৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: প্রয়াত ভাষা সৈনিক লায়লা নূর। শুক্রবার সকালে বাংলাদেশের কুমিল্লার একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। দীর্ঘদিন ধরেই বার্দ্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।

[আরও পড়ুন: দোষী সাব্যস্ত ধর্ষিতাই! চাবুকপেটা খেয়ে ‘প্রায়শ্চিত্ত’ করল কিশোরী]

লায়লা নূরের নাতি গোলাম জিলানী জানিয়েছেন, গত ২৮ মে রাতে ঢাকার প্রফেসর পাড়ায় নিজের বাড়িতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন লায়লা দেবী। ওই অবস্থায় তড়িঘড়ি তাঁকে উদ্ধার করে সিডিপ্যাথ হাসপাতালে ভরতি করা হয়। মঙ্গলবার থেকে সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন লায়লা নূর। শুক্রবার সকালে হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে সাংস্কৃতিক জগতে। তাঁর মৃত্যুতে শোকজ্ঞাপন করেছে কুমিল্লা কলেজ-সহ বিভিন্ন কলেজের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও পড়ুয়ারা। শুক্রবার বিকেলেই তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে বলে সূত্রের খবর।

[আরও পড়ুন: মোদির শপথ অনুষ্ঠানে নেই শেখ হাসিনা, যোগ দেবেন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি]

১৯৩৪ সালের ৫ অক্টোবর বাংলাদেশের কুমিল্লায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন লায়লা নূর। ১৯৫২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি নিয়ে পড়াশোনা করেন তিনি। সেই সময় ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন লায়লা দেবী। ভাষা আন্দোলনের পক্ষে মিছিল করে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন মোট ২১ জন পড়ুয়া। তাঁদের মধ্যেই ছিলেন লায়লা নূর। ভাষা আন্দোলনের জন্যই ২১ দিন কারাগারে ছিলেন তিনি। এরপর ১৯৫৭ সালে কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজে প্রথম নারী শিক্ষক হিসেবে ইংরেজি বিভাগে যোগ দেন লায়লাদেবী।  দীর্ঘ ৩৫ বছর শিক্ষকতার পর ১৯৯২ সালে চাকরি জীবন থেকে অবসর নেন। এরপর ২০১৪ সালে তিনি অনন্যা শীর্ষ দশ নারী সম্মান পান। প্রসঙ্গত, জীবদ্দশায় বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও ম্যাগাজিনে লেখালেখি করেন লায়লা নূর। বিখ্যত বেশ কিছু লেখা ইংরেজি অনুবাদও করেছেন তিনি। সাহিত্যের জগতে তাঁর অবদান অতুলনীয়।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং