৯ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  শুক্রবার ২৪ মে ২০১৯ 

Menu Logo নির্বাচন ‘১৯ দেশের রায় LIVE রাজ্যের ফলাফল LIVE বিধানসভা নির্বাচনের রায় মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: পারিবারিক অত্যাচারের অভিযোগে কারাগারে বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়ক-অভিনেতা হিরো আলম৷ শ্রীঘর থেকে ফিরেই রাজনীতির মাঠে নেমে পড়েছিলেন৷ পেয়েছিলেন বাংলাদেশের জাতীয় পার্টির বড়সড় পদ৷ দলের সাংস্কৃতিক শাখার কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদকের পদে বসানো হয়েছিল তাঁকে৷ এবার বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হচ্ছেন তিনি৷ শনিবার সন্ধেবেলা এই খবর নিশ্চিত করেছেন আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম৷ তিনি বলেন, ‘আমার বাড়ি সদর উপজেলার এরুলিয়াতে, তাই এবার আমিই সদর আসনে নির্বাচনে লড়ছি৷ মনোনয়ন দিতে চেয়ে দলের কাছে বলেছি৷ আশা করি, আমার জনপ্রিয়তার কথা বিবেচনা করবে দল৷’

[ আরও পড়ুন: রোহিঙ্গা প্রত্যর্পণে আসিয়ানভুক্ত দেশগুলির সাহায্য চায় ঢাকা]

হিরো আলম ঘনিষ্ঠ সূত্রে খবর, দলের হয়ে মনোনয়ন জমা দিতে না পারলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বগুড়া-৬ (সদর) আসন থেকে উপনির্বাচনে লড়বেন তিনি৷ এর আগে একাদশ সংসদীয় নির্বাচনে বগুড়া-৪ আসন থেকে নির্দল প্রার্থী হয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন এই জনপ্রিয় অভিনেতা৷ আদতে বগুড়ার সদর উপজেলার কেবল ব্যবসায়ী আশরাফুল হোসেন আলম কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘হিরো আলম’ নামে জনপ্রিয় হন৷ গত নির্বাচনে জাতীয় পার্টির হয়ে মনোনয়ন পেশের ইচ্ছাপ্রকাশ করলেও, তা হয়নি৷ তাই নির্দল হিসেবে লড়াইয়ে নেমে মাত্র ৬৩৮টি ভোট পাওয়ায় হিরো আলমের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়৷ ওই নির্বাচনে বগুড়া-৬ (সদর) আসন থেকে জয়ী হওয়া বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেওয়ায় সেখানে ফের নির্বাচন করানোর সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন৷ আর সেখানেই সুযোগ বুঝে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান হিরো আলম৷

[ আরও পড়ুন: নুসরত হত্যাকাণ্ডে বদলির নির্দেশ অমান্য, পদে বহাল পুলিশ সুপার ও এসআই]

মাসখানেক আগে স্ত্রীর উপর অত্যাচার করার অভিযোগে হিরো আলমকে শ্রীঘরে পাঠিয়েছিল আদালত৷ যৌতুকের দাবিতে দাম্পত্য অশান্তিতে স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে৷ তবে হিরো আলম সেই অভিযোগ খারিজ করে দাবি করেছিলেন, মডেলিং, মিউজিক ভিডিওয় তাঁর কেবল ব্যবসার মালিকানা স্ত্রীকে দিয়ে দিয়েছিলেন৷ স্ত্রী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন সেই ব্যবসায় টাকাপয়সা তছরূপ করার পর কেলেঙ্কারি থেকে বাঁচতে তাঁর দিকে তির ঘুরিয়ে দিয়েছেন৷ যদিও হিরো আলমের এসব যুক্তি আদালতের ধোপে টেকেনি৷ শ্রীঘর থেকে বেরিয়ে এবার রাজনৈতিক কেরিয়ার কতটা মসৃণভাবে এগোয়, সেদিকে নজর থাকবে বাংলাদেশবাসীর৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং