BREAKING NEWS

১৮ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২ জুন ২০২০ 

Advertisement

করোনার জের, ইদে কোলাকুলি-সহ একাধিক বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা হাসিনা সরকারের

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: May 23, 2020 9:07 pm|    Updated: May 23, 2020 9:07 pm

An Images

ফাইল ফটো

সুকুমার সরকার, ঢাকা: নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বাংলাদেশে ইদের নমাজ আদায়ের জন্য বিশেষ কিছু নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটনের পুলিশ (DMP) কমিশনার মহম্মদ শফিকুল ইসলাম। তাতে বলা হয়েছে, ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণ প্রত্যেকে নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নমাজ নিয়ে আসবেন। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নমাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। সেই সঙ্গে মসজিদের ওযুখানা ব্যবহার না করে প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসস্থান থেকে ওযু করে মসজিদে আসতে হবে।

ওই নির্দেশে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, করোনা ভাইরাসের কারণে ইদগাহ বা উন্মুক্ত স্থানে পবিত্র ইদ-উল-ফিতরের নমাজের জামাত অনুষ্ঠিত হবে না। এই ক্ষেত্রে মুসল্লিগণের জীবনের ঝুঁকি বিবেচনা করে এই বছর ইদের নমাজের জামাত খোলা জায়গার পরিবর্তে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামাতের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। ডিএমপির নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে যে ইদের নমাজের জামাতের পূর্বে মসজিদ জীবাণুনাশক দ্বারা পরিস্কার করতে হবে। ইদের নমাজের জামাতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। মসজিদের প্রবেশদ্বারে সাবান বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। নমাজের জামাতে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। আর ইদের নমাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে। এক কাতার অন্তর অন্তর কাতারবদ্ধ হতে হবে, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে মসজিদে জামাত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো থেকে বিরত থাকুন, মসজিদে শৃঙ্খলার সঙ্গে প্রবেশ ও বের হওয়ার ক্ষেত্রে পৃথক পৃথক ব্যবস্থা রাখার জন্য মসজিদ কমিটিকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: ‘রোহিঙ্গাদের আর আমাদের ঘাড়ে চাপাবেন না’, ইউরোপের দেশগুলিকে বার্তা হাসিনার মন্ত্রীর]

করোনা পরিস্থিতিতে আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীদের বাসায় যাতায়াত করা থেকে বিরত থাকতে হবে। ইদের দিন ও পরবর্তী সময়ে বিনোদন কেন্দ্রে যাতায়াত না করে বাড়িতে থেকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ইদ উদযাপন করতে হবে। ইদ উদযাপনের লক্ষ্যে যাঁরা ঢাকার বাইরে যাবেন তাঁরা বাড়ি অথবা ফ্ল্যাটের মেন গেটে অটোলক ব্যবহার করুন। আর বাড়ি ছাড়ার আগে রুমের দরজা-জানালা সঠিকভাবে তালাবদ্ধ রাখতে হবে। ডিএমপির মোত একই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের বিভাগীয় ও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে। বলা হয়েছে. ইদ-উল ফিতরের নমাজ সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী আদায় করতে হবে। কেউ না শুনলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

[আরও পড়ুন: আমফানের ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে জানতে মমতাকে ফোন, সমবেদনা জানালেন হাসিনা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement