রেল ও রাজ্য। সবমিলিয়ে পাতালপথে আতঙ্ককে দোসর করেই বছর শেষ হল শহরবাসীর।

METRO

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং