BREAKING NEWS

১৯ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২ জুন ২০২০ 

Advertisement

প্রতিমা ভেঙে গুঁড়িয়ে দিল দুষ্কৃতীরা, বাংলাদেশে ফের আক্রান্ত হিন্দু সম্প্রদায়

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: October 21, 2019 1:51 pm|    Updated: October 21, 2019 1:51 pm

An Images

সুকুমার সরকার, ঢাকা: বাংলাদেশে ফের হামলা হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় স্থানে। এবার তিনটি মন্দিরে প্রতিমা গুঁড়িয়ে দিল দুষ্কৃতীরা। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঘটনার ফলে রীতিমতো উত্তেজনা ছড়িয়েছে দেশে।

পুলিশ সূত্রে খবর, রবিবার পিরোজপুরের জেলার নাজিরপুর উপজেলায় তিনটি মন্দিরে ভাঙচুর চলে দুষ্কৃতীরা। উপজেলার দীর্ঘা ইউনিয়নের কলারদোয়ানিয়া বাজার ও কলারদোয়ানিয়া গ্রামে মন্দিরে হামলা হয়। ঘটনার চালানোর সময় স্থানীয় বাসিন্দারা কামরুল ইসলাম সুজন (৩০) নামের এক দুষ্কৃতীকে পাকড়াও করে। জানা গিয়েছে, উপজেলার কলারদোয়ানিয়া বাজার সর্বজনীন দুর্গা মন্দির, কলারদোয়ানিয়া গ্রামে শ্রী শ্রী রাধাগোবিন্দ সেবাশ্রম ও কালি মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করার ঘটনায় আটক সুজন পার্শ্ববর্তী নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠি) উপজেলার রাজাবাড়ী গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদিনের ছেলে। ওই যুবক প্রথমে কলারদোয়ানিয়া বাজার সর্বজনীন দুর্গা মন্দিরের তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে প্রতিমা ভাঙচুর করে। পরে কলারদোয়ানিয়া বাজার সংলগ্ন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অধীর রঞ্জন মল্লিকের বাড়ির শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দিরে ঢুকে প্রতিমা ভাঙচুর করে। ওই বাড়ির গৃহবধূ গৌরী মল্লিক জানান, তিনি ভোরবেলা মন্দিরের দরজার তালা খুলে রেখে পুজো দেওয়ার জন্য ফুল তুলতে যান। কিছুক্ষণ পরে এসে দেখেন পাঞ্জাবি পরা, মাথায় টুপি ও মুখে দাড়িওয়ালা এক লোক বাড়ি থেকে বের হয়ে যাচ্ছে। তখনও তিনি বিষয়টি বুঝতে পারেননি। তারপর মন্দিরে ঢুকে দেখেন সব প্রতিমা ভাঙা।

নাজিরপুর থানার ওসি মহম্মদ মুনিরুল ইসলাম মুনির জানান, ঘটনার খবর পেয়ে তিনি পুলিশ সুপার-সহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আটক কামরুল ইসলাম সুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশে শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় আসার পর অনেকটাই পিছু হঠেছে জামাত-সহ বেশ কয়েকটি মৌলবাদী সংগঠন। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আওয়ামি লিগ সরকারের কড়া মনোভাবে কোণঠাসা সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলি এবার সংখ্যালঘুদের উপর হামলা চালাচ্ছে। সম্প্রতি, মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের হয়ে অত্যাচার চালানোর দোষে বেশ কয়েকজন জামাত নেতার ফাঁসি হওয়ার পর থেকেই দেশের সিলেট, ঢাকা-সহ একাধিক জায়গায় হিন্দুদের উপর হামলার ঘটনা অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পেয়েছে।

[আরও পড়ুন: ‘আবরার হত্যা তদন্ত শেষ না হলে পরীক্ষা নয়’, পড়ুয়াদের দাবিতে সায় দিল বুয়েট]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement