২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: শান্তিতে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহম্মদ ইউনুসকে আগামী ৭ নভেম্বরের মধ্যে শ্রম আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। তবে তিনি যাতে ঢাকা বা চট্টগ্রাম বিমানবন্দর দিয়ে দেশে
ফিরে নির্বিঘ্নে আত্মসমর্পণ করতে পারেন। সেই জন্য তাঁকে গ্রেপ্তার বা হয়রানি না করতে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

[আরও পড়ুন: সালিশি সভায় নববধূকে তালাক, শাশুড়িকে বিয়ে জামাইয়ের]

সোমবার এই নির্দেশ দেন বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরি ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাই কোর্ট বেঞ্চ। ড. মহম্মদ ইউনুসের ভাই মুহম্মদ ইব্রাহিমের করা আবেদনের ভিত্তিতে এই নির্দেশ দেন বিচারপতিরা। আজ এই মামলার শুনানিতে আবেদনকারীদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ। সরকারের পক্ষে সওয়াল করছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ।

ড. মুহম্মদ ইউনুস প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ কমিউনিকেশনের কর্মচারীদের ট্রেড ইউনিয়ন করা নিয়ে বিরোধের জেরে কয়েকজন কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করা হয়। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত তিন কর্মচারীর হয়ে প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশনের কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম, প্রচার সম্পাদক শাহ আলম ও সদস্য এমরানুল হক গত ৩ অক্টোবর শ্রম আদালতে পৃথক তিনটি মামলা করেন।

[আরও পড়ুন:ধর্ষকদের পিটিয়ে নিজেই জড়ালেন ধর্ষণে! বাংলাদেশের ছাত্রলিগ নেতার কাণ্ডে তীব্র নিন্দা]

এই মামলায় ড. ইউনুস, প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীনকে বিবাদী করা হয়। এই মামলায় ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে বিবাদীদের উপস্থিতির জন্য গত ৯ অক্টোবর দিন ধার্য করা ছিল। কিন্তু, ড. ইউনুস বিদেশ থাকায় তিনি উপস্থিত হতে পারেননি। তবে অপর দু’জন উপস্থিত ছিলেন। এর ফলে ওইদিন ড. ইউনুসের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ৩ জুলাই ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে মহম্মদ ইউনুস-সহ তিন জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন গ্রামীণ কমিউনিকেশনসের প্রস্তাবিত শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম, সংগঠনের প্রচার সম্পাদক শাহ আলম এবং সংগঠনের সদস্য এমরানুল হক।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং