১০ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: মায়ানমারে জারি সেনা অভিযান৷ তার জেরে ঘরছাড়া অন্তত ১১ লক্ষেরও বেশি রোহিঙ্গা৷ প্রায় সকলেই আশ্রয় নিয়েছেন বাংলাদেশে৷ তবে গৃহহারা রোহিঙ্গারা সসম্মানে আদৌ কবে মায়ানমারে ফিরে যেতে পারবেন, সেই বিষয়টি নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা৷ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দাবি, মায়ানমার বারবার প্রতিশ্রুতি দিলেও রাখাইনে রোহিঙ্গাদের জন্য একটি সহায়ক পরিবেশ তৈরি করতে ব্যর্থ৷ এই পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরাতে ওআইসি বা অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশনের সমর্থন চাইলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী৷

[ আরও পড়ুন: প্রয়াত ভাষা সৈনিক লায়লা নূর, শোকের ছায়া সাহিত্য জগতে]

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপান সফরে গিয়েছিলেন৷ শুক্রবার সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে টোকিও হানেদা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিশেষ বিমানে চড়েন তিনি। জাপানের বিদেশ প্রতিমন্ত্রী তোশিকো আবে এবং জাপানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাবা ফাতিমা বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। জাপান সফর শেষে শেখ হাসিনা অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) ১৪তম সম্মেলনে যোগ দিতে সৌদি আরবে পৌঁছান। প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীরা বিশেষ বিমানে স্থানীয় সময় শুক্রবার বিকাল ৫টা ২৫ মিনিটে বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন। প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে পৌঁছালে সৌদি সশস্ত্র বাহিনীর একটি দল তাঁকে গার্ড অফ অনারও দেন।

[ আরও পড়ুন: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ ডাকসুর আজীবন সদস্য পদ পেলেন শেখ হাসিনা]

ওআইসির ৫৭টি সদস্য রাষ্ট্রের প্রধান এবং প্রতিনিধিরা এই সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন। তাঁদের স্বাগত জানান সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স সলমন বিন আবদুল আজিজ। শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তিনি। সম্মেলনের শুরুতেই বক্তব্য দেন সলমন। সংস্থার মহাসচিবের বক্তব্যের পর রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা বক্তব্য দেন। সম্মেলনে যোগ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘‘আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তা সত্ত্বেও মানবিক দিক বিবেচনা করে ১১ লক্ষ ঘরছাড়া রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছি।’’ রোহিঙ্গারা যেন মায়ানমারে ফিরে গিয়ে তাঁদের অধিকার নিয়ে বসবাস করতে পারেন, তা নিশ্চিত করতে ওআইসিভুক্ত দেশগুলিকে এগিয়ে আসার আহ্বানও জানান হাসিনা৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং