BREAKING NEWS

২৩ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  রবিবার ৭ জুন ২০২০ 

Advertisement

‘সন্ত্রাসের গডফাদার খালেদা জিয়া’, তোপ প্রধানমন্ত্রী হাসিনার    

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: December 7, 2019 9:01 am|    Updated: December 7, 2019 9:01 am

An Images

ফাইল ফটো

সুকুমার সরকার, ঢাকা: খুনি, সন্ত্রাসবাদী তথা দুর্নীতিগ্রস্তদের ক্ষমতা থেকে দূরে রাখতে দেশবাসীর কাছে আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরোক্ষে খালেদা জিয়ার দল বিএনপি’র বিরুদ্ধে তোপ দেগে হাসিনা বলেন, ‘ঘোষখোরেরা যাতে ক্ষমতায় আসতে না পারে, সে ব্যাপারে জনতাকে সতর্ক থাকতে হবে।’

সদ্য রাজধানী ঢাকার গণভবনে আওয়ামি লিগের জাতীয় কমিটির বৈঠকে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী হাসিনা। নাম না করে বিরোধী দল বিএনপি’র বিরুদ্ধে সুর চড়ান তিনি। এতিমখানা দুর্নীতি মামলায়বেগম খালেদা জিয়াকে নিশানা করে হাসিনা বলেন, ‘অনাথদের অর্থ যারা আত্মসাৎ করে তাদের থেকে সতর্ক থাকুন। জিয়াউর রহমান ও তাঁর স্ত্রী খালেদা জিয়ার আমলে দেশের কোনও উন্নয়ন হয়নি। বরং বিএনপি যখন ক্ষমতায় এসেছে, তখন দেশ সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি ও দুর্ভিক্ষের দিকে এগিয়ে গেছে।’ শুধু তাই নয়, খালেদা জিয়াকে সন্ত্রাসবাদের গডফাদার বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর সাফ কথা, ‘আগুন জ্বালিয়ে, সন্ত্রাসের মাধ্যমে নিরীহ মানুষদের হত্যা করার চেয়ে বড় কোনও সন্ত্রাস নেই। খালেদা জিয়ার নির্দেশে পরিচালিত আগুন-সন্ত্রাসে পুলিশ সদস্য-সহ প্রায় ৫০০ লোক নিহত এবং ৩ হাজারের বেশি আহত হয়েছেন।’

উল্লেখ্য, বিগত সাধারণ নির্বাচনে কার্যত সাফ হয়ে গিয়েছে বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। দুর্নীতির দায়ে জেলের সাজা খাটছেন দলের সুপ্রিমো বেগম খালেদা জিয়া। তাঁর ছেলে তথা দলের শীর্ষ নেতাদের অন্যতম তারেক জিয়াও পলাতক। উগ্র মৌলবাদী তথা বিএনপি’র জোটসঙ্গী জামাতের অবস্থায় তথৈবচ। ওই সংগঠনের জায়গা নিয়েছে আওয়ামি লিগের ‘সমর্থক হেফাজত ই ইসলাম। এছাড়াও ক্ষমতায় এসে সন্ত্রাসবাদী তথা রাজকরদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করেছেন হাসিনা। ফলে জনমত অনেকাংশেই তাঁর দিকে ঝুঁকে। এদিকে, ২০০৯ সালের জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করা হয়।ওই মামলায় দোষী সব্যস্ত হয়ে জেলে রয়েছেন বেগম জিয়া। প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় জিয়া তার ক্ষমতা অপব্যবহার করে এই ট্রাস্টের জন্য ৬ কোটি ১৯ লক্ষ টাকার তহবিল জোগাড় করে আত্মসাৎ করেন। এই মামলায় তাঁর ১৭ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেয় আদালত৷ এছাড়া নাইকো, গ্যাটকো, বড় পুকুরিয়া কয়লা খনি মামলাও  রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।   

[আরও পড়ুন: AIDS ছড়াচ্ছে রোহিঙ্গারা, শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ]

    

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement