৪ মাঘ  ১৪২৫  শনিবার ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: বলপূর্বক তাঁর সমর্থকদের ভোট দিতে দেওয়া হয়নি৷ তাই জামানতের টাকা ফেরত দিতে হবে কমিশনকে৷ এই দাবিতেই এবার আদালতের দ্বারস্থ হলেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেতা হিরো আলম৷ জানালেন, সঠিক ভাবে নির্বাচন হলে বিপুল ভোটে জয় পেতেন তিনি৷

[বাংলাদেশে শুরু নতুন মন্ত্রিসভা গঠনের কাজ]

সদ্যসমাপ্ত বাংলাদেশ নির্বাচনের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার এক রাশ ক্ষোভ উগরে দেন হিরো আলম৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি এই ভোট মানি না। সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হলে বিপুল ভোটে জয়ী হতাম আমি৷ কিন্তু আমার সমর্থকদের ভোট দিতে দেওয়া হয়নি৷ আমাকে নির্বাচনী এজেন্ট নিয়োগ করতে দেওয়া হয়নি৷ আমাকে এবং আমার লোকজনদের মারধর করা হয়েছে। যেহেতু আমাদের ভোট দিতে দেওয়া হয়নি, তাই আমার জমা দেওয়া জামানতের টাকা নির্বাচন কমিশনকে ফেরত দিতেই হবে।’’ কমিশনকে এই বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েও কোনও লাভ হয়নি বলেও দাবি তাঁর৷ রবিবার বাংলাদেশে ছিল একাদশতম জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্দল প্রার্থী হিসেবে বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) নম্বর কেন্দ্র থেকে লড়াইয়ে নেমেছিলেন হিরো আলম ওরফে আশরাফুল আলম। ফল প্রকাশের পর দেখা যায় গোহারান হেরেছেন হিরো আলম। পেয়েছেন মাত্র ৬৩৮টি ভোট। ওই কেন্দ্রের ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ১২ হাজার ৮১। বগুড়া-৪ কেন্দ্রে জিতেছেন বিএনপির মোশারফ হোসেন। দ্বিতীয় স্থানে আওয়ামি লিগের প্রার্থী রেজাউল করিম তানসেন।

[দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, বেকারত্ব কমানো হাসিনার নয়া চ্যালেঞ্জ]

প্রসঙ্গত, রবিবার বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হয় ১১তম সাধারণ নির্বাচন৷ সংসদের ৩০০ আসনের মধ্যে ২৯৮টির ফল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত ফল অনুযায়ী আওয়ামি লিগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২৮৮টি আসনে জয়ী হয়েছে৷মহাজোটে থাকা আওয়ামি জোট পেয়েছে ২৫৯টি ভোট৷ ২০ টি আসন পেয়েছে এরশাদের জাতীয় পার্টি৷ ওয়ার্কার্স পার্টি পেয়েছে ৩টি এবং জাসদ পেয়েছে ২টি ভোট৷ বিকল্পধারা ২, তরিকত ফেডারেশন এবং জেপি ১টি করে আসন পেয়েছে৷ বিএনপি-সহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পেয়েছে মাত্র ৭টি আসন৷ ওই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে থাকা বিএনপি পেয়েছে ৫টি এবং গণফোরাম ও ঐক্যপ্রক্রিয়া পেয়েছে ১টি করে মোট ২টি আসন৷ তিনটি আসনে নির্দল প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং