BREAKING NEWS

১০ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৬ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ধর্মীয় কার্যকলাপের নামে মহিলাদের নিয়ে ফুর্তি! পীরের বিরুদ্ধে FIR প্রাক্তন স্ত্রীর

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 21, 2020 9:09 pm|    Updated: November 21, 2020 9:14 pm

An Images

এখানেই আসর বসত বলে অভিযোগ

সুকুমার সরকার, ঢাকা: ধর্মীয় কার্যকলাপের নামে মহিলাদের নিয়ে রাতভর ফুর্তি করার অভিযোগে এক পীরের বিরুদ্ধে এফআইআর করেছেন তার প্রাক্তন স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে রাজশাহী (Rajshahi) জেলার তানোর উপজেলার শিতলী পাড়া গ্রামে। অভিযুক্ত নিজের বাড়িতেই মাজার শরীফ গড়ে সেখানে মাদক সেবনের পর মাতাল হয়ে এই অপকর্ম করে বলে দাবি। তাই গ্রামের ৯৭ জনের বাসিন্দার স্বাক্ষর নিয়ে জনৈক কাওসার আলি ও অভিযুক্তের প্রাক্তন স্ত্রী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিকের কাছে পৃথক দুটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তাতে উল্লেখ করা হয়েছে, বেসরকারি সংস্থা রুল ফাও তানোর শাখার ম্যানেজার শেখ ইয়াসিন আলী ওয়ারেছী গত প্রায় পাঁচ বছর আগে ডাক বাংলো সংলগ্ন শিতলী পাড়ায় জমি কিনে বাড়ি তৈরি করে। পরে সেখানেই মাজার শরীফ গড়ে নিজেকে পীর বলে দাবি জানায়। এর আগেও প্রায় তিন বছর একটি ভাড়াবাড়িতে এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছিল সে। সেখানে সবসময় ২ জন মহিলা-সহ চার থেকে পাঁচজন থাকত। প্রতি বৃহস্পতিবার ছাড়াও মাসের বিশেষ একদিনে সন্ধ্যার পর বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে রাতভর গানবাজনা-সহ বিভিন্ন অসামাজিক কাজকর্ম করত। আস্তে আস্তে লোকজনের সংখ্যা বাড়তে থাকায় প্রতিবাদ করেছিলেন তাঁর প্রাক্তন স্ত্রী। এর জেরে তাঁকে মারধর করার পর তালাক দিয়ে এক ছেলে ও মেয়ে-সহ বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় অভিযুক্ত।

[আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় তৎপরতা, ভ্যাকসিন আমদানিতে হাজার কোটি টাকার অর্ডার দিল বাংলাদেশ]

ওই মহিলা আরও বলেন, ‘বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পুরুষ ভক্তদের পাশে শুয়ে দৈহিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার জন্য আমাকে ও আমার মেয়েকে দীর্ঘদিন ধরে চাপ দিচ্ছিল অভিযুক্ত। তাতে রাজি না হওয়ায় সাড়ে তিন মাস আগে ওই মহিলাকে তালাক দিয়ে মেয়ে ও ছেলে-সহ বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। ওই বাড়িতে আমার নামে দুই শতক জমি আছে কিন্তু পীর (spiritual leader) তা জবরদখল করে রেখেছে। আর ওই বাড়িতে পীরের আস্তানার নামে নারীপুরুষদের দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করানো হচ্ছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে প্রশাসন কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না।’

অন্যদিকে অভিযুক্ত শেখ ইয়াছিন আলী ওয়ারেছী সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলে, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই ধর্মপরায়ণ মানুষ। এখানে আমার ভক্তরা আসে জিকির আজগার ও ধর্ম পালন করেন। আমার তালাক দেওয়া স্ত্রী গ্রামের কিছু কুচক্রী লোকের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আমাকে মাজার শরীফ তাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। আমার তালাক দেওয়া স্ত্রী প্রতিবেশী কাওসার আলির বাড়িতে কেন থাকছে? কীভাবে থাকছে? আসলে ওদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আমাকে এখান থেকে তাড়ানোর জন্য নিজেই বিভিন্ন অপকর্ম করছে।’

[আরও পড়ুন: ৭ যুবতীর মৃতদেহের সঙ্গে যৌন সঙ্গমের অভিযোগ, ধৃত মর্গের কর্মচারী]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement